• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

হারাম পণ্যের ব্যবসা ; সংকলনে- ডা. এ.বি সিদ্দিক

অর্থ-সম্পদ উপার্জনের অন্যতম একটি বড় মাধ্যম হল ক্রয়-বিক্রয় বা ব্যবসা-বাণিজ্য। বিশ^নবী মুহাম্মদ (সা.) নিজে ব্যবসা করেছেন এবং তাঁর সম্মানিত সাহাবাদের অনেকেই এই পেশার সাথে জড়িত ছিলেন। এই ব্যপারে স¦য়ং আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, আল্লাহ বেচা-কেনা বা ব্যবসাকে হালাল করেছেন এবং সুদ হারাম করেছেন। (সূরা বাকারা: ২৭৫)
কিন্তু ইসলামী শীরয়ত কর্তৃক বৈধকৃত এই পেশাটি কখনো কখনো মনুষ্য সৃষ্ট কিছু কারণে হারামে রূপান্তরিত হয়ে যায়। তন্মধ্য থেকে অন্যতম একটি কারণ হলো হারাম পণ্যের ব্যবসা। অর্থাৎ এমন কিছু জিনিস আছে যেগুলো বেচা-কেনা করা শরীয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে নিষিদ্ধ। এখন কেউ যদি ঐ সমস্ত নিষিদ্ধ জিনিসের ব্যবসা করে, তবে তা হরাম হবে। যেমন-
১। নেশাজাত দ্রব্যের ব্যবসা। যেই সমস্ত জিনিস নেশা সৃষ্টি করে তা ভক্ষণ করা এবং এর মাধ্যমে কোন ধরনের উপকার হাসিল করা হারাম। কেননা রাসূল (সা.) নেশা জাতীয় দ্রব্যের সাথে সম্পৃক্ত সকল প্রকার লোকের উপর লা’নত করেছেন।
আনাস বিন মালেক (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল (সা.) মাদকের সাথে সংশ্লিষ্ট দশ প্রকার লোকের উপর লা’নত করেছেন। তারা হলো- যে মাদক তৈরী করে, যে এতে সহযোগিতা করে, যে মাদক গ্রহণ করে, যে বহন করে, যার দিকে বহন করা হয়, যে পরিবেশন করে, যে মাদক বিক্রয় করে, যে তার মূল্য ভোগ করে, যে মাদক ক্রয় করে এবং যার জন্য ক্রয় করা হয়। (তিরমিযি: ১২৯৫)
২। গান ও বাদ্যযন্ত্রের ব্যবসা। গান-বাজনার কারণে মানুষ আল্লাহর স্মরণ থেকে দূরে সরে যায়। এগুলোর কারণে বিভিন্ন ধরনের পাপ কাজ করার আগ্রহ জন্মায়। গান-বাজনার মাধ্যমে খুব সহজেই মানুষ শয়তানের অনুসারী হয়ে যায়। যার কারণে ইসলাম এই ধরনের কাজকে এবং এর মাধ্যমে উপার্জন করাকে নিষেধ করেছে।
আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত। (তিনি বলেন), রাসূলুল্লাহ (সা.) কুকুর বিক্রয়ের মূল্য হতে এবং গানের উপার্জন হতে নিষেধ করেছেন। (সিলসিলা সহীহা: ৩২৬৫)
অন্যত্র এসেছে, আব্দুল্লাহ বিন আমর (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা আমার উম্মতের জন্য মদ, জুয়া, ঢোল-তবলা এবং বীণাজাতীয় বাদ্যযন্ত্রকে হারাম করেছেন। (সিলসিলা সহীহা: ১৭০৮)
কাজেই গান তৈরী করে, সুর দিয়ে, গানে অভিনয় করে, গান গেয়ে, বাদ্য বাজিয়ে বিনিময় গ্রহণ করা, বাদ্যযন্ত্রের ব্যবসা করা, গানের ক্যাসেট বিক্রয় করা, মেমোরিতে গান লোড দেওয়ার ব্যবসা করা, গানের মঞ্চ তৈরী করে অর্থ উপার্জন করা এবং গান-বাজনার সরঞ্জামাদি ভাড়া দেওয়া ইত্যাদি সবই হারাম হবে।
৩। হারাম প্রাণীর ব্যবসা। যে সকল প্রাণী ভক্ষণ করা হারাম, সেগুলোর ব্যবসা করাও হারাম। উদাহরণ সরূপ কুকুর ও বিড়ালের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। জাবের (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) কুকুর ও বিড়ালের মূল্য নিতে নিষেধ করেছেন। তবে শিকারী কুকুর ব্যতীত (অর্থাৎ শিকারী কুকুর বেচা-কেনা করা যাবে, কেননা এটি পাহাড়াদারীসহ বিভিন্ন কাজে আসে)। (নাসাঈ:৪৬৬৮)
৪। মৃত প্রাণীর ব্যবসা। হালাল প্রাণী সমূহের মধ্য থেকে কেবলমাত্র যবেহকৃত প্রাণী সমূহকেই খাওয়া ও বিক্রয় করা আমাদের জন্য আল্লাহ তায়ালা বৈধ করেছেন। অপরদিকে (মাছ ছাড়া) বৈধ পন্থায় যবেহ বা শিকার করা ছাড়া অন্য কোন উপায়ে মৃত্যুবরণ করে যেসব প্রাণী, যেসব প্রাণীর গোশত খাওয়া, বিক্রয় করা এবং তা থেকে অন্য কোন উপায়ে উপকার লাভ করাকে তিনি হারাম করেছেন। এই মর্মে রাসূল (সা.) বলেন,
নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা মদ ও তার মূল্য, মৃত ও তার মূল্য এবং শূকর ও তার মূল্যকে হারাম করে দিয়েছেন। (তারগীব ওয়াত তারহীব: ২৩৫৮)
৫। মূর্তি বা ছবির ব্যবসা। মূর্তি ও ছবি শিরকের উৎপত্তিস্থল হওয়ার কারণে ইসলামে কোন ধরনের মূর্তি বা ছবি তৈরী করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর সকল উপার্জনও হারাম করা হয়েছে। হাদীসে এসেছে, আওন আবনে আবু জুহাইফা (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল (সা.) কুকুর ও রক্তের মূল্য এবং ব্যভিচারের উপার্জন গ্রহণ করা থেকে নিষেধ করেছেন। আর দেহে দাগ দেওয়া বা নেওয়া তথা উল্কি করা হতে নিষেধ করেছেন। সুদ দেওয়া ও সুদ খাওয়া থেকে নিষেধ করেছেন। আর মূর্তি (বা ছবি) নির্মাতাকে অভিশম্পাত করেছেন। (বুখারী: ২০৮৬)
উপরোল্লিখিত আলোচনার মাধ্যমে কিছু হারাম পণ্যের ব্যবসা সম্পর্কে আমরা জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত উল্লেখিত ব্যবসাগুলোসহ এই ধরনের যাবতীয় ব্যবসা থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *