• বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৪০ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে বিশ্ব এইডস দিবসে র‌্যালি আলোচনা ভৈরবে বর্ণাঢ্য আনন্দ আয়োজনে নিরাপদ সড়ক চাই এর ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কিশোরগঞ্জে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় অংশ নেয়াদের পুরস্কার প্রদান হোসেনপুরে মাতৃমৃত্যু বিষয়ক সামাজিক পর্যালোচনা সভা কুলিয়ারচরে উন্নয়ন কাজের শুভ উদ্বোধন করেন আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন এমপি তাড়াইলে বিট পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী?দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী? সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ভৈরবে পুড়ে যাওয়া পাদুকা মার্কেট পরিদর্শন করলেন এমপি পাপন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ২০০ জন প্রান্তিক কৃষককে বিনামূল্যের বীজ প্রদান বাজিতপুরে চালকে হত্যা করে বিভাটেক ছিনতাই

এক নারীর ফোন কলে গিয়ে ইতালি প্রবাসী খুন! বাসার সামনে অপেক্ষমান ছিল সন্দেহভাজন মাইক্রো

ভিকটিম আমিনুল, তাসলিমার ফোন কল রেকর্ড এবং আদালতে পুলিশ প্রহরায় তাসলিমা। -পূর্বকণ্ঠ

এক নারীর ফোন কলে
গিয়ে ইতালি প্রবাসী খুন!
বাসার সামনে অপেক্ষমান
ছিল সন্দেহভাজন মাইক্রো

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জ শহরের নীলগঞ্জ রোড এলাকার বাসিন্দা ইতালি প্রবাসী আমিনুল আলম (৪৪) প্রায় ৫ বছর পর গত সেপ্টেম্বর মাসে ইতালি থেকে কিশোরগঞ্জে এসে গত ৩ ডিসেম্বর রাতে প্রতিবেশি তাসলিমা আক্তারের (২৪) বাসায় গিয়ে খুন হয়েছেন। এর আগে তাসলিমা ভিকটিমকে তিনবার ফোন করেন। আর ঘটনার সময় ভিকটিমের বাসার সামনের রাস্তায় একটি সন্দেহভাজন মাইক্রো দাঁড়ানো ছিল। মাইক্রোর পাশে অপরিচিত একজনকে অস্থির ভঙ্গিমায় পায়চারি করতে দেখা গেছে। ওই ব্যক্তি একটি সিগারেট ধরিয়েও একটি ফোন পেয়ে আস্ত সিগারেট মাটিতে ফেলে দেন। ভিকটিমের বাসার নীচ তলার দোকানের সিসি ক্যামেরায় এসব ফুটেজ রেকর্ড হয়েছে বলে ভিকটিমের স্ত্রী সোমা আলম (৩৭) জানিয়েছেন। তাদের ধারণা, ওই মাইক্রোতে করেই ভাড়াটিয়া খুনিরা এসেছিল। মাইক্রোটি তাদের বাসার সামনে দাঁড় করিয়ে ওই ব্যক্তিটি হয়ত সবদিকে নজর রাখছিলেন। আর মিশন শেষ করে ওই মাইক্রো দিয়েই পালিয়ে গেছেন।
এদিকে আমিনুলের ওপর আক্রমণ করে তাসলিমা নিজে সদর মডেল থানায় গিয়ে খবর জানান, তাকে ধর্ষণের চেষ্টার সময় আমিনুলকে মসলা বাটার শিল দিয়ে মাথায় আঘাত করেছেন। আমিনুলের নিথর দেহ তার বাসায় পড়ে আছে। পুলিশ গিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় আমিনুলকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখান থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। মাথার আঘাতে মগজ বেরিয়ে গিয়েছিল এবং প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। এমতাবস্থায় ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় রেফার্ড করলে আমিনুলকে ঢাকায় নেয়ার পথে ভালুকা এলাকায় রাত ৩টার দিকে তিনি মারা যান। সোমা তিনি নিহতের ছবি দেখিয়ে বলেন, মাথায় চাইনিজ কুড়াল বা চাপাতির মত কোপের গভীর আঘাত রয়েছে। এগুলি মোটেও মসলা বাটার শীলের আঘাত হতে পারে না। হাতেও কোপের আঘাত রয়েছে। হয়ত কোপ ফিরাতে গিয়ে হাতে কোপ লেগেছে বলে সোমার ধারণা। এ ঘটনায় স্ত্রী সোমা আলম বাদী হয়ে তাসলিমা ও তার স্বামী নাজমুল আলমসহ (৩৫) অজ্ঞাত ৩-৪ জনকে আসামি করে সদর মডেল থানায় ৪ ডিসেম্বর ৩০২/৩৪ ধারায় হত্যা মামলা (মামলা নং-১) দায়ের করলে তাসলিমা ও নাজমুলকে গ্রেফতার করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী মো. মাহফুজ হাসান সিদ্দিকী দু’জনের বিরুদ্ধে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে কেবল নাজমুলের বিরুদ্ধে আদালত ৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। আর তাসলিমা আক্তার এদিন ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন বলে সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানিয়েছেন। তবে জবানবন্দিতে কি বলেছেন তা ওসি বলতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন। নাজমুলকে গতকাল শনিবার রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। নিহত আমিনুল আলম ভৈরবের আগানগর এলাকার প্রয়াত আব্দুস সামাদের ছেলে। বাবা আব্দুস সামাদ কিশোরগঞ্জ শহরে সরকারি চাকরির সুবাদে এখানে জায়াগা কিনে বাসা করেছিলেন। ছেলেরাও এখন বাসা করছেন।
নিহতের স্ত্রী মামলার বাদী সোমা জানান, তাসলিমা ও তার স্বামী গ্রামীণ ব্যাংক কর্মকর্তা নাজমুল আলম ২০১৭ সালের মার্চ মাসে ভিকটিমের বাসা ভাড়া নিয়েছিলেন। তখন ভিকটিম ইতালিতে থাকেন। তাসমিলামের বাসা ভাড়া দেন সোমা। মাত্র দুই মাস ভাড়া ছিলেন। আর এই সময় তাসলিমা যে কোনভাবে ভিকটিমের ফোন নম্বর সংগ্রহ করে তাকে অনুরোধ জানান, তাসলিমার ছোটভাই সোহেল লিবিয়ায় শরণার্থী শিবিরে আটক আছেন। তাকে যেন উদ্ধার করে ইতালিতে নেয়ার ব্যবস্থা করেন। ভিকটিম আমিনুল ৭ লাখ টাকা খরচ করে ২০১৭ সালের শেষের দিকে সোহেলকে ইতালিতে নিয়ে তার ভেনিসের মনফালকুন এলাকার বাসায় থাকার ব্যবস্থা করেন। এত বছর সোহেলকে রেখে আমিনুল নিজের টাকায় লালন করেছেন। একজন ব্যক্তির মাসিক খরচ আসে প্রায় ৪২ হাজার টাকা। এমনকি আমিনুল মোটা অংকের টাকা খরচ করে ইতালির বৈধ কাগজপত্র তৈরি করে সোহেলের একটি কর্মসংস্থানেরও প্রক্রিয়া করতে থাকেন। সব মিলিয়ে সোহেল বাবদ আমিনুলের ২০ লক্ষাধিক টাকা পাওনা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ভিকটিমের স্ত্রী সোমা আক্তার, আমিনুলের দুই ভাই ব্যবসায়ী কামরুল ইসলাম ও ব্যাংক কর্মকর্তা নাজমুল ইসলাম।
এদিকে দুইমাস ভাড়া থাকার পর তাসলিমারা প্রতিবেশি কলেজ শিক্ষক খায়রুল কবীর ভূঁইয়ার টিনশেড বাসা ভাড়া নিয়ে আমিনুলের বাসা ছেড়ে দেন। এদিকে আমিনুল আলম গত ২৮ সেপ্টেম্বর ইতালি থেকে দেশে আসেন। তিনি পাওনা টাকার জন্য প্রায়ই তাসলিমাকে তাগিদ দিতেন। এরই মাঝে তাসলিমার স্বামী নাজমুল আলম চেষ্টা করে তার গ্রামীণ ব্যাংকের অফিসটি পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে ভিকটিমের বাসায় স্থানান্তর করান। আমিনুলের গতিবিধি খেয়াল রাখার সুদূরপ্রসারি উদ্দেশ্য থেকেই তার বাসায় গ্রামীণ ব্যাংকের অফিসটি স্থাপন করেছিলেন বলে সোমার ধারণা। ফলে এই পাওনা টাকার জের ধরেই তাকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে বলে সোমার ধারণা। সোমা জানান, হত্যাকাণ্ডের তিনদিন আগে তাসলিমার ভাই সোহেলের সঙ্গে ভিকটিম আমিনুলের মোবাইলে প্রচণ্ড বাকবিতণ্ডা হয়। এসময় ইতালির বাসার অন্যদেরকে বাসা থেকে সোহেলকে বের করে দিতে বলেন। কিন্তু হত্যাকাণ্ডের পর পরই সোহেল ভিকটিমের বাসা থেকে সটকে পড়েছেন। ফলে একটি চেইন পরিকল্পনার মাধ্যমে আমিনুলকে হত্যা করা হয়েছে বলে তার পরিবারের সবারই ধারণা।
হত্যাকাণ্ডের দিনের ঘটনাপ্রবাহের বিবরণ দিয়ে সোমা আরও জানান, ঘটনার রাতে সাড়ে ৯টার দিকে তার স্বামী বাইরে যান সেভ করার জন্য এবং হোটেল থেকে খাবার আনার জন্য। কিন্তু সময়মত না আসায় স্ত্রী সোমা ফোন করলে আমিনুল সেভ করছেন বলে জানান। এরপর রাত সাড়ে ১১টার দিকে আমিনুল হক নামে পরিচিত একজন ফোনে সোমাকে জানান, তার স্বামীকে মুমূর্ষু দীর্ঘক্ষণ পর জানতে পারেন, তার স্বামীকে মুমূর্ষু অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেছে। পরে ফোন রেকর্ড থেকে জানা যায়, রাত ৯টা ৪০ মিনিটে, ১০টা ১৫ মিনিটে এবং ১০টা ১৯ মিনিটে আমিনুলকে তিনবার ফোন করেছিলেন তাসলিমা। বাদী সোমার ধারণা, পাওনা টাকা ফেরত দেয়ার টোপ দিয়ে তাসলিমা বার বার আমিনুলকে ফোন দিচ্ছিলেন। একজন প্রত্যক্ষদর্শী সোমাকে জানিয়েছেন, বাসায় ঢুকতে গিয়েও আমিনুলকে তিনি বের হয়ে যেতে দেখেছেন। এতে সোমার ধারণা হয়েছে, বাসায় ঢোকার মুহুর্তে শেষ ফোনটি পেয়ে পাওনা টাকার আকর্ষণে আমিনুল খাবারের প্যাকেট নিয়েই তাসলিমাদের বাসায় গিয়ে আক্রমণের শিকার হন। রাত ১০টা ৩৮ মিনিটে আমিনুলের বন্ধু মুকুল তিনবার আমিনুলের মোবাইলে ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। ধারণা করা হচ্ছে, এসময়ই আমিনুল আক্রমণের শিকার হয়েছিলেন। আমিনুলের ফোনে মুকুলের তিনটি মিসড কল দেখা গেছে। ঘটনার সময় আমিনুলের সঙ্গে তার ইতালির ক্রেডিট কার্ড, নগদ ১০ হাজার টাকা এবং স্ত্রী সোমার মার্কেন্টাইল ব্যাংকের চেক বই ছিল। সেগুলিও আর পাওয়া যায়নি। ফোন কল এবং ভয়েস রেকর্ড উদ্ধার করে তদন্ত করলেই প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হবে বলে বাদী পক্ষ মনে করে।
আমিনুলরা ৫ ভাই ৫ বোন। ভাইদের মধ্যে আমিনুল ছিলেন দ্বিতীয়। তিনি ২৬ বছর ধরে ইতালিতে ছিলেন। সেখানে একটি ডকইয়ার্ডে সুপারভাইজার হিসেবে চাকরি করতেন। বেতন পেতেন ৮ লাখ টাকার মত। এখন তার সংসারে রয়েছেন স্ত্রী সোমা আলম, উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া ছেলে সাদী আলম, দশম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ে তানিয়া আলম ও দশম শ্রেণি পড়ুয়া ছেলে তামজিদ আলম। বড় ছেলেকেও ইতালি নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা পাকা হয়ে গিয়েছিল। আমিনুলের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর এখন সংসারের অনেক পরিকল্পনাই এলোমেলো হয়ে গেছে। তাসলিমার স্বামী নাজমুল আলম হোসেনপুরের সাহেবের চর এলাকার প্রয়াত রজব আলীর ছেলে। আর তাসলিমার বাবার বাড়ি মিঠামইনে বলে জানিয়েছে বাদী পক্ষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!