• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

পাকুন্দিয়ায় হিন্দু পরিবারকে পিটিয়ে বাড়িতেই অবরোধ

পাকুন্দিয়ায় হিন্দু পরিবারকে
পিটিয়ে বাড়িতেই অবরোধ

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ার একটি গ্রামে জায়গাজমি দখল নিতে একটি নিরীহ হিন্দু পরিবারকে পিটিয়ে তারের বেড়া দিয়ে বাড়িতেই অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাশের মন্দিরে যাবার রাস্তাটিও তাদের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা চলমান থাকলেও একটি প্রভাবশালী পরিবার রায়ের অপেক্ষা না করে বিশাল জায়গা কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে আগেই দখল করে নিয়েছে। অবশেষে বাড়িতে অন্তত একশ’ সশস্ত্র ব্যক্তি দিনের আলোয় হামলা চালিয়ে নারীদেরকে বেধড়ক পিটিয়ে দা এবং ছোরা ধরে হত্যার হুমকি দিয়েছে। স্বর্ণালঙ্কার আর নগদ টাকা লুটে নিয়েছে। বাড়ির গৃহবধূ এবং মেয়েদের শ্লীলতাহানিও করেছে। এ ঘটনায় ৩১ জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে পাকুন্দিয়া থানায় মামলা হয়েছে। প্রশাসন এবং পুলিশ বাড়ির পাশের তারের বেড়া সরিয়ে পরিবারটিকে উদ্ধার করলেও তারা এখনো চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। অনেকটা স্বেচ্ছায় অবরুদ্ধ আছে। মামলার এজাহারভুক্ত একজনকে পুলিশ গ্রেফতার করলে তিনি আদালত থেকে জামিনে বেরিয়ে গেছেন বলে জানা গেছে।
হামলার খবর পেয়ে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন এবং সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট বিজয় শঙ্কর রায়সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ পরিবারের সঙ্গে দেখা করে এ ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে ভিকটিম পরিবারকে সাহস যুগিয়েছেন এবং প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের সযোগিতা কামনা করে তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এদিকে এজাহারভুক্ত শহীদ পাঠান গ্রেফতার হয়ে জামিনে বেরিয়ে যাওয়ায় ভিকটিম পরিবারে নতুন আতঙ্ক তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার বাদী অশোক কুমার দে। এখন হামলাকারীরা লোক মারফত বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়ে পরিবারটিকে উচ্ছেদ করার হুমকি দিচ্ছে বলে অশোক দে জানিয়েছেন। শহীদ পাঠান জামিনে বেরিয়ে যাওয়ায় তাদের ভয় কেটে গেছে। বরং বাদী পক্ষ এখন উল্টো ভয় পাচ্ছেন বলে অশোক দে এ প্রতিনিধির কাছে জানিয়েছেন।গতকাল ৫ এপ্রিল সোমবার বিকালে পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের তালদশী গ্রামের ওই বাড়িতে গিয়ে বাড়ির মালিক অশোক কুমার দে’র সঙ্গে কথা বলে এবং মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, অশোক কুমারের পৈত্রিক ৪৯ শতাংশ জায়গা নিয়ে পার্শ্ববর্তী চরখামা গ্রামের কুতুব উদ্দিন পাঠানদের সঙ্গে আদালতে মামলা বিচারাধীন আছে। এমতাবস্থায় গত ৩ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে প্রায় একশ’ হামলাকারী দা, ছোরা, বল্লম, চাপাতি, কুড়াল, শাবল, রড ও লাঠিসোটা নিয়ে অশোক কুমারদের বাড়িতে অতর্কিতে হামলা চালিয়ে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করে। এসময় তারা বাড়ির সীমানা বেড়া ভেঙে ফেলে। অশোক কুমারের স্ত্রী প্রিয়তী রাণী দে হামলাকারীদের নিবৃত্ত করতে গেলে তার চুলের মুঠি ধরে মারধর করতে থাকে এবং গলা থেকে এক ভরি ওজনের একটি সোনার চেইন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ দৃশ্য দেখে অশোক কুমারের বোন সীমা রাণী দে এগিয়ে গেলে তাকেও মারধর করে এবং তার পরনের বস্ত্র ছিঁড়ে শ্লীলতাহানি করে। তাকে পাকুন্দিয়া হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে হয়। এক পর্যায়ে ঘরে ঢুকে অশোক কুমারের বৃদ্ধা মা ঝর্ণা রাণী দে’র ওপর হামলা চালিয়ে তাকেও মারধর করে। হামলাকারীরা ঘরের মূল্যবান জিনিসপত্র ভাংচুর করে এবং শোকেস থেকে ৩ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ৫৫ হাজার ৫শ’ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। যাবার সময় তারা এ বিষয়ে মামলা করলে সবাইকে তুলে নিয়ে খুন করে গুম করে ফেলার হুমাক দেয়। শুধু তাই নয়, পরিবারটি বাড়ির পাশেই যে শ্রী শ্রী মদনমোহন জিউর আখড়ায় পূজা অর্চনা করে, সেই মন্দিরে যাওয়ার রাস্তাটিও কাঁটাতার দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে কুতুব উদ্দিন পাঠানরা।
এ ঘটনায় পরদিন ৪ এপ্রিল অশোক কুমার দে বাদী হয়ে মামুন পাঠান (৪৫), তার বাবা কুতুব উদ্দিন পাঠান (৬৫) ও শহীদ পাঠানসহ (৩৮) ৩১ জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞান আরো ৫০-৬০ জনের নামে পাকুন্দিয়া থানায় মামলা (মামলা নং ৮) দায়ের করেছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আমিনুর রহমান জানিয়েছেন, এজাহারভুক্ত আসামী শহীদ পাঠানকে গ্রেফতার করা হলেও অন্যরা পলাতক। তবে তাদেরকেও গ্রেফতারে অভিযান চলছে।
স্থানীয় মঠখোলা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি রিপন মেম্বার জানান, এ ধরনের বর্বর হামলার ঘটনায় এলাকাবাসী মর্মাহত। হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় একটি নিরীহ হিন্দু পরিবার এভাবে হামলার শিকার হয়েছে। তিনি তদন্তসাপেক্ষে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন। এছাড়া ঘটনার খবর পেয়ে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন ও সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট বিজয় শঙ্কর রায়সহ হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সোমবার বিকালে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান। তারা এ ধরনের মধ্যযুগীয় হামলার ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানান। তারা উপজেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গেও এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করার ব্যাপারে কথা বলেন এবং অবরুদ্ধ করে রাখার জন্য নির্মাণ করা বেড়া সম্পূর্ণ অপসারনের দাবি জানান।
কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদকে এ ব্যাপারে প্রশাসনিক কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে প্রশ্ন করলে বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তার মতবিনিময়ের কথা রয়েছে। তাদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!