• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
১০১ কেজি গাঁজাসহ ১০ জন মাদক ব্যবসায়ী র‌্যাবের হাতে আটক ভৈরবের ৭ ইউপিতে মার্কা প্রচারের লড়াইয়ে প্রার্থীরা ভৈরবে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধিদের সু’ক্রাফট কমন সার্ভিস সেন্টার পরিদর্শন করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক ব্র্যাক কর্মসূচি পরিদর্শন ওএমএস’র দোকানে নারী-পুরুষের ভিড় কিশোরগঞ্জে করোনার তৃতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সুজনের আলোচনা সভা কিশোরগঞ্জে ডিজিটাল সেন্টারের ১১ বছর পূর্তির আলোচনা এবং পুরস্কার কিশোরগঞ্জে প্রায় ৫ লাখ শিশু খাবে ভিটামিন-এ ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা

মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও ভাটির শার্দুল হামিদ ভাইকে যেমন দেখেছি ….অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ

- ফাইল ফটো

মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও ভাটির শার্দুল
হামিদ ভাইকে যেমন দেখেছি

-: অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ :-

আমরা সবাই জানি ১৯৫৮ সালে স্ব-ঘোষিত ফিল্ড মার্শাল জেনারেল আইয়ূব খান সমগ্র পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারি করেন। যার ফলে সারা দেশে সকল প্রকার আন্দোলন-সংগ্রাম ও সভা-সমাবেশ বন্ধ হয়ে যায়। অর্থাৎ সকল প্রকার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এহেন অবস্থায় ১৯৬২ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে শিক্ষা কমিশনের রিপোর্ট বাতিলের আন্দোলন শুরু হয়। দ্রুত গতিতে এই আন্দোলন সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। ছাত্র-সমাজের ন্যায্য এবং যৌক্তিক দাবী ১১-দফা কর্মসূচী নিয়ে এই আন্দোলনের আসল উদ্দেশ্য সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে জনসাধারণকে সম্পৃক্ত ও সংঘটিত করা। হাজী আসমত কলেজ ছাত্র-সংসদের নেতৃত্বে ভৈরবেও এই আন্দোলন শুরু হয়। হাজী আসমত কলেজের তৎকালিন ভিপি শেখ মোহাম্মদ আলী ও জিএস জসিম উদ্দিন এই আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান করেন। কলেজের ছাত্রদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কেবি হাই স্কুলের ছাত্ররাও আমার অগ্রজ ফয়সুল আলমের নেতৃত্বে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তখন তিঁনি মাত্র ৮ম শ্রেণির ছাত্র। ৭ম শ্রেণির ছাত্র হিসেবে আমিও তখন সে আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করি সক্রিয়ভাবে।
অপর দিকে আমাদের মহকুমা শহর কিশোরগঞ্জে এই আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান করেন তৎকালীন জেলা ছাত্রলীগের সংগ্রামী নেতা, আজকের রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ। কলেজ জীবনে তিঁনি গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র-সংসদে জিএস (১৯৫৩), ভিপি (১৯৬৫) নির্বাচিত হন। শিক্ষা কমিশনের রিপোর্ট বাতিলের আন্দোলন সফল হওয়ার পর বাঙালির মুক্তি-সনদ ৬ দফা আন্দোলন শুরু হয়। এর সঙ্গে যুক্ত হয় সংগ্রামী ছাত্র-সমাজের ১১ দফা দাবী ও স্বায়ত্ত্বশাসনের এই আন্দোলন বাংলার গণমানুষের মনে বিদ্রোহের আগুন জ্বালিয়ে দেয়। কিশোরগঞ্জে এই আন্দোলনের অগ্রভাগে ছিলেন সংগ্রামী যুবনেতা আব্দুল হামিদ। অপর দিকে ভৈরবে ৬ দফা আন্দোলনে এককভাবে নেতৃত্ব প্রদান করেন তূখোর ছাত্রনেতা মো. ফয়সুল আলম।
১৯৬৯ সালে কৃষক-শ্রমিক, ছাত্র-জনতার দুর্বার গণ-আন্দোলনে সামরিক স্বৈরাচার ফিল্ড মার্শাল জেনারেল আইয়ূব খানের পতন হয় এবং আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার করা হয়। সঙ্গে সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বীরের বেশে মুক্তি লাভ করেন। এইসব আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জনাব আব্দুল হামিদ এবং ফয়সুল আলম এই দুই নেতার মধ্যে ঘনিষ্ট সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। তার ফলশ্রুতিতে আমিও হামিদ ভাইয়ের কাছাকাছি আসার সুযোগ পাই।
তাঁর সম্পর্কে জানতে হলে আসুন, আমরা তাঁর শৈশবের দিকে একটু ফিরে তাকাই। আমার প্রিয় হামিদ ভাই তাঁর নিজ গ্রাম মিঠামইন থানার কামালপুরে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে ভৈরবে চলে আসেন। কেবি হাই স্কুলে তিঁনি ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেণি অর্থাৎ ৩ বছর লেখাপড়া করেন। এ কারণে ভৈরবের গণমানুষের সঙ্গে তাঁর নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠে। তিঁনি ছিলেন মিঠামইন এলাকার স্বচ্ছল পরিবারের সন্তান। সেই সুবাদে তিঁনি উদারহস্তে টাকা পয়সা খরচ করতেন। আমাদের সমাজে অনেকেই ছেলে বেলায় মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে বাবা-মার কাছ থেকে অর্থ আদায় করে নিতেন। হামিদ ভাইও তাঁর পিতার কাছ থেকে নানান কৌশলে অর্থ আদায় করেছেন। প্রতি মাসেই তিঁনি তাঁর পিতার কাছে বাজেট পেশ করতেন চিঠির মাধ্যমে। এ বাজেটে স্কুলের বেতন, হোস্টেলের সীট ভাড়া, প্রাইভেট পড়ার খরচ, পরীক্ষার ফিস্, লন্ড্রী খরচ, তেল-সাবান, দাঁতের মাজন, কাগজ-কলম-কালি ইত্যাদি লিখে তার পাশাপাশি টাকার অংক যতটা বাড়ানো যায় ততটা বাড়িয়ে লিখে দিতেন। এতেও যদি তার চাহিদা পূরণ না হতো তখন আরও ২/১টি ফর্দ বাড়িয়ে টাকার পরিমাণ লিখে দিতেন। যেমন, বাংলায় চোষ কাগজ লিখে পুনরায় ইংরেজি শব্দে ব্লটিং পেপার লিখে দিতেন। চোষ কাগজের দাম যদি ধরতেন আট আনা তার পাশা পাশি ব্লটিং পেপারের দাম আট টাকা লিখে দিতেন। একেই বলে শুভংকরের ফাঁকি! অশিক্ষিত ও অর্ধ-শিক্ষিত পিতা-মাতা বা অভিভাবকরা ব্লটিং পেপার যে চোষ কাগজ এটা বুঝতে পারতেন না। এমনি ভাবে সুকৌশলে অভিভাবকের নিকট থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে নিতেন আমাদের প্রিয় হামিদ ভাই। উল্লিখিত ঘটনা আমার জানার কথা নয়। কারণ, বয়সে আমি তার চেয়ে অনেক ছোট। আমি এ সব জানতে পেরেছি তাঁরই সহপাঠি ছাত্র-বন্ধুদের নিকট হতে। আমি এও জেনেছি যে, নাকি অত্যন্ত সাহসী ও ডানপিটে ছিলেন। ভৈরবের অনেক শক্তিশালী মস্তান ছেলেদেরও থোরাই কেয়ার করতেন।
নদী-বন্দর ভৈরব, রেলওয়ে-জংশন ভৈরব। এই ভৈরবই ছিল বৃহত্তর ময়মনসিংহ ও বৃহত্তর সিলেট জেলার ভাটি অঞ্চলের সিংহদ্বার। বৃটিশ আমলে এই ভৈরব ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠে তখন হরেক রকম মালামাল নিয়ে কলকাতা থেকে ভৈরবে জাহাজ আসতো নিয়মিত। রেলপথেও প্রচুর মালামাল আসতো অখণ্ড ভারতের বিভিন্ন অঙ্গ রাজ্য থেকে। ভৈরব থেকে জাহাজ, নৌকা ও রেলপথে পণ্য সামগ্রী রফতানী করা হতো আসাম, মেঘালয় ও ত্রিপুরা রাজ্যে। গৌহাঁটি, করিমগঞ্জ, শিলচর ও আগরতলার ব্যবসায়ীরা নিয়মিত নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর সন্ধানে ছুটে আসতো নদী-বন্দর ভৈরবে।
অর্থাৎ সুনামগঞ্জ, আজমেরিগঞ্জ, সিলেট, মৌলভী বাজার ও হবিগঞ্জে ভৈরব বাজার থেকে মালামাল না গেলে বাজার জমতো না। কিশোরগঞ্জের প্রায় প্রতিটি থানা বিশেষ করে ইটনা, অষ্টগ্রাম, নিকলী, তাড়াইল, করিমগঞ্জ, মিঠামইন, বাজিতপুর, বিশেষ করে হাওড় অঞ্চলের ক্রেতা সাধারণ ভৈরবের উপর নির্ভরশীল ছিল সুদীর্ঘকাল। এসব এলাকার উৎপাদিত কৃষি পণ্যও বাজারজাত হতো ভৈরবে এসে। নবীনগর, সরাইল ও আশুগঞ্জের খরিদদাররা প্রায় প্রতিদিন আসা-যাওয়া করতেন ভৈরবে। রায়পুরা, বেলাব, নারায়ণপুর ও আলগি বাজারে ভৈরবের মালামাল না গেলে পসরা জমতো না। নদী বন্দর ভৈরবে ছিল হিন্দু-মুসলিম ব্যবসায়ীদের রমরমা ব্যবসা বাণিজ্য। আড়তদারী বা কমিশন এজেন্ট ছিল ব্যবসার ধরণ। আড়তদারগণ দেশ দেশান্তর থেকে আগত মালামাল বিক্রি করে দালালী বাবদ প্রচুর পয়সা উপার্জন করতেন। ময়মনসিংহ ও সিলেটের হাওড় অঞ্চলে অনেক মধ্য স্বত্ত্বভোগী সৃষ্টি হয়। তাদের বলা হতো পাইকার। হামিদ ভাইয়ের পিতা হাজী তায়েব উদ্দিন ছিলেন একজন খ্যাতিমান পাইকার কাম ব্যবসায়ী। আবার ছিলেন একজন
স্বনামধন্য জোতদারও বটে। ভাটি এলাকা থেকে কৃষি পণ্য ক্রয় করে ভৈরবে নিয়ে এসে আড়তদারের মাধ্যমে বিক্রয় করতেন। এ ব্যবসাকে বলা হতো ভূষা মালের ব্যবসা। ধান-চাল, তিল-তিষি, মাষ-কলাই ও সরিষা-বাদাম ইত্যাদিকে ভূষা মাল বলা হতো। এ কারণে প্রয়ত ভৈরবে আসা যাওয়া করতেন।
তুমুল গণ-আন্দোলনের মাধ্যমে ১৯৬৯ সালে শেখ মুজিবুর রহমান আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা থেকে খালাস পেয়ে মুক্তি লাভ করেন। সঙ্গে সঙ্গে বাঙালি জাতি তাঁকে বঙ্গবন্ধু খেতাবে ভূষিত করেন। ফিল্ড মার্শাল জেনারেল আইয়ূব খানের পতনের পর জেনারেল ইয়াহিয়া খান ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন এবং ১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের নির্বাচন ঘোষণা করেন।
পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান কর্তৃক নির্বাচন ঘোষণায় সারা দেশে রাজনীতির সু-বাতাস বইতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনা নিয়ে নির্বাচনী লড়াই করার জন্যে প্রস্তুতি শুরু করেন। তখন কিশোরগঞ্জের সিংহ যুবক হামিদ ভাইও নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার চিন্তা ভাবনা শুরু করেন। সর্ব প্রথম তাঁর পিতার অনুমতি গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন। এহেন জরুরী কাজটি সমাধান করার জন্য হামিদ ভাই উপযুক্ত স্থান হিসাবে বেছে নিলেন ভৈরব বাজারকে। সঙ্গে সঙ্গে চলে এলেন ভৈরবে। এখানে এসে তাঁর একান্ত সহচর ও আমার অগ্রজ ভ্রাতা ও প্রখ্যাত ছাত্রনেতা ফয়সুল আলমকে সঙ্গে নিয়ে অভিযানে নামেন। অনেক খোঁজা খুঁজি করে তাঁর পিতার সন্ধান পান। ভৈরব বাজারের একজন বিশিষ্ট আড়তদার এবং অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমানের চাচাতো ভাই শামসুদ্দিন মোল্লার বাড়িতে অবস্থান করছেন। ফয়সুল ভাইকে সঙ্গে নিয়ে হামিদ ভাই তাঁর পিতার সম্মুখীন হন। লজ্জা ও শংকায় কাঁচুমাচু হয়ে হামিদ ভাই তাঁর মনোবাঞ্ছা পিতার কাছে পেশ করেন। তখন তাঁর দূরদর্শি ও অভিজ্ঞ পিতা তাকে নানাভাবে জেরা করে শেষ পর্যন্ত অনুমতি প্রদান করেন। এই সঙ্গে অর্থনৈতিক সহযোগিতার আশ্বাসও প্রদান করেন। এই পর্বে আড়তদার শামসুদ্দিন মোল্লা ও ফয়সুল ভাইয়ের পার্লামেন্টারী সহযোগিতা সিদ্ধান্ত গ্রহণে অনেকটা সহজ হয়। সেদিন থেকেই হামিদ ভাইয়ের রাজনীতির প্রেক্ষাপট উন্মুচিত হয়। অপর দিকে ভৈরবের মাটিতে একান্ত নিভৃতে আমার দৃষ্টিতে যে বীজ সেদিন রোপিত হয় সেই বীজ থেকে প্রথমে চারা ও বৃক্ষ, পরবর্তীতে ফুলে ফলে সুশোভিত হয়ে সমগ্র বাংলাদেশে তাঁর দীপ্তি ও খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। আর নদী-বন্দর ভৈরব হচ্ছে তারই অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী।
হামিদ ভাই তাঁর অংকুরোদগমের সময় থেকেই ভৈরবের জলবায়ুর স্পর্শে শানিত হয়েছেন। তাই শৈশব থেকেই এখানকার মাটি ও মানুষের সঙ্গে তাঁর শখ্যতা গড়ে উঠেছিল। আজও অব্যাহত আছে তাঁর একান্ত ও গভীর নিবিড় সম্পর্ক। রাজনৈতিক কারণে তাঁর সঙ্গে আমার ঘনিষ্টতা জন্মে কালক্রমে। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে তাঁর কাছে আমার যাতায়াত শুরু হয়। বিশেষ করে ৭৫ পরবর্তী সময়ে দেশ ও জাতির চরম দুর্দিনে আমাদের ঘনিষ্টতা আরও বৃদ্ধি পায়। ৭৫ এর পট পরিবর্তনের পর হামিদ ভাই গ্রেফতার হন কিশোরগঞ্জ থেকে। আমিও গ্রেফতার হই ভৈরব থেকে। কিন্তু কিশোরগঞ্জ জেলে তাঁর সঙ্গে আমার দেখা হয় নাই। কারণ, আমি জেলে যাওয়ার আগেই তাঁকে ময়মনসিংহ জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তারপর আমি জেলে গিয়ে তাঁর অনেক কাহিনী শুনতে পাই। কিছু দিন পর শুনতে পাই হামিদ ভাইকে নাকি ময়মনসিংহ জেল থেকে রাজশাহী সেন্ট্রাল জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আরও কিছুদিন পর খবর পেলাম তাঁকে নাকি রাজশাহী থেকে কুষ্টিয়া জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ১৯৮৭ সালে ঢাকা সেন্ট্রাল জেল থেকে আমার কারামুক্তির পর হামিদ ভাইকে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে নিয়ে আসা হয়। কারামুক্তির পর হামিদ ভাই সাংগঠনিক কাজে প্রায়ই ভৈরবে আসতেন। এক পর্যায়ে ১৯৭৮ সালে আমি জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হই। এর পর আমি তাঁকে আরও কাছে থেকে দেখার সুযোগ পেয়ে যাই।
আমার দৃষ্টিতে হামিদ ভাই ছিলেন একজন দক্ষ সংগঠক। অপর দিকে ছিলেন আড্ডাবাজ মানুষও। প্রতি নিয়ত রাত জেগে আড্ডা দিতেন দলীয় নেতা কর্মীদের সঙ্গে। প্রাণ খুলে গল্প করতে ভালবাসতেন।
ধূমপান তাঁর জীবনের নিত্য সঙ্গী। আমরা যতই আপত্তি করি না কেন এটা ছাড়তে রাজি নন। এতে তাঁর যতই ক্ষতি হোক না কেন।
জেনারেল জিয়া ও জেনারেল এরশাদ আমলে ভৈরবে আমাদের বিরুদ্ধে অনেক গুলো মামলা হয়। এ কারণে অনেক বার আমাদের জেলে যেতে হয়। সে সময়ে হামিদ ভাই ছিলেন কিশোরগঞ্জ আদালতে আমাদের পক্ষে আইনী অভিভাবক। বিনা পয়সায় আমাদের মামলা গুলো পরিচালনা করতেন। লেনদেন বিষয়ে একজন উকিলের স্বভাব সুলভ আচরণ তাঁর মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায় নাই।
সীমানা সংক্রান্ত কারণে হাইকোর্টে মামলা থাকায় ইটনা উপজেলা নির্বাচন যথাসময়ে হ’তে পারেনি। পরবর্তী সময়ে মামলা নিষ্পত্তি হয়ে গেলে ১৯৯০ সালের ১৩ অক্টোবর ইটনায় নির্বাচনের তারিখ ধার্য করা হয়। সে মোতাবেক নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিন ১১ অক্টোবর ইটনায় দুইটি নির্বাচনী জনসভার আয়োজন করা হয়। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন ঐতিহাসিক ১১ দফা আন্দোলনের অগ্রনায়ক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা জনাব তোফায়েল আহমেদ। অতঃপর একই মঞ্চে জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে জেনারেল এরশাদ বক্তৃতা করেন। একই স্থানে ও একই মঞ্চে পরস্পর বিরোধী ২ দলের ২ নেতা একইদিন একই মঞ্চে যার যার প্রার্থীর পক্ষে বক্তব্য প্রদান করেন। এটা হলো ব্যতিক্রমী মজার বিষয় যা এদেশে সচরাচর ঘটে না। আজ কিন্তু তাই ঘটেছে।
এ সভায় যোগ দিতে আমি ১০ অক্টোবর ভোরের লঞ্চে ভৈরব থেকে ছাত্রলীগ নেতা আল আমিন ও পরিমলকে সঙ্গে নিয়ে ইটনা যাত্রা করি। দীর্ঘ ১২ ঘণ্টা লঞ্চ জার্নি করে আমরা বিকাল ৪টায় ইটনায় এসে পৌঁছি। ১৮৭০ সালে ক্যামব্রীজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যিনি বাংলার প্রথম র‌্যাংলার এবং ১৮৭৪ সালে ব্যারিষ্টারী ডিগ্রী নিয়ে যিনি দেশের মুখ উজ্জল করেছিলেন এবং যার নামে ময়মনসিংহ শহরে ১৮৮৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল আনন্দ মোহন কলেজ। সেই আনন্দ মোহন বসুর জন্মস্থান ইটনা। যিনি বাঙালির ইতিহাস গ্রন্থের প্রণেতা, যিনি পদ্মভূষণ খেতাব প্রাপ্ত, ভারতীয় রাজ্য সভার সদস্য ও যিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাগেশ্বরী অধ্যাপক ছিলেন, যিনি ভারতের সাহিত্য একাডেমী পুরষ্কার প্রাপ্ত নীহার রঞ্জন রায়ের জন্মস্থান, সর্বভারতীয় কমিউনিষ্ট পার্টির নেতা এবং রাজ্যসভার খ্যাতিমান সদস্য ভূপেশ গুপ্তের পুণ্য জন্মস্থান, রবীন্দ্র সংগীতের কালজয়ী গায়ক দেবব্রত বিশ্বাসের জন্মস্থান ও কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা বাবু গুরুদয়াল সরকারের জন্মস্থান রত্মগর্ভা ইটনায় এসে নামলাম। ইটনা উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহাবুদ্দিন ঠাকুরের বাড়িতে গিয়ে উঠি। এক ফাঁকে বিকালে গিয়ে খ্যাতিমান ভূপেশ গুপ্তের জমিদার বাড়িও পরিদর্শন করে আসি। পরদিন ১১ অক্টোবর সকাল ১০টায় রাষ্ট্রপতি এরশাদ হেলিকপ্টার নিয়ে ইটনায় পৌঁছেন।
উপজেলা প্রাঙ্গনে আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দিয়ে তড়িঘড়ি চলে গেলেন। সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের সমাবেশ শুরু হলো বিকাল ৩টায় ঐতিহ্যবাহী ইটনা দেওয়ান বাড়ির প্রাঙ্গণে। এতে তোফায়েল আহমদের পর ভাটির শার্দুল এমপি হামিদ ভাইও বক্তৃতা করেন। আজকের সভায় বিশাল জনসমাবেশ হলো। ভাটি এলাকায় একই দিনে দু’টি জনসভা হলেও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে নাই। স্মরণ কালের ইতিহাসে আজকের এই সভাদু’টি ব্যতিক্রমী সভায় পরিণত হয়। পরদিন ১২ অক্টোবর হামিদ ভাইয়ের নেতৃত্বে ইটনা উপজেলার পূর্বাঞ্চলে গণসংযোগে বের হই ইঞ্জিন চালিত নৌকা যোগে। প্রথমেই যাই প্রখ্যাত আনন্দ মোহন বসুর নিজ ইউনিয়ন ও গ্রাম জয়সিদ্ধি। এ জয়সিদ্ধি গ্রামেই দেবব্রত বিশ্বাসও জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। এই ইউনিয়নে গণসংযোগ শেষ করে চলে যাই ধনপুর ইউনিয়নে। এই ইউনিয়নের কাথৈর গ্রামে গুরুদয়াল সরকারের জন্ম। আবার নীহার রঞ্জন রায়ের জন্মও এই ইউনিয়নের সোহেলা গ্রামে। এই ইউনিয়নের গণসংযোগ শেষ করে আমরা চলে যাই মৃগা ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নে গণ-সংযোগ করতে করতে রাত পোহায়ে যায়। রাত দিন একটানা ২৪ ঘণ্টা বিরতিহীন গণসংযোগ কাজে হামিদ ভাইকে অসাধারণ পরিশ্রম করতে দেখেছি। এ কাজে তাঁর দক্ষতা, যোগ্যতা এবং কৌশল দেখে আমি সত্যি অবিভূত ও বিস্মিত হয়েছি। ভাটি এলাকাতে এহেন ঘটনাবহুল সফরের স্মৃতি আমার মনে উজ্জল হয়ে থাকবে চিরকাল।

লেখক :-
অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ
বীরমুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক মেয়র
ভৈরব পৌরসভা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!