• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৩৬ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
মহন বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে কুলিয়ারচরে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত মুন্সিগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে নিহত বাবা ও দ্ইু শিশুর কিশোরগঞ্জে দাফন সম্পন্ন ভৈরবে শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির ৮৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন বালক ফাইনালে উঠেছে রাজশাহী-সিলেট বিভাগ বালিকায় ময়মনসিংহ-রংপুর জে. শফিউল্লাহর চিঠি পেয়ে আহতদের চিকিৎসা করেছি আবার সশস্ত্র যুদ্ধও করেছি ….. ডা. আমির হোসেন মুন্সিগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে মারা গেছেন কিশোরগঞ্জের কাউসারসহ তার দুই শিশু বঙ্গমাতা সেমিফাইনালে খুলনা ময়মনসিংহ রংপুর এবং রাজশাহী বিভাগ কটিয়াদীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যানের ওপর দুর্বৃত্তের হামলা ভৈরবে প্রাইভেটকারে টিভি চ্যানেলের স্টিকার ব্যবহার করে গাঁজা পাচারকালে আটক ২ কিশোরগঞ্জে প্রতিবন্ধী দিবসের শোভাযাত্রা আলোচনা সভা

উয়ারী-বটেশ্বর : লুৎফর রহমান ও হাফিজ পাঠান

উয়ারী-বটেশ্বর

লুৎফর রহমান ও হাফিজ পাঠান

উয়ারী-বটেশ্বর বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত ও সম্ভাবনাময় প্রত্নস্থান। যেখানে হাজার বছরের বাঙালি বলে ঐতিহাসিকদের থামতে হতো, সেখানে আড়াই হাজার বছরের ইতিহাসের সাক্ষ্যবহন করছে উয়ারী-বটেশ্বর। প্রাগৈতিহাসিক যুগের এ প্রত্নস্থানের সময়কাল খ্রিস্টপূর্ব পাঁচ শতক। নরসিংদী জেলার বেলাব থানা সদর থেকে চার কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে উয়ারী-বটেশ্বর গ্রামে প্রত্নস্থানটির অবস্থান। উয়ারী-বটেশ্বর একনামে পরিচিত হলেও মূলত এ দুটি পৃথক গ্রাম। ১৯৩০-এর দশকে মো. হানিফ পাঠান (১৯০১-১৯৮৯) এ প্রত্নতাত্তিক সুধীসমাজের গোচরে আনেন। ১৯৩০ সাল থেকে তিনি প্রত্নবস্তু সংগ্রহের কাজ শুরু করেন এবং নিজ উদ্যোগে একটি সংগ্রহশালা নির্মাণ করেছিলেন। বর্তমানে তার নির্মিত সংগ্রহশালাটি একাধারে ব্যবহৃত হয় পাঠানগ্রন্থাগার, ডাকঘর এবং অতিথি বসার ঘর হিসেবে। হানিফ পাঠানের প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৫টি। স্বনামধন্য সাহিত্যিক, পণ্ডিত, সমাজ সংস্কারক, স্কুলশিক্ষক, ইতিহাস ও ঐতিহ্য সচেতন এ পুরোধার মৃত্যুর পর তার সুযোগ্য পুত্রদ্বয় মো. হাবিবুল্লাহ পাঠান ও মো. খলিল উল্লাহ পাঠান প্রত্নপীঠটির গুরুত্ব অনুধাবন করেন এবং পিতার রেখে- যাওয়া প্রত্নতাত্তিক বস্তুর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। স্কুলশিক্ষক হাবিবুল্লাহ পাঠান শিক্ষকতা থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি ইতিহাস, প্রত্নতত্ত্ব গবেষণায় আত্মনিয়োগ করেন। গবেষণার জন্য ২০১০ সালে লাভ করেন ’বাংলা একাডেমী ফেলোশিফ২০১০’। তার বিভিন্ন বিষয়ে প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৬। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘প্রত্নতাত্তিক নিদর্শন : উয়ারী-বটেশ্বর’ এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুফী মোস্তাফিজুর রহমানসহ যুগ্মভাবে সম্পাদনা করেন উয়ারী-বটেশ্বর : শেকড়ের সন্ধানে বইটি। ১৯৩৩ সালের ডিসেম্বরে উয়ারী গ্রামে মাটি খননকালে শ্রমিকরা একটি মৃৎপাত্রে সঞ্চিত বেশকিছু রৌপ্য মুদ্রা পান ও তারা মুদ্রার বেশির ভাগই স্থানীয় বেনের কাছে বিক্রি করে দেয়। মোহাম্মদ হানিফ পাঠান সেখান থেকে ২০-৩০টি মুদ্রা সংগ্রহ করতে সমর্থ হন। তখন থেকেই উয়ারী-বটেশ্বরের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংগ্রহের সূচনা। তিনি দীর্ঘকাল মুদ্রাগুলো সযত্নে রক্ষা করেন। তার মনে হয়েছিল এগুলো অমূল্য ঐতিহাসিক উপাদান। ১৯৫৫ সালে হাবিবুল্লাহ পাঠান যখন বাজনাব সবুজ পল্লী হাই স্কুলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র তখন তার পিতা হানিফ পাঠান ওই স্কুলের শিক্ষক। পিতা-পুত্র একসঙ্গে স্কুলে যেতেন-ফিরতেন। উয়ারী গ্রাম পেরিয়ে যাওয়ার সময় প্রায়ই হাবিবুল্লাহ পাঠান লক্ষ্য করতেন নিবিড় দৃষ্টিতে নিচের দিকে তাকিয়ে কী যেন খুঁজছেন তার পিতা। এভাবেই হানিফ পাঠান স্বল্প মূল্যবান পাথরের পুঁতি সংগ্রহ করতেন। তিনি বলেন, বর্ষার ভারী বর্ষণে ও পারের মাটি সরে গেল পুঁতিগুলো সহজেই চোখে পড়ত আব্বা গভীর দৃষ্টিতে সেগুলোতে নাড়িয়ে দেখতেন। পিতার এরূপ অনুসন্ধান তৎপরতায় পুত্রের ঔৎসুক্য উত্তরোত্তর বাড়তে থাকে। ১৯৫৫ সালের ৩০ জানুয়ারি দৈনিক আজাদ পত্রিকার রবিবারসীয় সংখ্যায় পূর্ব পাকিস্তানে প্রাগৈতিহাসিক সভ্যতা শিরোনামে ছাপা হয়েছিল। ১৯৭৪-৭৫ সালে হাবিবুল্লাহ পাঠান ঢাকা জাদুঘরের অবৈতনিক কিউরেটর থাকাকালে গবেষণার জন্য লৌহ, ’হুস্ত, কুঠার, বল্লম, ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রা ও প্রচুর পুঁতি জাদুঘরে অর্পণ করেন। ১৯৭৫ সালে রাইজ্ঞারটেক গ্রামে পাওয়া ৩০টি হস্ত কুঠার জাদুঘরে সৌজন্য হিসেবে জমা দেন। ১৯৭০ সালে হাবিবুল্লাহ পাঠান দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকায় ব্রহ্মপুত্র সভ্যতার কেন্দ্রভূমিতে উয়ারী-বটেশ্বর এবং পূর্বাঞ্চল পত্রিকায় ১৯৭৫ সালে ‘বাংলার আদি ইতিহাসের বিস্তৃত অধ্যায় উয়ারী-বটেশ্বর’ শিরোনামে প্রবন্ধ প্রকাশ করেন। বাংলা ১৩৪০ সালে (১৯৩৩) কলকাতা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক মোহাম্মদী পত্রিকায় ‘প্রাচীন মুদ্রা প্রাপ্তি’ শীর্ষক হানিফ পাঠানের প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়। তার প্রবন্ধের ওপর ভিত্তি করে ঢাকা জাদুঘরের তৎকালীন কিউরেটর নলিনীকান্ত ভট্টাশালী জাদুঘরের ১৯৩৫-৩৬ বার্ষিক প্রতিবেদনে বিষয়টি উল্লেখ করেন। উয়ারী-বটেশ্বরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সুফী মোস্তাফিজুর রহমানের আগমন ১৯৯৬ সালে। সুফি স্যারের আগমনে উয়ারী-বটেশ্বরের নতুন ধারা সূচিত হয়। হাবিবুল্লাহ পাঠানকে নিয়ে সুফি মোস্তাফিজুর রহমান উয়ারী-বটেশ্বরের গবেষণায় নিত্যনতুন তথ্য এবং এর ঐতিহাসিক তাৎপর্য বের করে আনেন।
উয়ারী-বটেশ্বর ঐতিহাসিকভাবে আমাদের কাছে কেন এত মৃল্যবান? সে বিষয়ে আলোচনার পূর্বে কিছু বিষয় জানা দরকার। বাংলাদেশের ইতিহাসের সঙ্গে উপমহাদেশের ইতিহাস অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত। উয়ারী-বটেশ্বর সম্পর্কে ভালোভাবে জানার জন্য অবশ্যই উপমহাদেশের ইতিহাসের দিকে তাকাতে হবে।
আমরা অবশ্যই এ বিষয়ে অবগত আছি, হরপ্পা সভ্যতা বা নগর সভ্যতার শুরু হয়েছিল ২৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে এবং অবসান হয় ১৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে। ১৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে এসে হরপ্পা সভ্যতার অবসান হয় এবং গ্রামীণ সভ্যতায় ফিরে যায়। ১৭০০-৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত উপমহাদেশে কোথাও আর নগরসভ্যতা গড়ে উঠেনি। এ সময়কালকে তাম্রপাস্থর যুগ বলে অভিহিত করা হয়। ৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে এসে গঙ্গাভ্যালিকে কেন্দ্র করে আবার নগরায়ন শুরু হয়। এ গঙ্গাভ্যালির অবস্থান ছিল উত্তরপ্রদেশ থেকে শুরু করে বিহার, পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশ পর্যন্ত। এই দ্বিতীয় নগরায়নের সময়ে উপমহাদেশে ৪১টি স্থানে নগরায়নের সভ্যতার প্রমাণ পাওয়া যায়। এর মধ্যে দুটির অবস্থান বাংলাদেশে যার একটি মহাস্থানগড় আর অন্যটি নরসিংদীর উয়ারী-বটেশ্বর।
উয়ারী-বটেশ্বর ঐতিহাসিক কোন রাজ্যের অংশ, লৌহিত্য না গঙ্গারিদাই? ইতিহাসবিদ দিলীপ কুমার চক্রবর্তী ব্রহ্মপুত্র নদের পুরনো নাম লৌহিত্য হিসেবে ধরে এটাকে লৌহিত্যের অংশ বলেছেন। এ লৌহিত্য নগরীর উল্লেখ আছে প্রাচীন মহাভারতে। আর গঙ্গারিদাই এর উল্লেখ আমাদের অঞ্চলের লেখকদের লেখায় উল্লেখ নেই বললে চলে। তবে গঙ্গারিদাই নগরের কথা উল্লেখ আছে প্রাচীন গ্রিস ও ম্যাসিডোনিয়ার লেখকদের মধ্যে। খ্রিস্টপূর্ব ৩২৭ অব্দে ম্যাসিডোনিয়ার বীর আলেকজান্ডার পারস্য জয় করে ভারতবর্ষের দিকে অগ্রসর হন। তিনি ক্রমেই তক্ষশীলার রাজা অম্বী ও পরবর্তীতে পুরুর রাজ্য আক্রমণ করে তাদের পরাজিত করেন। রাজা পুরু পরাজিত হলেও তার সাহস বীর্যে সম্রাট আলেকজান্ডার তার সঙ্গে চুক্তি করে তার রাজ্য ফিরিয়ে দেন। রাজা পুরুর সঙ্গে চুক্তি করে আলেকজান্ডার পূর্বে পাঞ্জাবের বিপাশা নদী পর্যন্ত অগ্রসর। তারা খোঁজ পায় বিপাশার পূর্বে প্রাসিয়াই এবং তার পূর্বে আছে সমৃদ্ধ, গঙ্গারিদাই। সুতরাং আলেকজান্ডার স্থির করলেন আরও এগোবেন। কিন্তু ক্লান্ত যোদ্ধাদের অনিচ্ছায় তা আর হয়ে উঠেনি। সম্রাট আলেকজান্ডারের সঙ্গে ওই সময়ের অনেক পণ্ডিত ইতিহাসবিদ এসেছিলেন। তাদের লেখায় গঙ্গারিদাই নগরের উল্লেখ পাওয়া যায়। সেসব লেখকের লেখায় গঙ্গারিদাই সম্পর্কে যেসব তথ্য দেয়া আছে তাতে নিশ্চিত হওয়া যায়, গঙ্গারিদাই খুবই সমৃদ্ধ নগর ছিল।
জানা যায়, বিখ্যাত সমুদ্রবন্দর গাঙ্গে ছিল গঙ্গারিদাইয়ের রাজধানী। গাঙ্গে ছিল বাণিজ্যকেন্দ্র। সেই বন্দর থেকে সুদূর পশ্চিমে মসলিন রপ্তানি হতো। রাজধানীর কাছে ছিল সোনার খনি। পশ্চিমবঙ্গের চন্দ্রকেতুগড়ের এবং তাম্রলিপিকে অনেকে প্রাচীন গাঙ্গে হিসেবে শনাক্ত করার চেষ্টা করেছেন তার তথ্য অপ্রতুলতার কারণে গাঙ্গে’ নগরটির সুনির্দিষ্ট অবস্থান এখনও শনাক্ত করা যায়নি।
উয়ারী-বটেশ্বরের নয়টি পর্যায়ে খননকালে বিভিন্ন ঐতিহাসিক প্রত্নসামগ্রী পাওয়া গেছে। এসব প্রত্নতাত্ত্বিক নির্দশন মাধ্যমে উয়ারী-বটেশ্বরের সেই সময়ের ব্যবসা-বাণিজ্য, মানুষের আচার-আচরণ, অনুষ্ঠান সামাজিক অবস্থা প্রভৃতি সম্পর্কে জানা যায়। প্রাপ্ত নিদর্শনগুলোর মধ্যে রয়েছে পিট ডুয়েলিং বা গর্ত বসতি, বিভিন্ন ধরনের মৃৎপাত্র, লৌহ, হস্ত কুঠার, ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রণ, স্বল্প-মূল্যবান পাথরের পুঁতি, চিত্রিত পুঁতি, লকেট ও মন্ত্রপুত কবচ, বৌদ্ধপদ্ম-মন্দির, জানহাঁটেরটেক বিহার, কাচের পুঁতি, পোড়ামাটির পুঁতি, বিভিন্ন ধরনের বাটখারা, ধাতব প্রত্নবস্তু ইত্যাদি।
খ্রিস্টীয় ২য় শতকে টলেমি পৃথিবীর বিভিন্ন বাণিজ্য কেন্দ্রের বর্ণনা দিয়ে তার গ্রন্থ Geograpia- রচনা করেন। এ গ্রন্থে তিনি সৌনাগড়া নামের একটি বাণিজ্যকেন্দ্রের উল্লেখ করেন- যা ছিল গঙ্গা তীরবর্তী। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক দিলীপ কুমার চক্রবর্তী উয়ারী-বটেশ্বরকে টলেমি বর্ণিত সৌনাগড়া হিসেবে মতপ্রকাশ করেন। উয়ারী-বটেশ্বর স্যান্ডউইচ কাচের পুঁতি, স্বর্ণাকৃত কাচের পুঁতি প্রভৃতি নিদর্শন এ অঞ্চলের সঙ্গে মিসর ও ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের সঙ্গে বাণিজ্যের সাক্ষ্যবহন করে। তাহলে উয়ারী-বটেশ্বর টলেমি বর্ণিত সৌনাগড়া না গঙ্গারিদাই? অধ্যাপক দিলীপ কুমার চক্রবর্তী বর্ণিত সৌনাগড়া হিসেবে মত দিলেও আলেকজান্ডার সেই গঙ্গারিদাই রাজধানী হওয়ার সম্ভাবনাও বেশ।
উয়ারী-বটেশ্বর খননের সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সুফি মোস্তাফিজুর রহমান গঙ্গারিদাই এর রাজধানী গাঙ্গে হওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে মনে করেন। তবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছতে আরও সময়ের প্রয়োজন আছে বলে তিনি মনে করেন। তিনি ২০১২ সালের দৈনিক ইত্তেফাকের ঈদ সংখ্যায় এর ওপর একটি লেখাও লিখেছেন লেখাটির শিরোনাম ছিল ‘প্রাচীন গঙ্গারিদির সন্ধানে’ : তিনি সেখানে উল্লেখ করেন আমাদের সাম্প্রতিক প্রত্নতাত্তিক গবেষণার ওপর ভিত্তি করে অনুমান হয় যে, উয়ারী-বটেশ্বর ছিল গঙ্গারিদাই এর রাজধানী গাঙ্গে। উয়ারী-বটেশ্বর গঙ্গারিদি রাজ্যে বা রাজ্যের অংশ হলে উয়ারী-বটেশ্বর দুর্গনগর সৌনাগড়া না হয়ে গাঙ্গেনগরও হতে পারে। কারণ টলেমির বর্ণনায় এশিয়ার অনেক নগরের সঙ্গে সৌনাগড়া এবং গাঙ্গে দুটি নগরের নাম পাওয়া যায়। আরও জানা যায় গাঙ্গে বন্দর থেকে মসলিন রপ্তানি হতো। মসলিন কাপড়ের আদি উৎপাদনস্থল হিসেবে ব্রহ্মপুত্র নদী তীরবর্তী অঞ্চল বিখ্যাত। ঢাকাই মসলিন নামে এখনও মসলিনের কথা মানুষের মাঝে ঘুরে-ফিরে। এ এলাকাটি ছিল মূলত বৃহত্তর ঢাকা জেলার বিভিন্ন অংশ যেখানে মসলিন উৎপন্ন হতো। উয়ারী-বটেশ্বর বৃহত্তর ঢাকার মধ্যে অবস্থিত। সুতরাং এখান থেকে মসলিন রপ্তানি হতো তা জোর দিয়ে এখনও বলা না গেলেও ছেড়ে দেয়া যায় না। উয়ারী-বটেশ্বরের সঙ্গে বহির্বাণিজ্যের দু’পথেই যোগাযোগ ছিল। সড়কপথ এবং নদীপথ ছিল এখানকার বাণিজ্যের মাধ্যম। শুধু ভূমধ্যসাগর বা পূর্ব-ইউরোপের সঙ্গে এর বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন না-আঞ্চলিকভাবে ভারতের আসামের সঙ্গেও ছিল এর বাণিজ্যিক সম্পর্ক। উয়ারী-বটেশ্বর লৌহিত্য, সৌনাগড়া না গঙ্গারিদাই এর রাজধানী গাঙ্গে। সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য ঐতিহাসিক যেসব তথ্য-প্রমাণের প্রয়োজন সেসবের সংযোজনই প্রমাণ করবে উয়ারী-বটেশ্বর কোন নগরের লুপ্ত ইতিহাসের অংশ। এর জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু সময়।
[লেখকদ্বয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী] – সংগৃহীত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!