• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

রাসূল (সা.) এর দৃষ্টিতে যারা উম্মতের দলভুক্ত নয় : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

সকল নবী ও রাসূলগণের মধ্য থেকে বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) হলেন সর্বশ্রেষ্ঠ নবী ও রাসূল। আর সকল উম্মতের মধ্য থেকে মুহাম্মদ (সা.) এর উম্মত বা উম্মতে মুহাম্মদী হল সর্বশ্রেষ্ঠ উম্মত। এই উম্মতের ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, তোমরাই সর্বোত্তম উম্মত, মানবজাতির (সর্বাত্মক কল্যাণের) জন্য তোমাদের আবির্ভুত করা হয়েছে, তোমরা সৎ কাজের আদেশ দাও এবং অসৎ কাজ হতে নিষেধ কর ও আল্লাহর প্রতি ঈমান রক্ষা করে চল। (সূরা আলে-ইমরান: ১১০)
হাদীসে এসেছে, বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, তোমরা সত্তরটি জাতিকে পূর্ণ করবে, তন্মধ্যে তোমরাই হলে আল্লাহর নিকট সবচেয়ে উত্তম এবং সবচেয়ে বেশী সম্মানিত। (তিরমিযি: ৩০০১)
উল্লেখিত আয়াত এবং হাদীস থেকে বুঝা যায় যে, মুহাম্মদ (সা.) এর উম্মতই হল সর্বোত্তম উম্মত। তবে লক্ষণীয় বিষয় হল, কুরআন-সুন্নাহর আলোকে এই উম্মত সর্বোত্তম উম্মত হলেও এমন কিছু অন্যায় রয়েছে যেগুলো কেউ করলে রাসূল (সা.) এর দৃষ্টিতে সে আর এই উম্মতের দলভুক্ত থাকে না। যেমন-
১। ধোঁকা দেওয়া বা প্রতারণা করা। ধোঁকা বা প্রতারণা অত্যান্ত গর্হিত একটি অপরাধ। উপার্জন করার ক্ষেত্রে হোক কিংবা অন্য যেকোন ক্ষেত্রে হোক সর্বাবস্থায় ধোঁকাবাজী করা হারাম। এটি মারাত্মক একটি কবীরা গুনাহ। রাসূল (সা.) বলেছেন, ধোঁকাবাজ জাহান্নামে যাবে। (বুখারী: ১/২৮ পৃষ্ঠা)
আব্দুল্লাহ বিন আমর (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, প্রতারক, কৃপণ ও খোঁটাদানকারী জান্নাতে যাবে না। (নাসাঈ আশরিবা অধ্যায়)
এছাড়াও ধোঁকা দেওয়া এত জঘন্য একটি অন্যায় যে, এর কারণে এই উম্মতের দলভুক্ত থাকা যায় না।
আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল (সা.) এক ব্যক্তির পাশ দিয়ে অতিক্রম করছিলেন, তখন সে খাদ্যশস্য বিক্রয় করছিল। তিনি খাদ্যশস্যের স্তুপের মধ্যে তার হাত ঢুকালেন এবং আদ্রতা অনুভব করলেন। তখন রাসূল (সা.) বললেন, যে ব্যক্তি ধোঁকা দেয় সে আমাদের (উম্মতের) অন্তর্ভুক্ত নয়। (ইবনে মাজাহ: ২২২৪)
২। মৃতের জন্য চেহেরায় বা বুকে আঘাত করে অথবা কাপড় ফেড়ে চিৎকার করে কান্না করা অথবা বিলাপ করা। কোন বিপদে পড়ে অথবা কারো মৃত্যুতে এভাবে চিৎকার করে কান্নাকাটি করা কিংবা বিলাপ করা মারাত্মক অন্যায় কাজ। যারা এ ধরণের কাজ করে তাদের প্রতি আল্লাহ ও তাঁর রাসূল অসন্তুষ্ট হন। মৃত্যুর পূর্বে তওবা না করলে তাদেরকে কিয়ামতের মাঠে আলকাতরার পায়জামা এবং খুজলীর জামা পরানো হবে। যেই ঘরে এরূপ কান্নাকাটি বা বিলাপ করার প্রথা আছে, সেই ঘরে মৃত ব্যক্তি যদি মৃত্যুর পূর্বে বিলাপ থেকে বাধা না দিয়ে থাকে, তাহলে মৃত্যুর পর তার জন্য যা বিলাপ করা হবে, এর জন্য কবরে থেকে তাকেও শাস্তি ভোগ করতে হবে। আর যদি সে জীবিত অবস্থায় নিষেধ করে থাকে তবে সে এর জন্য শাস্তি পাওয়া থেকে মুক্ত থাকবে। তবে যারা এভাবে চিৎকার করে কান্নাকাটি করে কিংবা বিলাপ করে তারা রাসূল (সা.) এর উম্মতের দলভুক্ত থাকবে না।
আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি বিপদে নিজের গালে-মুখে আঘাত করে, কাপড় ছিঁড়ে ফেলে এবং জাহিলিয়্যাতের যুগের মত হা-হুতাশ করে বিলাপ করে, সে আমাদের দলভুক্ত নয়। (বুখারী, মুসলিম, মিশকাত: ১৭২৫)
অন্যত্র এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, আমি ঐ লোক থেকে সম্পূর্ণ মূক্ত যে (বিপদে) মাথার চুল ছিঁড়ে বা নেড়ে করে, উচ্চঃস্বরে বিলাপ করে এবং কাপড় ছিঁড়ে ফেলে। (বুখারী, মুসলিম, মিশকাত: ১৭২৬)
৩। বড়দেরকে সম্মান না করা এবং ছোটদেরকে স্নেহ না করা। বড়দেরকে সম্মান করা আর ছোটদেরকে স্নেহ করা গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। রাসূল (সা.) এর উম্মতের দলভুক্ত থাকতে হলে অবশ্যই বড়দেরকে সম্মান আর ছোটদেরকে স্নেহ করতে হবে। কেননা হাদীসে এসেছে যে, আব্দুল্লাহ বিন আমর (রা.) বলেন, নবী (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি আমাদের ছোটদেরকে স্নেহ করে না এবং আমাদের বড়দেরকে সম্মান করে না সে আমাদের (উম্মতের) অন্তর্ভুক্ত নয়। (আবু দাউদ: ৪৯৪৩)
অন্যত্র এসেছে, রাসূল (সা.) বলেন, সে ব্যক্তি আমার উম্মতের দলভুক্ত নয়, যে ব্যক্তি আমাদের বড়দেরকে সম্মান দেয় না, ছোটদেরকে স্নেহ করে না এবং আলেমের অধিকার চেনে না। (মুসনাদে আহমদ: ২২৭৫৫)
উপরোল্লিখিত আলোচনা থেকে আমরা এমন তিনটি অন্যায়ের কথা জানতে পারলাম, যেইগুলো করলে অন্যায়কারী ব্যক্তিটি রাসূল (সা.) এর দৃষ্টিতে এই উম্মতের দলভুক্ত থাকে না। তাই আমাদের সকলেরই উচিত এই অন্যায়গুলো থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
চলবে……..
প্রচারে: আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *