• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

যে সমস্ত কাজ করলে আল্লাহর গযব বা অভিশাপ নেমে আসে (৪র্থ পর্ব) ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ইসলামী শরীয়ত হারাম বা নিষিদ্ধ কাজ সমূহের সুস্পষ্ট বিবরণ দেওয়ার পরও অনেক মানুষই ইসলামের নিষেধকে উপেক্ষা করে এমন কতগুলো হারাম কাজে লিপ্ত হয়ে থাকে, যার কারণে মানুষের উপর অভিশাপ বা গযব নেমে আসে। আর যেই সকল অন্যায়ের কারণে মানুষের উপর আল্লাহর অভিশাপ নেমে আসে তার মধ্য থেকে কয়েকটি অন্যায়ের কথা গত পর্বে আমরা জেনেছিলাম। যেমন- (১) তাক্বদীরকে অস্বীকার করা। (২) ঘুষ দেওয়া কিংবা ঘুষ গ্রহণ করা। (৩) রাসূল (সা.) এর আনীত দ্বীনের নাফরমানী করা। (৪) সূদের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৫) যেই ব্যক্তি তার প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়। (৬) বিদআত সৃষ্টি করা কিংবা বিদআতীকে আশ্রয় দেওয়া। (৭) যুলুম করা। (৮) মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৯) চৌর্যবৃত্তি বা চুরি করা। আর এই পর্বেও আমরা এই জাতীয় আরো কয়েকটি অন্যায়ের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ। যেমন-
১০। মানুষকে অস্ত্র দ্বারা ভয় দেখানো। অস্ত্র দ্বারা মানুষকে ভয় দেখানো মারাত্মক একটি অন্যায় ও ঘৃণিত কাজ। যেই ব্যক্তি মানুষকে হাতিয়ার বা অস্ত্র দ্বারা ভয় দেখায় বা ইশারা করে তার উপর ফেরেশতাগণ লা’নত করেন। অথচ বর্তমানে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা অহেতুক কিংবা তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভিন্নভাবে মানুষকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে থাকেন। অনেকে আবার নিজের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিভিন্ন প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রের মহড়া দিয়ে থাকেন। অথচ এটি এমন একটি মারাত্মক হারাম কাজ যা করলে অভিশাপ বর্ষণ হয়। এ ব্যপারে হাদীসে এসেছে যে, আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আবুল কাসিম (সা.) বলেছেন, যেই ব্যক্তি তার ভাইয়ের প্রতি (লৌহ নির্মিত) অস্ত্র উত্তোলন করে সে তা ত্যাগ না করা পর্যন্ত ফেরেশতাগণ তাকে লা’নত তথা অভিশাপ করতে থাকেন যদিও সে তার সহোদর ভাই হয়। (মুসলিম: ২৬১৬)
১১। মুমিনদেরকে কষ্ট ও ধোঁকা দেওয়া। মানুষকে অহেতুক কষ্ট দেওয়া কিংবা মানুষের সাথে প্রতারণা করা এমনিতেই একটি হারাম কাজ। আর মুমিনদেরকে কষ্ট দেওয়া কিংবা তাদের সাথে প্রতারণা করা এত জঘন্য অন্যায় যে, যারা এই কাজ করে তাদের উপর অভিশাপ বর্ষণ হয়। ইসলামের প্রথম খলীফা আবু বকর (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, ঐ ব্যক্তি অভিশপ্ত যে অন্য মুমিনের ক্ষতি করে অথবা তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে। (তিরমিযি: ১৯৪১)
অন্য একটি হাদীসে এসেছে, রাসূল (সা.) বলেন, যে মুসলিমদেরকে তাদের পথে-ঘাটে কষ্ট প্রদান করে, তার উপর (বিশ্বের সকল) মুসলিমদের লা’নত বা অভিশাপ ওয়াজিব হয়ে যায় তথা অবধারিত হয়ে যায়। (ছহীহাহ: ২২৯৪)
উল্লেখিত দুইটি হাদীস থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, মুমিনদেরকে কষ্ট ও ধোঁকা দেওয়া অভিশাপ নাযিল হওয়ার মত জঘন্য অন্যায়। অথচ বর্তমানে বিভিন্ন জায়গায় মুসলিম মেয়েদেরকে উত্যক্ত করা হয়, দাড়ি রাখার কারণে মুসলিম ছেলেদেরকে কটু কথা শুনতে হয়, নিরপরাধ মুসলিম নারী-পুরুষদেরকে জঙ্গি বলে, কাঠমোল্লা বলে অপমান করা হয়, ইসলামী পোষাক-পরিচ্ছদের জন্য মন্দ কথা শুনতে হয়, তাদেরকে অনেক জায়গায় শারীরিকভাবেও লাঞ্চিত করা হয়, যার সবগুলোই এত মারাত্মক অন্যায় যে, যারা এই কাজগুলো করে তারা সবাই অভিশপ্ত মানুষদের অন্তর্ভূক্ত হয়ে পড়ে।
১২। কুরআন-হাদীসের বিধানকে গোপন করা। জেনে-বুঝে কুরআন-হাদীসের ইলমকে গোপন করা কবীরা গুনাহ। যারা সঠিক ইসলাম জানার পরও নিজেদের মনমত ইসলাম প্রচার করে এবং হক গোপন করে, তাদের উপরে আল্লাহর লা’নত বর্ষণ হয়। আল্লাহ তাদেরকে সবচাইতে বড় যালেম বলে আখ্যা দিয়েছেন। মহান আল্লাহ বলেন, আমরা এই কিতাবের মধ্যে মানব জাতির জন্য স্পষ্ট বিধান ও পথনির্দেশ সমূহ বিস্তারিত ব্যখ্যা করে নাযিল করার পরেও যারা সেগুলি গোপন করে, তাদেরকে আল্লাহ লা’নত করেন এবং সকল লা’নতকারীগণও তাদেরকে লা’নত করেন। (সূরা বাকারা:১৫৯)
অন্যত্র তিনি বলেন, তার চাইতে বড় যালেম আর কে আছে যে আল্লাহর নিকট হতে প্রাপ্ত সাক্ষ্য গোপন করে? অথচ আল্লাহ তোমাদের কর্ম সম্পর্কে উদাসীন নন। (সূরা বাকারা: ১৪০)
উক্ত আলোচনা থেকে বুঝা যায় যে, কুরআন-হাদীসের বিধান গোপন করলে অভিশপ্তদের অন্তর্ভূক্ত হতে হবে।
উল্লেখিত আলোচনা থেকে আল্লাহর গযব বা অভিশাপ নেমে আসার মত কয়েকটি পাপের কথা আমরা জানতে পারলাম। কাজেই আমাদের সকলেরই উচিত এ জাতীয় অন্যায়ের ধারে কাছেও না যাওয়া, বরং এগুলো থেকে বিরত থাকা। আল্লাহ আমাদেরকে এ ধরনের জঘন্য অন্যায় থেকে বিরত রাখুন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *