• বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:০৭ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে বিশ্ব এইডস দিবসে র‌্যালি আলোচনা ভৈরবে বর্ণাঢ্য আনন্দ আয়োজনে নিরাপদ সড়ক চাই এর ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কিশোরগঞ্জে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় অংশ নেয়াদের পুরস্কার প্রদান হোসেনপুরে মাতৃমৃত্যু বিষয়ক সামাজিক পর্যালোচনা সভা কুলিয়ারচরে উন্নয়ন কাজের শুভ উদ্বোধন করেন আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন এমপি তাড়াইলে বিট পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী?দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী? সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ভৈরবে পুড়ে যাওয়া পাদুকা মার্কেট পরিদর্শন করলেন এমপি পাপন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ২০০ জন প্রান্তিক কৃষককে বিনামূল্যের বীজ প্রদান বাজিতপুরে চালকে হত্যা করে বিভাটেক ছিনতাই

ভৈরবে ৮তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

# মিলাদ হোসেন অপু :-

ভৈরবে ৮তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে তানিয়া ইসলাম (৪০) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। আজ ৩১ আগস্ট বুধবার সোয়া ৪টার দিকে ভৈরব পৌর শহরের ভৈরবপুর উত্তর পাড়া সারা টাওয়ার এর ৮তলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে এ আত্মহত্যা করে। তবে নিহতের পরিবারের দাবী এটা আত্মহত্যা নয়, এটা পরিকল্পিত হত্যা। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। নিহত তানিয়া ইসলাম কুলিয়ারচর উপজেলার মৃত আব্দুল হাকিম এর মেয়ে ও ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ মধ্যপাড়া গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াছ মিয়ার ছেলে ইমরান মিয়ার স্ত্রী। নিহত তানিয়ার স্বামী ও ২ সন্তান ইমতিয়াজ ও সাইফকে নিয়ে পৌর শহরের কমলপুর মোল্লা বাড়ি এলাকায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতেন। তার স্বামী ইমরান মিয়া কালিকাপ্রসাদ চরের কান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকাল সোয়া ৪টার দিকে সারা বিল্ডিংয়ের পাশে শব্দ হলে এলাকাবাসী দৌঁড়ে গিয়ে দেখতে পায় একটি মহিলার লাশ পড়ে আছে। পরে ভৈরব থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য থানায় নিয়ে যায়।
এ বিষয়ে নিহতের স্বামী ইমরান মিয়া বলেন, আমার স্ত্রী ১২/১৩ বছর যাবত মানসিক রোগে ভোগছেন। এসএসসি পড়–য়া ছেলে ইমতিয়াজ এর মাধ্যমে খবর পান তার মা ঘর থেকে বেরিয়ে গেছে। কোন এক মহিলা আত্মহত্যার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন তার স্ত্রী তানিয়া ইসলাম মাটিতে পড়ে আছে। সে আরো জানান প্রায় সময় তার স্ত্রী তানিয়া ইসলাম ঘর থেকে একা একা বেরিয়ে যেতো।
দৈনিক পূর্বকণ্ঠ অফিসে এসে নিহতের মা কামরুন নেছা ও বড় বোন বেবী বেগম কান্নাজনিত কণ্ঠে বলেন, তানিয়াকে হত্যা করা হয়েছে, সে আত্মহত্যা করতে পারে না। মা কামরুন্নেছা আরো বলেন, আমার মেয়েকে তার স্বামী ইমরান মিয়া মানসিক অত্যাচার করে আত্মহত্যার পথে ঠেলে দিয়েছেন। আমার মেয়ে গত ৩ দিন আগে আমার বাড়িতে থেকে এসেছে। ধারণা করা হচ্ছে তানিয়ার অনুমতি না নিয়ে তার স্বামী ইমরান মিয়া দ্বিতীয় বিবাহ করেছে। এ নিয়ে পরিবারে প্রায় ঝগড়া হতো। আমার মেয়েকে তার স্বামী শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করেছে প্রতিনিয়ত এবং তাকে জোর করে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে দিতো। ঘুমের ঔষধ খেতে না চাইলে মারধোর করে মুখে জোর করে ঔষধ ঢেলে দিতো।
বোন বেবী বেগম বলেন, আমার বোন আমাকে দেখা হলে প্রায়ই বলতো তার স্বামী তাকে মানসিক নির্যাতন করে। প্রতিটি কাজে খুদ ধরে। সে স্বামীর সংসার করবে না। আমাকে সন্তানসহ লালন করতে বলে। বড় বোন আরো বলেন, আমার বোন মাস্টার্স করা মেয়ে। তার লেখাপড়ার মধ্য দিয়েই তার বড় সন্তান জন্মলাভ করে। যদি আমার বোন মানসিক রোগী হতো তাহলে সে মাস্টার্স সম্পন্ন করলো কিভাবে ও সন্তান লালন পালন করলো কিভাবে। আমার বোনকে তার স্বামী আত্মহত্যার পথে ঠেলে দিয়েছে। আমার বোনের বিয়েতে দেয়া ৫ ভরি স্বর্ণালংকার তার স্বামী ইমরান মিয়া বিক্রি করে দিয়েছে। এছাড়াও প্রায় সময় আমার বোনকে অত্যাচার করে বাবার বাড়ি টাকা আনতে বাধ্য করতো। আমি আমার বোনের হত্যার বিচার চাই।
ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি আত্মহত্যার ঘটনা। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে স্বজনদের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!