• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

যে সমস্ত কাজ করলে আল্লাহর গযব বা অভিশাপ নেমে আসে (শেষ পর্ব); সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ইসলামী শরীয়ত হারাম বা নিষিদ্ধ কাজ সমূহের সুস্পষ্ট বিবরণ দেওয়ার পরও অনেক মানুষই ইসলামের নিষেধকে উপেক্ষা করে এমন কতগুলো হারাম কাজে লিপ্ত হয়ে থাকে, যার কারণে মানুষের উপর অভিশাপ বা গযব নেমে আসে। আর যেই সকল অন্যায়ের কারণে মানুষের উপর আল্লাহর অভিশাপ নেমে আসে তার মধ্য থেকে কয়েকটি অন্যায়ের কথা গত পর্বে আমরা জেনেছিলাম।
যেমন- (১) তাক্বদীরকে অস্বীকার করা। (২) ঘুষ দেওয়া কিংবা ঘুষ গ্রহণ করা। (৩) রাসূল (সা.) এর আনীত দ্বীনের নাফরমানী করা। (৪) সূদের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৫) যেই ব্যক্তি তার প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়। (৬) বিদআত সৃষ্টি করা কিংবা বিদআতীকে আশ্রয় দেওয়া। (৭) যুলুম করা। (৮) মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৯) চৌর্যবৃত্তি বা চুরি করা। ১০। মানুষকে অস্ত্র দ্বারা ভয় দেখানো। ১১। মুমিনদেরকে কষ্ট ও ধোঁকা দেওয়া। ১২। কুরআন-হাদীসের বিধানকে গোপন করা। আর এই পর্বেও আমরা এই জাতীয় আরো কয়েকটি অন্যায়ের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ। যেমন- ইসলামী শরীয়ত হারাম বা নিষিদ্ধ কাজ সমূহের সুস্পষ্ট বিবরণ দেওয়ার পরও অনেক মানুষই ইসলামের নিষেধকে উপেক্ষা করে এমন কতগুলো হারাম কাজে লিপ্ত হয়ে থাকে, যার কারণে মানুষের উপর অভিশাপ বা গযব নেমে আসে। আর যেই সকল অন্যায়ের কারণে মানুষের উপর আল্লাহর অভিশাপ নেমে আসে তার মধ্য থেকে কয়েকটি অন্যায়ের কথা গত পর্বে আমরা জেনেছিলাম। যেমন- (১) তাক্বদীরকে অস্বীকার করা। (২) ঘুষ দেওয়া কিংবা ঘুষ গ্রহণ করা। (৩) রাসূল (সা.) এর আনীত দ্বীনের নাফরমানী করা। (৪) সূদের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৫) যেই ব্যক্তি তার প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়। (৬) বিদআত সৃষ্টি করা কিংবা বিদআতীকে আশ্রয় দেওয়া। (৭) যুলুম করা। (৮) মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টতা। (৯) চৌর্যবৃত্তি বা চুরি করা। ১০। মানুষকে অস্ত্র দ্বারা ভয় দেখানো। ১১। মুমিনদেরকে কষ্ট ও ধোঁকা দেওয়া। ১২। কুরআন-হাদীসের বিধানকে গোপন করা। আর এই পর্বেও আমরা এই জাতীয় আরো কয়েকটি অন্যায়ের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ।
যেমন- ১৩। জমির নিশানা পরিবর্তন করা। অন্যের জমিকে অন্যায়ভাবে দখল করা হল কবীরা বা বড় গুনাহ। এটা এমন গুনাহ যা আল্লাহ ক্ষমা করবেন না। কেননা এটা বান্দার হকের সাথে সম্পৃক্ত। এই গুনাহ থেকে ক্ষমা পাওয়ার জন্য সর্বপ্রথম বান্দার জমি ফিরিয়ে দিতে হবে অথবা তার নিকট থেকে ক্ষমা নিতেই হবে। তারপর মহান আল্লাহর নিকট তওবা করতে হবে। বর্তমানে এই গুনাহের কাজটি অহরহ ঘটতেছে। কেউ জাল দলীল করে অন্যের জমি দখল করতেছে। কেউবা আইল পরিবর্তন করে কিংবা আইল কেটে নিজের জমির সাথে মিলিয়ে নিতেছে। আবার কেউ রাস্তা দখল করতেছে। এই রকমভাবে আজকে এই অন্যায়টিতে মানুষ খুব বেশী লিপ্ত হইতেছে। অথচ এটা এমন জঘন্য অপরাধ যে, এই জাতীয় অন্যায়ে যারা লিপ্ত হয় তাদের উপর লা’নত বা অভিশাপ বর্ষিত হতে থাকে। এই সম্পর্কে মহানবী (সা.) বলেছেন, যেই ব্যক্তি জমির নিশানা চি‎হ্ন সমূহ বা আইল পরিবর্তন করে, তার উপর আল্লাহ লা’নত করেন। (মুসলিম: ১৯৭৮)
১৪। মিথ্যা বলা। মিথ্যা বলা কবীরা বা বড় গুনাহ। যেই মানুষ বেশী বেশী মিথ্যা বলে এবং মিথ্যা বলতে অভ্যস্থ হয়ে পড়ে, আল্লাহর খাতায় ঐ ব্যক্তিকে মিথ্যুক হিসেবে লিখে নেওয়া হয়। মৃত্যুর পর মিথ্যুকের দুই গালের ভেতরে লোহার সাঁড়াশি ঢুকিয়ে দিয়ে তা দ্বারা চিরে গর্দানের পিছন পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হবে এবং তা বারবার করা হবে। মিথ্যার কারণে মানুষ জাহান্নামে প্রবেশ করবে। এছাড়াও যেই মানুষ মিথ্যাচার করে তার উপর লা’নত বা অভিশাপ বর্ষিত হতে থাকে। আল্লাহ বলেন, (যেই ব্যক্তি তার স্ত্রীর প্রতি যিনার অপবাদ আরোপ করে, অথচ তার পক্ষে অন্য কোন সাক্ষী নেই, সেই ব্যক্তি) পঞ্চমবারে বলবে, সে যদি মিথ্যাবাদী হয়, তবে তার উপর আল্লাহর লা’নত বা অভিশাপ হোক। (সূরা নূর: ৭)উল্লেখিত আয়াত থেকে বুঝা যায় যে, জেনে বুঝে মিথ্যা বললে আল্লাহর লা’নত বর্ষণ হয়।
১৫। আল্লাহর ব্যপারে মন্দ ধারণা পোষণ করা। যারা আল্লাহ সম্পর্কে মন্দ ধারণা রাখে তাদের উপর আল্লাহর লা’নত বর্ষণ হয় এবং আল্লাহ তা’য়ালা তাদেরকে জাহান্নামে প্রবেশ করাবেন। এ ব্যপারে তিনি বলেন, আর যাতে তিনি শাস্তি দিতে পারেন মুনাফিক পুরুষ ও নারীদেরকে এবং মুশরিক পুরুষ ও নারীদেরকে, যারা আল্লাহ সম্পর্কে মন্দ ধারণা পোষণ করে। তাদের জন্য রয়েছে মন্দ পরিণাম। আল্লাহ তাদের প্রতি রাগ করেছেন ও তাদের উপর লা’নত করেছেন এবং তাদের জন্য জাহান্নাম প্রস্তুত রেখেছেন। আর ঠিকানা হিসেবে তা কতইনা নিকৃষ্ট। (সূরা ফাতহ: ৬)
উল্লেখিত আয়াত থেকে বুঝা যায় যে, আল্লাহর ব্যপারে মন্দ ধারণা রাখা গযব বা অভিশাপ নেমে আসার মত জঘন্য অন্যায়। কিন্তু বর্তমান সময়ে মানুষ বিভিন্নভাবে শিরক করে কিংবা নিফাকের মত অন্যায়ে জড়িয়ে পড়ে আল্লাহর প্রতি মন্দ ধারণা পোষণ করে থাকে। অথচ রাসূল (সা.) মৃত্যুর পূর্বে তিনবার বলেছেন, তোমাদের কেউ যেন আল্লাহর উপর ভাল ধারণা না নিয়ে মৃত্যু বরণ না করে। (মুসলিম: ৫১২৪)
অতএব আমাদের সবাইকে আল্লাহর ব্যপারে ভাল ধারণা রাখতে হবে। আর এই জন্য আমাদের সকলকেই আল্লাহর পরিচয় সঠিকভাবে জানতে হবে। কেননা আল্লাহর পরিচয় না জানলে তাঁর ব্যপারে ভাল ধারণা রাখা অনেকটাই অসম্ভব। আল্লাহ আমাদের সবাইকে লা’নত বর্ষিত হয় যেই কারণে তা থেকে রক্ষা করুন। আমীন
প্রচারে : আসুন  কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রাঃ), কমলপুর,ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *