• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

মানবহিতৈষী ডা. শহিদুল্লাহকে যেমনটা দেখেছি

মো. জামিন মিয়া

প্রায় তিন হাজার বছরের জনবসতির ইতিহাস ও ঐতিহ্যের বাহক কিশোরগঞ্জ জেলা।সুদূর প্রাচীনকাল থেকে উজান ভাটির বিশাল এই ভূভাগটির ইতিহাস কিভাবে রচিত হয়েছিলো, সে নিয়ে রয়েছে চমকপ্রদ সব তথ্য। উপমহাদেশের প্রথম মহিলা কবি বা দ্বিজ বংশী দাশের স্মৃতি বিজারিত এই কিশোরগঞ্জ জেলা। কিশোরগঞ্জ জেলাকে ষোড়শ শতাব্দির বাংলার সাংস্কৃতিক রাজধানী বলা হতো। এই জেলার মানুষরা যে কেবল সংস্কৃতি চর্চায় বিখ্যাত ছিলো তা নয়, বরং মানবহিতৈষী কাজের জন্যও তারা যুগে যুগে মানুষের কাছে উদাহরণ হয়েছেন। গুরুদয়াল সরকারের নাম এক্ষেত্রে স্মরণীয়। তার অনুদানে গড়ে উঠা গুরুদয়াল সরকারি কলেজ আলোকিত মানুষ তৈরিতে অবদান রেখে চলেছে। আবার ভৈরবের কৃতি সন্তান দানবীর হাজী হাসমত আলীর সমাজ সেবা ও শিক্ষা অনুরাগের কথা সেসময়ে ছিল প্রবাদ তুল্য। আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম কর্তৃক নিজ নামে প্রতিষ্ঠিত মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত আছে। মুন্সী আজিমউদ্দিনের বদান্যতার কথা আজও শিক্ষানুরাগীদের আলোচনার বিষয়বস্তু।
এরকমই একজন মানবহিতৈষী মানুষ হলেন ডা. মো. শহিদুল্লাহ। প্রচারবিমুখ এই মানুষটির জন্ম ১৯৪৩ সালের ২৫ নভেম্বর, কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলায়। এখানেই শহিদুল্লাহর শৈশব কেটেছিলো। তিনি ছেলে বেলা থেকেই অত্যন্ত মেধাবী ও প্রখর স্মৃতি শক্তির অধিকারী ছিলেন। দুর্ভাগ্যের বিষয়, শহিদুল্লাহ অল্প বয়সে মাকে হারান। মাকে হারালেও চাচির ছত্রছায়ায় তিনি বেড়ে উঠতে থাকেন।
অদম্য মনোবলের অধিকারী শহিদুল্লাহ নিজ উপজেলায় পড়াশোনা চালিয়ে যেতে থাকেন। প্রাথমিক শিক্ষা অর্জন করেন বাহরাম খাঁন পাড়া জে কে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। পরে তিনি পাকুন্দিয়া সিনিয়র মাদ্রাসায় ভর্তি হন। এই মাদ্রাসাটির সাথে একটি গৌরবময় ঘটনা জড়িয়ে আছে। ১৯৩৮ সালে বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেরে বাংলা একে ফজলুল হক উক্ত সিনিয়র মাদ্রাসার ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন করেছিলেন। সেদিন বিপুল উৎসাহ ও মহা সমারোহের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তৃতা শুনে শ্রোতাম-লীর মনে যে উৎসাহ ও উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছিলো, তা ছিলো অভূতপূর্ব। একসময় মাদ্রাসাটি উচ্চ বিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হয়। প্রতিষ্ঠানটির নতুন নাম হয় পাকুন্দিয়া উচ্চ বিদ্যালয়। শহিদুল্লাহ ১৯৬০ সালে এই প্রতিষ্ঠান থেকে মেট্রিক পাশ (বর্তমানে এসএসসি সমমান) করেন। প্রতিষ্ঠানটিতে পড়ার সুবাদে মানবতাবাদী প্রধান শিক্ষক মৌলভী মো. খুর্শিদ উদ্দিন ও সাধক মৌলানা আবদুল হালিমের সংস্পর্শে আসেন। তারা দুজনই শহিদুল্লাহকে অত্যন্ত স্নেহ করতেন। এই দুজন মানবতাবাদীদের সহচর্যে থাকার দরুন যে শিক্ষা তিনি পেয়েছিলেন পরবর্তীতে এটি তার জীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলে।
শহিদুল্লাহর স্বপ্ন ছিলো পাইলট হওয়া। পাকিস্তান বিমান বাহিনীর পরীক্ষায় তিনি উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। কিন্তু প্রশিক্ষণে তার মন বসছিলো না। এজন্য কোর্স শেষ হওয়ার আগেই তিনি কিশোরগঞ্জ শহরে চলে আসেন। পরে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন অষ্টগ্রাম উপজেলার পাওন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে। হাওর অধ্যুষিত উপজেলাটির পরিবেশে নিজেকে খাপ খাওয়াতে না পেরে চাকরি ছেড়ে দেন। যোগ দেন টঙ্গীর অলিম্পিয়া বস্ত্র মিলে। সেখানে বাঙালি ও অবাঙালি দ্বন্দ্ব তাকে খুব পীড়া দেয়। বস্ত্র মিলের চাকরী ত্যাগ করে ময়মনসিংহের ডব্লিউ টিটি ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন। ইনস্টিটিউটের কোর্স সমাপ্ত করে স্বাস্থ্য সহকারী পদের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। কিন্তু কর্তৃপক্ষের ভুলের কারনে চাকরীতে যোগ দিতে পারেননি। শহিদুল্লাহ নামে দুজন প্রার্থী থাকায় সমস্যা হয়। কিন্তু পিতার নামে ভিন্নতা ছিলো। এজন্য চাকরিটি তার হয়নি। শহিদুল্লাহ অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে বাড়ি ফিরে আসেন। বেকার থাকায় তিনি অলস সময় কাটাতে থাকেন। শহিদুল্লাহ বিয়ের পিঁড়িতে বসার কিছুদিন পর তার শ্বশুর তাকে সিরাজগঞ্জ শহরে স্বাস্থ্য সহকারী পদে চাকরীর ব্যবস্থা করেন। স্বাস্থ্য সহকারীর পদে দীর্ঘদিন নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করার পর তিনি ২০০১ সালে অবসরে যান। শুরু হয় শহিদুল্লাহর মুক্ত জীবন যাপন করার যাত্রা। ডা. শহিদুল্লাহ অত্যন্ত মানবদরদী ছিলেন। মুসলিম সমাজের নানা অসংগতি তাকে চিন্তিত করে তোলে। বিশেষ করে, বর্তমান সময়ে মুসলমানদের দুর্দশা তাকে ভাবিয়ে তোলে। এ সময় একটি ঘটনা শহিদুল্লাহকে বেশ পীড়া দেয়। ২০০৪ সালে রংপুরে একজন ছাত্রী বোর্ড ফি দিতে না পেরে আত্মহত্যা করে। তৎক্ষনাৎ তিনি সিদ্ধান্ত নেন একটি ফাউন্ডেশন গঠন করবেন যেটি দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটাবে। এ সময় সংস্থাটি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এগিয়ে আসেন তারই বড় ছেলে শিল্পপতি মো. আজিজুল হক আসাদ। ২০০৫ তাদের প্রতিষ্ঠিত সংস্থাটির নামকরণ করা হয় “ডা. শহিদুল্লাহ-জাহানারা ফাউন্ডেশন” নামে। এই ফাউন্ডেশনের উদ্দেশ্য ছিলো এসএসসি ও দাখিল পড়ুয়া অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণে সহায়তা করা। তারই ধারাবাহিকতায় শহিদুল্লাহ নিজেই বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঘুরে ঘুরে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের চিহ্নিত করে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে মানবহিতৈষী এই মানুষটি ২০১৪ সালে লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। তবুও তিনি দমে যাননি। বিছানা থেকেই তার স্বপ্নের সংস্থার কাজ এগিয়ে নিতে থাকেন।
ডা. শহিদুল্লাহ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ফাউন্ডেশনটি ২০২০ সালে সমবায় অধিদপ্তরে নিবন্ধন করা হয়। সংস্থাটি যেসব বিষয়কে সামনে রেখে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে সেগুলো হলো-শিক্ষাবৃত্তি, বিধবা ভাতা, দুঃস্থ ভাতা, চিকিৎসা ভাতা, শীতকালে বস্ত্র ও কম্বল বিতরণ ও গৃহহীনদের গৃহের ব্যবস্থা। করোনা কালে এই সংস্থা দরিদ্রের “করোনাকালীন বিশেষ ভাতা” চালু করে। শহিদুল্লাহর তার আর্তমানবতার সেবা পুরো কিশোরগঞ্জ জেলায় ছড়িয়ে দিয়েছেন। অসংখ্য অভাবগ্রস্থের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। ডা. শহিদুল্লাহ অবসর সময়ে কবিতা লেখেন। ২০১৭ সালে সর্বপ্রথম “ভাল লাগে” নামক কবিতা দিয়ে তার লেখার জগতে যাত্রা শুরু হয়। শহিদুল্লাহর এ পর্যন্ত পাঁচটি কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তার রচিত কবিতা গুলো মূলত নীতি নৈতিকতা সম্পর্কিত। কিশোরগঞ্জে মোট ১৩ উপজেলার প্রায় সব উল্লেখ্যযোগ্য লাইব্রেরীতে তিনি এসব গ্রন্থ উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন। তাছাড়া শহিদুল্লাহ বৃত্তি প্রদান কিংবা মানবসেবামূলক অনুষ্ঠানে তরুণদের মধ্যে নীতি নৈতিকথামূলক কবিতা গুলো বিতরণ করে থাকেন। অধঃপতনে চলে যাওয়া সমাজের বিরুদ্ধে কবি এখনও কলম চালনা করে যাচ্ছেন। লিখেছেন দুর্নীতির বিরুদ্ধেও। লেখকের সাথে প্রচার বিমুখ এই মানুষটির সাক্ষাৎ হয় ২০২১ সালে। বর্তমানে মানবতার সেবার পাশাপাশি কবিতা লিখেই ব্যস্ত সময় পার করেন মানবহিতৈষী ডা. শহিদুল্লাহ।

লেখক: শিক্ষার্থী
ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ,
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *