• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৪:১২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভৈরবে এতিম ও গরীব শিশুদের সুন্নাতে খাৎনা বিএডিসির দূরত্ব বিধান অমান্য করে প্রতিবেশির সেচের সীমায় সেচ প্রকল্প হোসেনপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড ও ডিজিটাল সনদ বিতরণ কিশোরগঞ্জের ঈশাঁখা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা কিশোরগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসে গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কার্যালয়ে শোকসভা তাড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচন করার বিধানের রিট খারিজ কুলিয়ারচরে রাস্তার পাশে ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এক বাড়িতে হামলা, আহত ৩ কিশোরগঞ্জে অশোক-ঝুমু স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা কিশোরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজা নিয়ে ৬ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

জঙ্গি মুফতি শফিকুল কিশোরগঞ্জ কারাগার হয়ে এখন কাশিমপুরে

জঙ্গি মুফতি শফিকুল
কিশোরগঞ্জ কারাগার
হয়ে এখন কাশিমপুরে

# মোস্তফা কামাল :-

রাজধানীর রমনা বটমূলে ২০০১ সালে ছায়ানটের পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে বোমা হামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি শফিকুর রহমানকে (৬১) বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করে গতকাল শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) কিশোরগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু কিশোরগঞ্জ কারাগারে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় এবং এখানে তার নামে কোন মামলা না থাকায় তাকে আজ ১৬ এপ্রিল শনিবার কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় গাজীপুরের হাই সিকিউরিটি কাশিমপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কিশোরগঞ্জের জেল সুপার মো. বজলুর রশিদ। মুফতি শফিকুর রহমান জেলার ভৈরব উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের বাঁশগাড়ী গ্রামের নূরুল ইসলামের ছেলে। তার হাজতি নম্বর ছিল ২৩৮৩/২২।
জঙ্গি শফিকুলকে র‌্যাব-২ সদস্যরা বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর ভৈরব থেকে গ্রেফতার করেন। এরপর শুক্রবার বিকালে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে কিশোরগঞ্জের আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। এখানে তাকে পৃথক সেলের ভেতর কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে রাখা হলেও কিশোরগঞ্জে তার নামে কোন মামলা না থানায় এবং এই কারাগারের নিরাপত্তা ব্যবস্থা এরকম একজন উগ্র জঙ্গির জন্য পর্যাপ্ত না হওয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে তাকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে জেলা সুপার নিরাপত্তার জন্য পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার)-এর কাছে চিঠি দিলে তিনি পর্যাপ্ত নিরাপত্তাসহ চারটি গাড়ির ব্যবস্থা করে দেন। পুলিশ, র‌্যাব ও ডিএসবির চারটি গাড়ির বহর নিয়ে শফিকুলকে সকাল পৌনে ১১টার দিকে কাশিমপুরের উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়। কারাগার থেকে শফিকুলকে বুঝে নেন পুলিশ পরিদর্শক আব্দুর রশিদ। বেলা পৌনে ১টার দিকে শফিকুলকে নিয়ে গাড়ি বহর কাশিমপুর কারাগারে পৌঁছে। জেল সুপার জানান, তার কাছে শফিকুলের বিরুদ্ধে ৪টি মামলার তথ্য রয়েছে। প্রথমটি হলো হবিগঞ্জের বিশেষ ট্রাইবুনালের ৬০/১৫ এর জিআর ২৭/০৫। দ্বিতীয়টি হলো সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের (দায়রা) ১১/০৬ জিআর ২৬/০৫। তৃতীয়টি হলো ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল ৩০/১১-এ মতিঝিল থানার মামলা নং ৯৭(৮)০৪। আর চতুর্থ মামলাটি হলো ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল ২৯/১১-এ মতিঝিল থানার মামলা নং ৯৭(৮)০৪।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর শফিকুলকে র‌্যাব-২ সদস্যরা ভৈরব থেকে গ্রেফতারের পর রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলন করে তার কর্মকাণ্ড এবং মামলা সংক্রান্ত বিস্তারিত বিবরণ দেয়া হয়। কাওরানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানিয়েছিলেন, মুফতি শফিকুর রহমান নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের এক সময়ের আমীর। ২০০১ সালের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। আহত হয়েছিলেন অনেকে। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দু’টি মামলা দায়ের করেছিল। হত্যা মামলায় ২০১৪ সালের ২৩ জুন প্রদত্ত রায়ে সংগঠনের শীর্ষ নেতা মুফতি হান্নান ও মুফতি শফিকুর রহমান ওরফে শফিকুল ইসলাম ওরফে আব্দুল করিমসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়। কিন্তু ওই হামলার পর থেকে শফিকুর রহমান বিভিন্ন জায়গায় নাম-পরিচয় গোপন রেখে আত্মগোপনে থাকেন। তবে ২০০৪ সালের একুশে আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে শেখ হাসিনার সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় মামলার রায়ে ইতোমধ্যে মুফতি হান্নানের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। এ মামলায় শফিকুর রহমানের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছিল।
২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যেরবাজারে গ্রেনেড হামলায় সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার ঘটনায়ও মুফতি শফিকুর রহমান চার্জশীটভুক্ত আসামি। তিনি ২০০৮ সাল থেকে ছদ্মনাম আব্দুল করিম পরিচয়ে নরসিংদীর একটি চরে ৫ হাজার টাকা বেতনে একটি মসজিদে ইমামতির চাকরিতে যোগ দেন। পরিচয় গোপন করে তিনি ২১ বছর পলাতক ছিলেন। রমনা বটমূলের ঘটনায় সিআইডি ২০০৮ সালের ২৯ নভেম্বর মুফতি হান্নান ও মুফতি শফিকুর রহমানসহ ১৪ জনের নামে আদালতে দু’টি অভিযোগপত্র দাখিল করেছিল। একটি হত্যা ও একটি বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে। হত্যা মামলায় ২০১৪ সালের ২৩ জুন আদালতের রায়ে সংগঠনের শীর্ষ নেতা মুফতি হান্নান ও মুফতি শফিকুর রহমানসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনের যাবজ্জীবন হয়। অন্যদিকে বিস্ফোরক আইনের মামলাটি বর্তমানে ঢাকার ১নং দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে বিচারাধীন আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!