• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী

একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান
শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী

# মোস্তফা কামাল :-
মহান মুক্তিযুদ্ধের ৫৩ বছর পর কিশোরগঞ্জের একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক পেলেন শহীদ বুদ্ধিজীবীর স্বীকৃতি। এরা হলেন তাড়াইল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক এবি মহিউদ্দিন আহমেদ ওরফে গোলাম মাওলা ও শামসুদ্দীন আহমেদ। এরা দুজনই একাত্তরের শহীদ। গত ৮ ফেব্রুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের গেজেট অধিশাখার প্রজ্ঞাপনে তাঁদের নাম শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে শিক্ষক ক্যাটাগরিতে প্রকাশ করা হয়েছে। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়ন কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে তাঁদের নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ২৯নং ক্রমিকে নাম রয়েছে এবি মহিউদ্দিন আহমেদের। তাঁর গেজেট নম্বর ৩৬৪। আর ৯২ ক্রমিকে নাম রয়েছে শামসুদ্দীন আহমেদের। তাঁর গেজেট নম্বর ৪২৭। এবার তৃতীয় পর্বে ১০৮ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম প্রকাশ করা হলো। আর এখন পর্যন্ত মোট ৪৪৩ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম প্রকাশ করা হয়েছে।
এবি মহিউদ্দিন আহমেদের বড় ছেলে সরকারি গুরুদয়াল কলেজের প্রাক্তন শিক্ষক মো. ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল জানান, শহীদ হবার পর বাবার লাশটিও পরিবার পয়নি। তাঁরা চার ভাইবোন বাবার নাম শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ২০২০ সালের ১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী বরাবরে লিখিত আবেদন করেছিলেন। অনুলিপি দিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীকে। আবেদনে উল্লেখ করেছিলেন, তাঁদের বাবা ১৯৪৯-৫১ সালে কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি স্থানীয়ভাবে ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯৫৪ সালে তিনি কিশোরগঞ্জ মহকুমা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে এলাকার যুবকদের মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করতেন। একাত্তরের ১০ নভেম্বর জেলা শহরের গাইটাল এলাকার বাসা থেকে কাচারিবাজার এলাকায় গেলে সেখান থেকেই আলবদর বাহিনী ধরে নিয়ে যায়। লাশটিও পরিবার পায়নি। ১৯৭২ সালে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রকাশিত শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকায় তাঁর নাম আছে। আবেদনের সাথে স্থানীয় দৈনিক পূর্বকন্ঠে প্রকাশিত জীবনবৃত্তান্তের কপি ও ১৯৭২ সালে প্রকাশিত তথ্য মন্ত্রণালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা সংযুক্ত করে দেওয়া হয়েছিল। ফলে তাঁর নামটি শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে সরকারি গেজেটে তালিকাভুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানানো হয়েছিল। অবশেষে সরকারি গেজেটে নামটি অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় শহীদ বুদ্ধিজীবী এবি মহিউদ্দিন আহমেদের পরিবার সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন বলে জানিয়েছেন ছেলে ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল। তাঁর বাবাকে হত্যার বিচার চেয়ে আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইবুনালে আবেদন করা হয়েছিল। এতে ঈশ্বরগঞ্জের আলবদর কমান্ডার শহীদুল্লাহ ফকির ও তৎকালীন তাড়াইল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জামায়াত নেতা জহিরুল হককে দায়ী করা হয়েছে। অভিযোগটি এখনও তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন শহীদের ছেলে ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল। তাঁদের আদি বাড়ি হোসেনপুরের পানান এলাকায়। এই শহীদের সহধর্মিনী জামিলা আহমেদ ২০১৭ সালে মারা গেছেন।
অপর শহীদ বুদ্ধিজীবীর স্বীকৃতি পেয়েছেন শহরের গাইটাল এলাকারই আরেক কৃতি সন্তান শামসুদ্দীন আহমেদ। তিনি এক পর্যায়ে শিক্ষকতা পেশা ছেড়ে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেটর চাকরি নেন। একাত্তরে তিনি রাজশাহীতে সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার ছিলেন। সেসময় ১৪ এপ্রিল তিনি রাজশাহীর তানোর এলাকায় একটি সংগ্রাম কমিটির সভায় অংশগ্রহণ করতে যাওয়ার সময় তাঁকে পাকিস্তানী বাহিনী ধরে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। লাশটিও স্বজনরা পাননি। স্বামীর শহীদ বুদ্ধিজীবীর স্বীকৃতির জন্য স্ত্রী সিদ্দিকা বেগম ১৯৯৭ সালে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন করেন বলে জানিয়েছেন তাঁর সন্তান ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন আহমেদ সেলু। সিদ্দিকা বেগম ২০০৬ সালে মারা গেছেন। এই স্বীকৃতির জন্যও ছেলে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। শামসুদ্দীন আহমেদের আদি বাড়ি জেলার তাড়াইলের সাচাইল এলাকায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *