• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ১২:১৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভৈরবে শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ ৪ প্রতিষ্ঠান মালিক ও ১ ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে অর্থদণ্ড মানবহিতৈষী ডা. শহিদুল্লাহকে যেমনটা দেখেছি প্রতিপক্ষের হামলায় কৃষক লীগের নেতা আহত কিশোরগঞ্জে ডিম বিক্রি অর্ধেকে নেমে এসেছে, আস্ত ডিম ছেড়ে অনেকে খাচ্ছে আধাখানা ডিম পাকুন্দিয়ার আলতাফ সড়ক দুর্ঘটনায় কাপাসিয়ায় নিহত কিশোরগঞ্জে এক সপ্তাহ পর করোনায় আক্রান্ত ১ জেলায় চিকিৎসাধীন ২ বিএনপি-জামাত জোট সরকারের শাসনামলে সংগঠিত দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ভৈরবে বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে সৎ মেয়ের জামাতা হত্যায় পিতার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাকুন্দিয়ায় কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩ পাকুন্দিয়ায় পুকুরের পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু

শ্রমিকের অধিকার মালিকানা : মো. জালাল উদ্দিন

মো. জালাল উদ্দিন

১ মে, মহান মে দিবস। এই দিনটি শ্রমিক দিবস। শ্রমজীবি মানুষের অধিকার আদায়ের দিবস। ১৮৮৬ সালের এই দিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটে শ্রমের মর্যাদা, শ্রমের মূল্য এবং দৈনিক ৮ ঘণ্টা কর্মঘণ্টার দাবীতে আন্দোলন করে শ্রমিকেরা যে আত্মহুতি দিয়েছিলেন। তাদের সেই দিনের আত্মত্যাগের সম্মানে বাংলাদেশসহ পৃথিবী জুড়ে দিবসটি শ্রমজীবী মানুষদের অধিকার আদায়ের দিন হিসেবে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়ে থাকে। ১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই প্যারিসে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সমাবেশে ১ মে দিনটিকে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। পরের বছর ১৮৯০ সাল থেকে দিনটিকে পৃথিবী জুড়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়ে আসছে। বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১ মে দিনটিকে মে দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে এই দিনটিকে সরকার ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করেন। সেই থেকে বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে।
পৃথিবী জুড়ে ১৩৫ বছর ধরে দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করে শ্রমজীবী মানুষদের মর্যাদা দান করা হলেও প্রকৃত মর্যাদা কিংবা অর্থনৈতিক পূর্ণ মর্যাদা কি তাদের জীবনে এসেছে? মর্যাদার ক্ষেত্রে যদি বিচার করা হয়। তাহলে বলতে হবে। না, তারা পূর্ণ মর্যাদা এখনো পায়নি। যেমন পূর্ণ মর্যাদা পায়নি অর্থনীতিতে, তেমনি করে লেখালেখিতেও তাদের পূর্ণ মর্যাদা পরিলক্ষিত হয়নি। প্রতি বছর মে দিবসে পত্রিকাগুলো শ্রমজীবী মানুষদের নিয়ে লেখালিখি করে। লেখক সাংবাদিকগণ নিজেদের লেখনির মাধ্যমে তাদের মর্যাদা ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন। তাদের এই চেষ্টার ভেতরেও যে শ্রমজীবী মানুষদের মর্যাদার হানি হয়ে যাচ্ছে এই কথাটি হয়তো লেখকগণ বুঝতেই পারেন না। এসব লেখক সাংবাদিকগণ নিজেদের লেখার মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষদের উচ্চ মাত্রার মর্যাদায় উঠাবার জন্য সাধারণতঃ যেসব ভাষা ব্যবহার করেন। সেসব লেখাগুলো পড়ে বুঝতে পারা যায়- শ্রমজীবী মানুষদের অনেক সম্মান করেই লেখেন তারা। অনেকেই লিখে থাকেন ‘শ্রমজীবী মানুষদের শ্রমে ও ঘামে সভ্যতার ভিত্তি ভূমি গড়ে উঠে’। এখানে শ্রমজীবী মানুষদের মূল্যায়ন করতে গিয়ে শুধুমাত্র তাদের শরীরের শ্রম আর পরিশ্রমের কারণে শরীর থেকে ঝরা ঘামের কথা বলা হয়েছে। কেন, শুধুমাত্র শ্রম আর ঘামের কথা কেন? তাদের কি মেধা, মন ও মনন বলতে কিছু নেই। তাদের কাজের ক্ষেত্রে এসব কি কোনও কাজ করে না? পৃথিবী জুড়ে যত তৈরি আছে। তার সব কিছুতো শ্রমজীবী মানুষেরাই করে থাকেন। শুধুমাত্র শ্রম আর ঘাম ঝরিয়ে কি এত সুন্দর করে সবকিছু তৈরি করা যায়? না, যায় না। তার কারণ আমাদের জানা আছে। একজন মানুষের পুরোটা শরীরকে পরিচালনা করে তার মাথা। এই মাথার মধ্যে অবস্থান করে মানুষের মেধা, মন ও মনন। এই মেধা, মন ও মননই একজন মানুষকে শরীর খাটিয়ে সুন্দর একটা কাজ করার জন্য পরিচালনা করে থাকে। যার মাথা ঠিক নেই, সে সুন্দর কোন কাজ করতে পারে না। একজন মানসিক প্রতিবন্ধি লোকের শারীরিক শ্রম দেবার মতো সক্ষমতা থাকে। তার শরীর থেকে পরিশ্রম করে ঘামও ঝরাতে পারে। কিন্তু তার মাথা ঠিক নেই বলে ভালো কোন কাজ করতে পারে না। তার মেধা শক্তি ও মানসিক শক্তি বিশৃঙ্খল অবস্থায় থাকায় সুপরিকল্পিতভাবে কোন কাজ করার সক্ষমতা থাকে না। এই অক্ষমতার কারণ তার মেধা ও মানসিক শক্তি নষ্ট হয়ে যায়। সে কারণে নিজের জনগোষ্ঠির মাঝে লোকটি পাগল হিসেবে পরিচিতি পায়। কোন অপরাধমূলক কাজ করলেও মাথা ঠিক নেই বলে তাকে ক্ষমা করে দেয়া হয়। তার দ্বারা সভ্যতার বিকাশে কোন ভূমিকা রাখা সম্ভব হয় না। এসব মানসিক প্রতিবন্ধীদের কোন শিল্প কারখানা বা ক্ষেতখামারে, কোন দোকান পাটেও শ্রমিক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় না। তার মাথা ঠিক নেই। কোন কাজ করতে পারবে না। কিছু বুঝে না বলে যেকোন দুর্ঘটনাও ঘটিয়ে ফেলতে পারে। এতে করে প্রতীয়মান হওয়া যায় যে- শ্রম দেবার আর ঘাম ঝরাবার ক্ষমতা থাকলেই সে ভালো কোন কাজ করতে পারে না। তার সাথে মেধা ও মননের সংযোগ থাকতে হবে। শ্রমজীবী মানুষদের এই দুটো জিনিস আছে। বিধায় তারা সভ্যতার ভিত্তিভূমি গড়ে তোলায় ভূমিকা রাখতে পারে। একথা মাথায় রেখে তাদের সম্মানার্থে লিখতে পারি- শ্রমজীবী মানুষদের শ্রম, ঘাম, মেধা ও মননে সভ্যতার ভিত্তিভূমি গড়ে উঠে। তবেই হয়তো শ্রমজীবী মানুষদের লেখার মাধ্যমে প্রকৃত মর্যাদা দান করা হয়েছে বলে মনে করা হবে।
এছাড়া আরো একটি ভাষা ব্যবহার হয়ে থাকে। কোন কোন লেখক শ্রমজীবী মানুষদের অধিকারের কথা লিখতে গিয়ে তাদের অবহেলিত অবস্থান সম্পর্কে জনমানুষকে অবগত করানোর জন্য লিখে থাকেন। এক শ্রেণির মানুষ মালিক, আর এক শ্রেণির মানুষ শ্রমিক। অর্থাৎ শ্রমিকের কর্মরত শিল্প কারখানার মালিকেরা শ্রমিকদের মালিক। এভাবে লেখার কারণে মানুষের মাঝে দুটো শ্রেণি বিভাগ তৈরি হয়ে যায় এবং মানুুষে মানুষে ছোট বড় ব্যবধান তৈরি হয়ে যায়। একটা উচ্চ শ্রেণি, অন্যটি নিম্নশ্রেণি। এর দ্বারা মানুষের কাছে মানুষকে ছোট করা হয়। মানুষে মানুষে শ্রেণি বৈষম্য তৈরি করা হয়। লেখার সময় লেখককে এই কথাটি ভাবনা চিন্তা করতে হবে। মানুষ কখনো মানুষের মালিক হতে পারে না। মানুষের মালিক মহান সৃষ্টিকর্তা। তার কাছে সব মানুষ সমান। মালিক আর শ্রমিক সম্পর্কে লিখতে হলে একথাই সামনে চলে আসে। তারা কেউ আরো মালিক নয়। একই শিল্পকারখানায় কাজ করার কারণে তারা সহকর্মী হতে পারে। শ্রমজীবী মানুষেরা যে শিল্প কারখানায় কাজ করে। এই কারখানার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকেই সাধারণতঃ মালিক হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। তিনি তার শ্রম, ঘাম, মেধা ও মনন খাটিয়ে কাজ করে একটি শিল্প কারখানা পরিচালনা করে থাকে। তারা যদি একটি শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠা করে পরিচালনার কাজ করার জন্য মালিক হতে পারে। তবে শ্রমিকরা কেন মালিক হতে পারে না। কারখানার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ যে শ্রম, ঘাম, মেধা ও মনন খাঁটিয়ে কাজ করে। শ্রমজীবী মানুষেরাও তাই করে। নিজেদের শ্রম, ঘাম, মেধা ও মনন খাটিয়ে কাজ করে শিল্প কারখানার কাক্সিক্ষত পণ্য উৎপাদন করে। যা বিক্রি করে শিল্প কারখানার মুনাফা হয়। শ্রমের বিচারে মালিকও শ্রমিক। শ্রমিকও শ্রমিক। একই শ্রমের বিনিয়োগের বিনিময়ে মালিক যেমন শিল্প কারখানার মালিকানা ভোগ করতে পারে। একই কারণে শিল্প কারখানার নূন্যতম একটা অংশের মালিকানা শ্রমিকেরাও ভোগ করতে পারে। কথিত মালিক ছাড়া যেমন শিল্প কারখানা চলে না। শ্রমিক ছাড়াও কোন শিল্প কারখানা চলতে পারে না। একই প্রতিষ্ঠানে তারা একে অপরের পরিপূরক। অর্থাৎ কথিত মালিক শ্রমিক দুই পক্ষের যৌথ পরিশ্রমেই একটি কারখানায় উৎপাদন হয়। এর মুনাফা থেকে রাষ্ট্র রাজস্ব খাতে অর্থ পেয়ে থাকে। এখানে রাষ্ট্রের রাজস্বখাত মজবুত করার জন্য দুই পক্ষেরই ভূমিকা রয়েছে। এই দুই পক্ষের আয় রোজগারের জন্যই রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংক শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার জন্য সহজ শর্তে ঋণ দেয়। এই টাকায় শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠা হবার কারণে শ্রমিকদের কর্মসংস্থান হয়। মালিকদেরও আয় উপার্জনের পথ তৈরি হয়। রাজস্ব খাতেও অর্থের সংস্থান তৈরি হয়। এই সব শিল্পকারখানায় উৎপাদনের জন্য যদি তিনটি খাতেরই অর্থের সংস্থান হয়। তাহলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ কিংবা কৃত্রিম দুর্যোগের সময়ে শুধুমাত্র শ্রমজীবী মানুষেরা অর্থ কষ্টে পড়বে কেন? যাদের হাতে মিল কারখানার চাকা চলে, দুর্যোগের সময়ে তাদের পেট চলে না কেন? দুর্যোাগের সময়ে কথিত মালিকদের খাদ্য পানীয়সহ কোন কিছুর জন্যই অভাব ভোগ করতে হয় না। কোন রকম দুশ্চিন্তা করতে হয় না। তারা ধানমন্ডি, গুলশান, বনানীর মতো অভিজাত এলাকায় বাড়ি করে বসবাস করে। একই প্রতিষ্ঠানে কাজ করে শ্রমিকেরা বস্তিতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বাস করে। দুর্যোগের সময়ে ভাতের চিন্তায় ঘরের পিলারে কিংবা ফ্লাইওভারের দেয়ালে মাথা ঠুকতে থাকে। কোন কোন শ্রমিককে বউ ছেলেমেয়ে নিয়ে আধপেটা খেয়ে কিংবা না খেয়ে থাকতে হয়। ভাতের চিন্তায় রাস্তায় নামতে হয়। ২০২০-২০২১ সালে করোনা অতিমারি দুর্যোগের সময়ে এই রকমটা দেখা গেছে। এর থেকে পরিত্রাণের জন্য রাষ্ট্রকে ভাবতে হবে। একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার জন্য প্রতিটি মালিককে রাষ্ট্র যে সহজ শর্তে ঋণ দেয়। এই ঋণ শুধুমাত্র মালিকদের জন্য নয়। শ্রমিকদের জন্যও দেয়া হয়। এই ঋণের অংশ থেকে শ্রমিকেরাও অধিকার পেতে পারে। একই প্রতিষ্ঠানে কাজের বিনিময়ে অর্জিত টাকায় কথিত মালিক শ্রমিক উভয় পক্ষ নিজেদের সংসার চালায়। শুধুমাত্র শ্রমজীবী মানুষেরা দুর্যোগের সময়ে অর্থ কষ্টে পড়ে যায়। এই সময়ে তাদের কোন কাজ থাকে না। কাজ না থাকা মানে তাদের মাসিক বেতনও নেই। বেতন নেই মানে স্বল্প আয়ের মানুষদের ঘরে খাবারও নেই। দুর্যোগের সময়ে এই বিপদ থেকে পরিত্রাণের কথা চিন্তা করে তাদের শিল্প কারখানার একটা নূন্যতম অংশের মালিক করে নেয়া যেতে পারে। একটি শিল্প কারখানার মালিক যেমন রাষ্ট্রের অধীন নাগরিক বা প্রজাতন্ত্রের প্রজা। শ্রমিকও তেমনি রাষ্ট্রের অধীন নাগরিক বা প্রজাতন্ত্রের প্রজা। শিল্প কারখানাটিও রাষ্ট্রের অধীন একটি প্রতিষ্ঠান। রাষ্ট্রীয় সুবিধা যেমন শিল্প কারখানাটি মালিকের জন্য পেয়ে থাকে এবং মালিক দায়বদ্ধ থাকে। শ্রমিকদের জন্যও শিল্প কারখানাটি রাষ্ট্রীয় সুবিধা পেয়ে থাকে এবং তারা নিজের কাজের মাধ্যমে দায়বদ্ধ থাকে। এসব বিষয়গুলোর বিবেচনা থেকে নিশ্চয় করে বলা যায়। দুর্যোগের সময়ে শিল্প কারখানাটি তার শ্রমিকদেরও দায়িত্ব নিতে হবে। এমনটা কোন পদ্ধতিতে হতে পারে। এই ব্যাপারে রাষ্ট্র, মালিক, শ্রমিক ত্রি-পক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে শ্রমিকদেরকে শিল্প কারখানার একটা অংশের মালিক করে নেয়া যেতে পারে। যেহেতু শ্রমিকদের ছাড়া শিল্প কারখানাটির চাকা অচল হয়ে পড়ে। সেহেতু এই দাবী অযৌক্তিক নয়। শ্রমিকদের অধিকার মালিকানা পাওয়া। এই মালিকানার বিনিময়ে শ্রমিকেরা নিয়মিত মাসিক পারিশ্রমিক ভোগ করার পরও তাদের নামে শিল্প কারখানার মুনাফার একটা অংশ থেকে শিল্প কারখানার একাউন্টে কিংবা রাষ্ট্র নির্ধারিত কোন ব্যাংকে জমা থাকতে পারে। যখন কোন দুর্যোগ দেখা দিবে, কোন কাজ থাকবে না। তখন শ্রমিককেরা তাদের শিল্প কারখানার মালিকানার অংশ থেকে মাসিক বেতনের সমপরিমাণ টাকা প্রতিমাসে উত্তোলন করতে পারবে। এই নিশ্চয়তা থাকলে তাদেরকে দুর্যোগের সময়ে ভাতের জন্য আর রাস্তায় নামতে হবে না। রাষ্ট্রকেও এদের জন্য কোন বাড়তি প্রণোদনা দেবার প্রয়োজন হবে না। এছাড়া এই নূন্যতম মালিকানার অংশ থেকে কর্মজীবন শেষে আজীবন অবসর ভাতা পাবারও সুযোগ থাকতে পারে। তাদের মালিকানা সত্ত্ব থেকে চিকিৎসা সুবিধাসহ অন্যান্য সুবিধাও পেতে পারে। তাদের শ্রম, ঘাম, মেধা মননের বিনিয়োগের জন্য তারা শুধুমাত্র শ্রমিক নয়; শিল্প কারখানার নূন্যতম একটা অংশের মালিক নিশ্চয় করে হতে পারে। যার কারণে তারা সুন্দর জীবনের জন্য নূন্যতম অংশের মালিক হয়ে অধিকার ভোগ করতে পারে। এই হোক শ্রমজীবী মানুষের অধিকারের প্রশ্নে ২০২২ সালের মে দিবসের প্রতিপাদ্য।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!