• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

পাকুন্দিয়ায় ঐতিহাসিক ঈশাখাঁর এগারসিন্দুর দুর্গটি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে হুমকির মুখে

# রাজন সরকার, পাকুন্দিয়া :-
এগারোটি নদ-নদীর মোহনা ছিল। এ কারনে নাম এগারসিন্দুর। এখানে রয়েছে একটি জলদুর্গ। মধ্যযুগীয় স্থাপনা এটি। স্থানীয়ভাবে এটি ঈশাখাঁর দুর্গ নামে পরিচিত। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর গ্রামে এর অবস্থান। এই প্রত্নসম্পদটি বর্তমানে অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। সরকারিভাবে প্রত্নতত্ত অধিদপ্তর প্রায় দেড় বছর আগে এই দুর্গটির খনন কাজ শেষে উন্মুক্ত রেখে চলে যায়।
ফলে অযত্ন, অবহেলা ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ঐতিহাসিক এই নিদর্শনটি আজ হুমকির মুখে পড়েছে। স্থানীয়দের দাবী, দুর্গটিকে দ্রুত সংরক্ষণের আওতায় এনে, এলাকাটিকে একটি পর্যটন এলাকা হিসেবে গড়ে তোলা। কিন্তু সঠিক পৃষ্টপোষকতার অভাবে তা হয়ে উঠছেনা।
পাকুন্দিয়া উপজেলা সদর থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অবস্থিত এ ঐতিহাসিক দুর্গটি। কালের আবর্তে দুর্গটি ধ্বংস হয়ে মাটির ঢিবিতে পরিণত হয়েছে। গত বছরের এপ্রিল মাসে প্রত্নতত্ত অধিদপ্তর খনন কাজ পরিচালনা করে দুর্গটির সন্ধান পায়। সে সময় দুর্গটি খনন করে পাওয়া গেছে প্রায় আড়াইশো পিস প্রাচীন তৈজসপত্রের নিদর্শন ও স্থাপত্য কাঠামোর ধ্বংসাবশেষ। উদ্ধার করা প্রত্নতত্তগুলোর মধ্যে রয়েছে জীবাশ্ম, প্রস্তর খন্ড, পোড়ামাটির হাড়ি-পাতিল, ঘটিবাটি, থালা, পিরিচ, মাটির কলসের ভাঙ্গা অংশ, তৈল প্রদীপ, প্রদীপদানি, অলঙ্কৃত ইট, ব্রেসলেট, হাতের বালা, সিরামিক, পোড়ামাটির বল, পুতুল, টয় প্রভৃতি। আরো মিলেছে ইটের তৈরি বর্গাকৃতির প্রতিরক্ষা দেওয়াল, জলাধার, চুন-সুরকির মেঝে ও ব্রিক সলিংয়ের নিদর্শন। এগুলো উদ্ধারের পর প্রত্নতত্ত বিভাগ ২০২২ সালের ৭ এপ্রিল দুর্গ এলাকায় এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এসব প্রদর্শন করে। ওই অনুষ্ঠানে প্রত্নতত্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রতন চন্দ্র পন্ডিত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সেখানে তিনি বলেছিলেন, শাহ গরীবুল্লাহর মাজার ঢিবিটি খনন করে পাওয়া প্রত্নতাত্তিক নিদর্শনগুলো ১০ থেকে ১১ শতকের। তিনি দুর্গটি পরিদর্শনকালে এলাকাবাসির দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয়ের সাথে কথা বলে এলাকাটিকে পর্যটন এলাকা হিসেবে ঘোষনা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু খনন কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ার দেড় বছর পেরিয়ে গেলেও এর কোন অগ্রগতি হয়নি।
বাংলা পিডিয়ায় উল্লেখ করা হয়েছে, কোচ উপজাতি প্রধান বেবুধ দুর্গটি নির্মাণ করে এটিকে তাঁর রাজধানী বানান। এখানে একটি পুরোনো দিঘী রয়েছে। যাকে বেবুধ রাজার দিঘী বলা হয়। বারো ভূইয়াদের নেতা ইশাখাঁ দুর্গটি দখল করেছিলেন। তিনি দুর্গটিকে সংস্কার করে একটি শক্তিশালী সামরিক ঘাটিতে উন্নীত করেন। ৫৮৯ খ্রীস্টাব্দে মানসিংহ দুর্গটি আক্রমন করেন। কিন্তু যুদ্ধে পরাজিত হয়ে ঈশাখাঁর সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করে তিনি দিল্লিতে ফিরে যান। সতেরো শতকের শুরুর দিকে অহম’রা দুর্গটি দখল করেন। ইসলাম খাঁ তাদের পরাজিত করে দুর্গটি ধ্বংস করেন। ১৮৯৭ সালের বিধ্বংসী ভূমিকম্পে ধ্বংসপ্রাপ্ত এই দুর্গের অবশিষ্টাংশও নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়।
সম্প্রতি সরেজমিনে দুর্গ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, প্রাচীন মাটির একটি ঢিবি ও চৌকোনা ইটের ভাঙ্গা স্তুপ। দুর্গ চত্বরে প্রাচীন ইটের কংক্রিট, মৃৎ পাত্রের ভাঙ্গা অংশসহ নানা প্রত্নতাত্তিক নিদর্শন ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে। এর উপরিভাগের পূর্ব পাশে কবর সদৃশ্য পাকা একটি স্থাপনা। স্থানীয়রা জানায়, এটি শাহ গরীবুল্লাহ আওলিয়ার মাজার হলেও স্থাপনাটিকে এলাকায় ঈশাখাঁর দুর্গ নামেই ডাকে। দুর্গ ঘেঁসে পূর্ব ও পশ্চিম পাশে দুইটি পুকুর। কিছুটা দূরে রয়েছে মরা শঙ্খ নদ। সে সময় প্রত্নতত্ত অধিদপ্তর শুধু সাইনবোর্ড পুতে এলাকাটিকে সংরক্ষিত এলাকা হিসেবে ঘোষনা করে। কিন্তু চারদিকে নির্মান করা হয়নি কোনো বাউন্ডারি দেওয়াল কিংবা কোনো কাঁটা তারের বেড়া। তবে ওই সাইনবোর্ডটিও এখন আর চোখে পড়ে না।
এদিকে ঐতিহাসিক এ দুর্গ এলাকাটি দেখতে প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা থেকে পর্যটকরা আসেন। কিন্তু সম্ভাবনাময় এই পর্যটন এলাকাটিতে পর্যটকদের জন্য কোনো রেস্টুরেন্ট ও বিশ্রামাগারের ব্যবস্থা নেই। ফলে পর্যটকদের পড়তে হয় বিড়ম্বনায়।
পার্শ্ববর্তী কাপাসিয়া উপজেলা থেকে এ দুর্গটি দেখতে আসেন আবুল কালাম নামে একজন তরুন। তিনি বলেন, এলাকাটি দেখতে খুবই সুন্দর। জায়গাটি খুবই ভালো লেগেছে। কিন্তু এখানে নিরাপত্তার কোন ব্যবস্থা নেই। নেই কোন রেস্টুরেন্ট বা বিশ্রামাগার। দুর্গটির উন্নয়ন ও পর্যটকদের জন্য সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হলে এখানে দর্শনার্থীদের যাতায়াত আরো বৃদ্ধি পাবে।
এগারসিন্দুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুজ্জামান বাবু বলেন, হাজার বছরের প্রাচীন এগারসিন্দুর দুর্গটি খননের পর অরক্ষিত অবস্থায় ফেলে রেখেছে। সংরক্ষণ না করায় ধ্বংসের পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। অবিলম্বে এটি সংরক্ষণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোড় দাবি জানাচ্ছি।
প্রত্নতত্ত অধিদপ্তর, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক আফরোজা খান মিতা বলেন, দুর্গটি সংরক্ষণের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলায় প্রত্নসম্পদের জরিপের কাজ চলছে। জরিপ শেষে যেসব প্রত্নসম্পদের গুরুত্ব বেশি সেগুলোর সংরক্ষণের কাজ আগে করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *