• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভৈরবে এতিম ও গরীব শিশুদের সুন্নাতে খাৎনা বিএডিসির দূরত্ব বিধান অমান্য করে প্রতিবেশির সেচের সীমায় সেচ প্রকল্প হোসেনপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড ও ডিজিটাল সনদ বিতরণ কিশোরগঞ্জের ঈশাঁখা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা কিশোরগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসে গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কার্যালয়ে শোকসভা তাড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচন করার বিধানের রিট খারিজ কুলিয়ারচরে রাস্তার পাশে ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এক বাড়িতে হামলা, আহত ৩ কিশোরগঞ্জে অশোক-ঝুমু স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা কিশোরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজা নিয়ে ৬ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

নদী বন্দর ভৈরবে রক্তাক্ত নববর্ষ

অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ

১৩৭৮ সালের পহেলা বৈশাখ। প্রতিটি বাঙালির জীবনে এই পহেলা বৈশাখের গুরুত্ব সমধিক। ব্যবসা বাণিজ্যের পাদপীঠ হিসেবে ভৈরবে এই পহেলা বৈশাখের গুরুত্ব অনেক বেশি। এই দিনে ব্যবসায়ীদের ঘরে ঘরে অনুষ্ঠিত হয় “শুভ হালখাতা” অনুষ্ঠান। বৎসরান্তে হিসাব-নিকাশ করা হয় এই দিনে। এই দিনকে বরণ করার জন্য প্রতিটি দোকান ও গদী ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করা হয় আগের দিন। পরিচ্ছন্ন জামা কাপড় পরে ব্যবসায়ীরা বসেন গদীতে। হিন্দু ব্যবসায়ীরা ধুপদোনা ও মঙ্গলঘট সাজিয়ে নতুন হিসাবের খাতা খুলেন। আর মুসলমান ব্যবসায়ীরা মিলাদের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করেন হাল সনের। তারপর ঘরে ঘরে মিষ্টি খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। দলে দলে আসেন খরিদ্দার ও পাইকার। বিগত বছরের বাকি বকেয়া পরিশোধঅন্তে মিষ্টি মুখ করে ফিরে যায় যার যার মোকামে। আবহমান কাল ধরে ভৈরব বাজারের ব্যবসায়ীরা এমনি ধারায় নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে এসেছে। এর কোন ব্যতিক্রম ঘটে নাই কোন কালে। কিন্তু এবারই ঘটলো ভিন্ন রকম ঘটনা। কারণ, পাকিস্তানিরা একটা সশস্ত্র যুদ্ধ চাপিয়ে দিল বাঙালিদের উপর। সারাদেশ ও জাতি স্বাধীনতার অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষা নিয়ে এগিয়ে চলছে। চারিদিকে চলছে মরণপণ লড়াইয়ের প্রস্তুতি। মিছিল, শ্লোগান, হরতাল ও অসহযোগ আন্দোলনের সিঁড়ি বেয়ে মুক্তির সংগ্রাম শুরু হলো। স্বাধীনতার জন্য সারা জাতি পাগলপারা হয়ে উঠলো। বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ঘরে ঘরে চলছে তারই সর্বাত্মক প্রস্তুতি। গতকাল ছিল চৈত্রসংক্রান্তি। কিন্তু নববর্ষকে বরণ করার কোন প্রস্তুতি ছিল না ভৈরবে। শত বছরের ইতিহাসে এমন ঘটনা ঘটে নাই কখনও। ১ এপ্রিলের পর থেকে প্রতিদিন ভৈরবের মানুষ পাকবাহিনীর আক্রমণের আশঙ্কা করতে থাকে। ১১ এপ্রিল থেকে বহুদূরে নরসিংদীর দিকে কামান দাগার শব্দ শোনা যাচ্ছে। ভয় ও আতঙ্কে মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাতে শুরু করেছে। ২৫ মার্চে ঢাকায় ধ্বংসযজ্ঞ ও গণহত্যার পর মানুষ আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। তদুপরি ১ এপ্রিল পাকিস্তানি ৪টি বোমারু বিমান ভৈরবের উপর দিয়ে উড়ে গিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বোমা বর্ষণ করে। আক্রমণের লক্ষ্য ছিল ভৈরবই। কারণ, আগের রাতে ক্যাপ্টেন নাসিমের নেতৃত্বে বেঙ্গল রেজিমেন্টের একদল সৈনিক ভৈরবে এসে গার্লস হাই স্কুলে ক্যাম্প স্থাপন করেছে। বাঙালি সৈনিকের এই দলটি গত ১৯ মার্চ ঢাকার অদূরে জয়দেবপুর অস্ত্র কারখানায় পাকবাহিনীর সঙ্গে লড়াই করে বেরিয়ে আসে। মেজর সফিউল্লাহর নেতৃত্বে ওরা বিদ্রোহ করেছিল। ময়মনসিংহ ঘুরে ওরা ট্রেন যোগে ভৈরবে এসেছিল গভীর রাতে। ভৈরবে ওদের উপস্থিতির সংবাদ সঙ্গে সঙ্গেই ঢাকা ক্যান্টেনমেন্টে পৌঁছে যায়। তারই ফলশ্রুতিতে বিকাল ৫টায় ভৈরবের উপর এই বিমান হানা। হামলা হলেও তেমন সুবিধা করতে পারে নাই পাকিস্তানিরা। বিমানগুলো লক্ষ্য করে বেঙ্গল রেজিমেন্টের এল,এম,জি গর্জে উঠলো। ব্রাশফায়ার করা হলো কড় কড় কড় শব্দে। অশ্রুতপূর্ব এই বিকট শব্দে ভৈরববাসী সচকিত হয়ে উঠলো। এম.পি গার্লস হাই স্কুলের সামনে অবস্থিত হাজী হাফিজ উদ্দিন মিয়ার দালানের ছাদ থেকে গুলি ছোঁড়া হয়। গুলির শব্দে এবং বোমাতঙ্কে মানুষ শুয়ে পড়ে মাটিতে। অনেকে দিশেহারা হয়ে ছোটাছুটি শুরু করে দেয়। ভীতসন্ত্রস্ত মানুষ কেউ জঙ্গলে, কেউ গর্তে লুকাবার চেষ্টা করে। অত্র অঞ্চলের মানুষ এই প্রথম আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রের ব্রাশফায়ারের আওয়াজ শুনতে পায়। ইতোপূর্বে এরূপ শব্দের সঙ্গে পরিচিতি ছিলনা কারও। ১ এপ্রিলের এই ঘটনার পর থেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কর্তৃক একটা বিরাট আক্রমণের আশঙ্কায় পৌরবাসী মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে উত্তরাঞ্চলের গ্রামগুলোতে আশ্রয় নিতে থাকে। ভৈরব বাজার, ভৈরবপুর ও কমলপুরের বেশির ভাগ মানুষ আশ্রয় নেয় শিবপুর ইউনিয়নের শম্ভুপুর, রঘুনাথপুর, কৃষ্ণনগর ও জামালপুর গ্রামে। চন্ডিবের ও কালীপুরের মানুষ আশ্রয় নেয় শিমুলকান্দি ইউনিয়নের গোছামারা, মধ্যেরচর, চানপুর, রাজাকাটা ও রাজনগর গ্রামে। ঘোড়াকান্দা, পঞ্চবটি, জগন্নাথপুর ও লক্ষ্মীপুরের মানুষ আশ্রয় নেয় ব্রহ্মপুত্র নদের ওপারে রায়পুরা ও বেলাব থানার বিভিন্ন গ্রামে। ইতোমধ্যে ১০ এপ্রিল প্রতিবেশী দেশ ভারতে স্বাধীন বাংলার প্রবাসী সরকার গঠন করা হয়ে গেছে। ১৩ এপ্রিল ছিল বুধবার। ভৈরবের ঐতিহ্যবাহী সাপ্তাহিক হাটের দিন। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হাট এটি। এ অঞ্চলে
এমন প্রসিদ্ধ হাট কমই আছে। হাটের দিন ভৈরব বাজারে দেখা যায় শুধু মানুষ আর মানুষ। মানুষে গিজগিজ করে এই হাট। অত্যন্ত জনাকীর্ণ এই হাট এবার জমলো না। আবহমানকাল ধরে ঝড়, বৃষ্টি এমনকি সর্বগ্রাসী বন্যাতেও যথা নিয়মে বসেছে এ হাট। শত বছরের ইতিহাসে এই প্রথম বুধবারে ভৈরবে হাট বসে নাই। আবার সেদিনটি ছিল ব্ল্যাক আউট’। শত্রু বিমান হামলার ভয়ে নিপ্রদীপ রজনী’। বিদ্যুত বিহীন ভৈরব বাজার সংলগ্ন ভৈরবপুর গ্রামের অবস্থাও ছিল তথৈবচ। তবে এই গ্রামটি একেবারে জনশূন্য হয় নাই। প্রতিদিন শতাধিক লোকের কর্ম কোলাহলে পরিপূর্ণ থাকতো যে বাড়ি, সে বাড়িতে জন বসতির অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছিল মাত্র দু’চার জন পুরুষ। প্রত্যেক বাড়ির ছেলে মেয়ে এবং রোগীদের সরিয়ে দেওয়া হয়। সমর্থ পুরুষ-মহিলারা চলে যায় বাড়ি ঘর ফেলে। সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত হলো। অন্ধকার ক্রমেই ঘনিভূত হলো। অমাবশ্যার অতল অন্ধকারে সমগ্র পৌর এলাকা হারিয়ে গেলো। লোকজন সব বাধ্য হয়ে নিদ্রাদেবীর কোলে ঠাই নিল রাত গভীর হওয়ার আগেই। মনে হলো গোটা ভৈরব শহরটি যেন একটা মৃতপুরী। নেমে এলো কবরের নিস্তব্ধতা চারিদিকে। রাত পোহালেই পহেলা বৈশাখ। নতুন সূর্যোদয় ১৩৭৮ সালের শুভ সূচনা ঘোষণা করবে। এবারের নববর্ষ বাঙালির জীবনে কি সওগাত বয়ে আনবে জানি না। রাত প্রভাত হয়ে এলো। ঊষার বাতাসে নিশার প্রদীপ নিভে গেল। এমন সময় পাখি ডেকে উঠলো ‘গেল বিভাবরী’ বলে। তখনও সবাই নিদ্রা মগ্ন। নববর্ষের নতুন সূর্যোদয় তখনও হয় নাই। হঠাৎ ভয়াল গর্জনে ধরণি কেঁপে উঠলো। মনে হলো যেন সমস্ত আকাশটাই ভেঙ্গে পড়েছে মাটিতে। মহাপ্রলয়ের বিকট শব্দে সবাই জেগে উঠলো, দরজা খুলে সবাই বের হয়ে এলো। বাইরে এসে সবাই তাকালো উধ্বাকাশে। উপরে তাকিয়ে দেখলো ভৈরবের আকাশ শত্রুর দখলে। এক ঝাঁক জঙ্গি বিমান একত্রে তুমুল গর্জনে ডিগবাজি খাচ্ছে আর মেশিন গানের সাহায্যে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়ছে ভৈরবের জনপদের উপর। গগন ফাটানাা বিকট শব্দে কানের পর্দা ফেটে যাওয়ার উপক্রম। বিমান আক্রমণ থেকে নিজকে বাঁচাবার জন্য মানুষ উদ্রান্তের মতো ছুটছে। দিগ্বিদিক জ্ঞান হারিয়ে সমস্ত মানুষ দিশেহারা। নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটে চলছে মানুষ। মানুষ ছুটছে শহর ছেড়ে গ্রামের দিকে। স্রোতের মত মানুষ ছুটছে আর ছুটছে। কারও প্রতি কারও ফিরে তাকাবার সময় নেই। অন্যদিকে ভৈরবের উত্তর পূর্বাঞ্চলের গ্রাম গুলোর মানুষ ঘুম থেকে উঠেই দেখতে পেল ভৈরব বাজারের আকাশে বিমান আক্রমণের ভয়াবহ দৃশ্য। ঐসব অঞ্চলে আশ্রিত পৌরবাসী নর-নারী গভীর উৎকণ্ঠা নিয়ে চেয়ে দেখলো তাদের সদ্য ফেলে আসা প্রিয় বসত বাড়িগুলোর উপর পাক বিমান বাহিনীর নগ্ন হামলা। মানুষ যে মানুষের সৃষ্ট মরণাস্ত্রের কাছে কত অসহায় সেদিন ভৈরববাসী হাড়ে হাড়ে টের পেলো। আকাশের দিকে তাকিয়ে সেদিন অনেকেরই চোখে জলের ধারা নেমে এসেছিল। সমস্ত মানুষের দৃষ্টি যখন নিবদ্ধ ভৈরব বাজারের দিকে, ঠিক তখনি সকলের দৃষ্টির বিপরীতে একান্ত অপ্রত্যাশিত ভাবে ছত্রীসেনা নামিয়ে দেয়া হলো হেলিকপ্টারের সাহায্যে। সবার দৃষ্টি ছিল দক্ষিণ পশ্চিম দিকে। আর কমান্ডো বাহিনী নামলো উত্তর পূর্ব দিকে। সবার ধারণা ছিল প্রথমে মিলিটারি আসবে ভৈরব বাজারে। অথচ কমান্ডো বাহিনী নামলো শিমুলকান্দি বাজারের পশ্চিম দিকের মাঠে। এমনটি কিন্তু কেউ কল্পনাও করে নাই। সবাই জানতো নদী পথেই শত্রু আসবে। কারণ ঢাকার সঙ্গে ভৈরবের সড়ক পথে কোন যোগাযোগ নেই। যোগাযোগের মাধ্যম একমাত্র রেলপথ। ২৫ মার্চের পর তাও বন্ধ হয়ে গেছে। মুক্তিপাগল জনতা রেল লাইন তুলে নিয়ে গেছে। ঢাকা থেকে মিলিটারি আসতে চাইলে নৌপথ ছাড়া বিকল্প নেই। অনেকের ধারণা, দক্ষিণ দিক থেকে মেঘনা নদী দিয়েই আক্রমণটা আসবে। আবার কেউ কেউ মনে করলো, সড়ক পথে নরসিংদী এসে রেল লাইনের পাশ ঘেঁষে পদব্রজে এগিয়ে আসতে পারে। কিন্তু আকাশ পথে আক্রমণ করে হেলিকপ্টার দিয়ে সেনা নামিয়ে দিবে এমনটি কেউ ভাবে নাই। ভৈরব বাজারকে শত্রুর আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য কতিপয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। প্রথমত নদীপথের আক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য লালপুর বাজারের সন্নিকটে মেঘনা নদীর তীরে বালুর চরে একটা রক্ষাব্যুহ তৈরি করা হয়েছে। নদীপথে দক্ষিণ দিক থেকে সম্ভাব্য হামলার মোকাবেলা করবে এই ডিফেন্স’। দ্বিতীয়ত রেলপথের আক্রমণ প্রতিরোধের জন্য রামনগরের কাছে ব্রহ্মপুত্র ব্রীজের গোড়ায় আরও একটি ডিফেন্স তৈরি হলো। পশ্চিম দিক থেকে স্থলপথে আসা শত্রুকে ঠেকাবে এই রামনগর ডিফেন্স। এই উভয় ডিফেন্সকে নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব নিয়েছে আশুগঞ্জ ক্যাম্প। ঢাকার জয়দেবপুর থেকে পালিয়ে আসা বেঙ্গল রেজিমেন্টের কিছু সৈনিক ক্যাপ্টেন নাসিমের নেতৃত্বে আশুগঞ্জে অবস্থান গ্রহণ করেছে ২ এপ্রিল থেকেই। তাদের কাছে ইতোমধ্যেই ভৈরবের কিছু ছাত্র-যুবক ট্রেনিং নিয়েছে। মাত্র সপ্তাহ খানেকের প্রশিক্ষণ। অর্থাৎ রাইফেল ও গ্রেনেড সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা পেয়েছে। মাত্র ৭ দিনের এই ট্রেনিং সম্বল করে সামান্য কয়টা গাদা রাইফেল নিয়ে ভৈরবের ছেলেরা পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনীর মোকাবেলা করতে এগিয়ে যায়। পুলিশ ও আনসারদের কাছ থেকে এই সব থ্রি-নট-থ্রি রাইফেলগুলো সংগ্রহ করা হয়েছিল। অপরদিকে দা, বল্লম, লাঠি, সড়কি ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিচ্ছে কৃষক-শ্রমিক-ছাত্র-জনতা। প্রতিদিন প্রতিরোধের অগ্নি মশাল নিয়ে জঙ্গি মিছিল হচ্ছে ভৈরবে। প্রতিবাদী এই মিছিলের ভাবখানা এইরূপঃ- এই মুহূর্তে খানসেনাদের সামনে পেলে কচুকাটা করে ফেলা হবে। মুক্তিযােদ্ধাদের খাদ্য ও রসদ সরবরাহের দায়িত্ব নিয়েছে সর্বদলীয় প্রতিরোধ কমিটি।
শত্রুর মোকাবেলা করার জন্য যখন চতুর্দিকে সাজ-সাজ রব, ঠিক তখনই পাকবাহিনী হেলিকম্পটারের সাহায্যে কমান্ডো নামিয়ে দেয় বাঁশগাড়ি ও মধ্যেরচর গ্রামের পূর্ব দিকের মাঠে। আধুনিক প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কমান্ডোদের হাতে আছে অত্যাধুনিক স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র। এসব অস্ত্র সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ মানুষ উত্তেজিত ও বিক্ষুব্ধ হয়ে মারমুখী ভূমিকা গ্রহণ করে। তারা ‘জয় বাংলা’ বলে ঝাঁপিয়ে পড়লো কমান্ডোদের উপর। হাতে তাদের দেশি অস্ত্র। সঙ্গে সঙ্গে পাক সেনার মেশিনগান গর্জে উঠলোঃ ‘ট্রা-ট্রা-ট্রা-ট্রা শব্দে। গগনফাটা চিৎকার দিয়ে সামনের কয়েকটি প্রতিবাদী কণ্ঠ স্তব্ধ হয়ে গেল চিরতরে, ব্রাশফায়ারে লুটিয়ে পড়লো মাটিতে। মুক্তিকামী কতিপয় বঙ্গ সন্তানের এই মর্মান্তিক পরিণতি দেখে উত্তেজিত জনতা রণেভঙ্গ দিয়ে পিছনে হটে যায়। পাকবাহিনীর এই অপ্রত্যাশিত অবতরণ ও অতর্কিত গুলি বর্ষণে নিরস্ত্র গ্রামবাসী ও গ্রামে আশ্রিত পৌরবাসী নারী পুরুষ দিগ্বিদিক জ্ঞান শূন্য হয়ে পাগলের মত ছুটতে থাকে পশ্চিম দিকে। প্রাণ বাঁচাবার তাগিদে ছুটতে ছুটতে মানুষ শেষ পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে হালগড়া খেয়াঘাটের কাছে পানাউল্লারচরে গিয়ে আটকা পড়ে। শুধু নদীটা পার হতে পারলেই রক্ষা। তা না হলে বাঁচার আর কোন উপায় নেই। হাজার হাজার ভয়ার্ত নর-নারী ও শিশু একটি মাত্র খেয়া দিয়ে পার হওয়া মোটেই সম্ভব ছিল না। এমতাবস্থায় বিপন্ন মানুষদের উদ্ধার করতে এগিয়ে এলো ওপারের গ্রাম ইব্রাহিমপুরের জনসাধারণ। বেশ কয়টি নৌকা নিয়ে পারাপার শুরু করে দিল। এত বিপুল সংখ্যক মানুষ উদ্ধার করা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তবু তাদের আন্তরিকতার অভাব ছিল না। প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ওরা। ইতোমধ্যে হেলিকপ্টার থেকে অবতরণ করে পাকবাহিনী সামরিক কায়দায় পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে থাকে। মাঠ পেরিয়ে গ্রাম। প্রথমে মধ্যেরচর গ্রামের ভিতর দিয়ে সামনে এগিয়ে যায়। গ্রামের কাঁচা রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় পাকবাহিনী স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের সাহায্যে এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে থাকে। বহু পথচারী প্রাণ হারায় তাদের নির্বিচার গুলিতে। শুধু গুলি চালিয়ে ওরা ক্ষান্ত হয় নাই। পথের দু’ধারে জন বসতিতে GUN POWDER ছড়িয়ে আগুন ধরিয়ে দিতে থাকে। দেখতে দেখতে আগুনের লেলিহান শিখায় কৃষকদের ঘর বাড়িসহ সর্বস্ব পুড়ে ছারখার হয়ে যায়। কারণ, আগুন নিভানোর কোন মানুষ নেই গ্রামগুলোতে। হানাদার পাকবাহিনী গ্রামগুলোতে ঢোকা মাত্র নিমিষেই গ্রাম খালি হয়ে যায়। প্রাণের ভয়ে নারী-পুরুষ-শিশু সকলেই গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যায়। যারা পালাতে পারেনি তারা লুটিয়ে পড়ে বর্বর পাকসেনাদের আগ্নেয়াস্ত্রের গুলিতে। পৈশাচিক উল্লাসে পাকবাহিনী কৃষ্ণনগর,শিবপুর গ্রাম অতিক্রম করে ঘণ্টা খানেকের মধ্যে শম্ভুপুর গ্রামের উপর দিয়ে প্রবাহিত ভৈরব-ময়মনসিংহ রেল লাইনে এসে উপস্থিত হয়। এতক্ষণ তারা এই রেল লাইনেরই সন্ধান করছিল মানচিত্র দেখে। এখন এই লাইন ধরে হেঁটে হেঁটে ভৈরব রেল স্টেশনের দিকে যাবে ওরা। পথ চিনতে আর ভুল হবে না ওদের। রেল লাইনে এসে আবার মানচিত্রটা মেলে ধরলো। সোজা দক্ষিণ দিকে মাইল খানেক হাঁটলেই ভৈরব বাজার রেলওয়ে জংশন। রেল লাইনের পাশ ঘেঁষে পায়ে হেঁটে যাত্রা করলো ভৈরবের দিকে। ঠিক এমন সময় পশ্চিম দিকে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপারে একটা গুলির শব্দ শোনা গেল। হেলিকপ্টার লক্ষ করে জনৈক অতি উৎসাহী ছাত্রনেতা সাধারণ রাইফেল দিয়ে গুলি ছোড়ে। গুলির শব্দে পাকবাহিনীর ধারণা হলো নদীর ওপারে নিশ্চয় শত্রু বাহিনী ঘাপটি মেরে আছে। কাজেই অতি সাবধানে মাঠের উপর দিয়ে ক্রলিং করে পাকবাহিনী পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়। বহু চড়াই উত্রাই পেরিয়ে শেষ পর্যন্ত পাক বর্বর মিলিটারি বাহিনী ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে এসে উপস্থিত হয়। সাক্ষাৎ যমের সামনে পড়ে অসংখ্য নর নারী সন্তান কোলে নদীতে ঝাঁপ দিল। যারা সাঁতার জানে না তাদের অনেকের সলিল সমাধি হয়। প্রাণভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত মানুষগুলোর উপর আদিম হিংস্রতায় ঝাঁপিয়ে পড়লো পাকিস্তানি নরপশুরা। দিশেহারা হয়ে যারা এদিক সেদিক ছোটাছুটি শুরু করলো প্রথমেই তাদের স্তব্ধ করে দেয়া হলো মেশিনগানের ব্রাশফায়ারে। তারপর নদী থেকে উঠিয়ে এনে বিপন্ন মানুষদের ক্ষেতের আইলে বসিয়ে পাখির মত গুলি করে মারা হলো। এমনি করে হালগড়া খেয়াঘাটের কাছে পানাউল্লারচরে সংঘটিত হলো এই নৃশংস হত্যাযজ্ঞ। শতশত মুক্তিকামী নিরস্ত্র মানুষের রক্তে ব্রহ্মপুত্র নদের ঘোলা পানি লাল হয়ে উঠলো। পৃথিবীর ইতিহাসে এ ধরনের নৃশংসতা এবং বর্বরতার দ্বিতীয় কোন উদাহরণ খুঁজে পাওয়া যাবে না। পানাউল্লারচরের উন্মুক্ত প্রান্তরে বেদনাবিধূর মাতাল হাওয়ায় কারবালার মাতম শুরু হয়ে গেলো। পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের দুই কূলে মর্সিয়া শোনা গেলো ঃ হায়রে স্বাধীনতা ! হায়রে নববর্ষ!!


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!