• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে বিপদাপদ : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে বিপদাপদ
সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পরিচয় : বিপদাপদ অতি পরিচিত একটি বিষয়। পৃথিবীর সকল মানুষই বিপদাপদের সম্মুখীন হয়। যেমন- কেউ আর্থিকভাবে বিভিন্ন ক্ষতির মধ্যে পড়ে বিপদের সম্মুখীন হয়, কেউ বা ফল বা ফসলের ক্ষতির মাধ্যমে বিপদের সম্মুখীন হয়, আবার কেউ শারিরিক ক্ষতি তথা অসুস্থতা, কোন অঙ্গহানি হওয়া, কোন দুর্ঘটনার শিকার হওয়া কিংবা কোন নিকট আত্মীয়ের মৃত্যুর মাধ্যমে বিপদের সম্মুখীন হয়। এছাড়াও আরো বিভিন্নভাবে মানুষ বিপদাপদের সম্মুখীন হয়ে থাকে।
বিপদের প্রকার: বিপদাপদ কয়েক ধরণের হয়ে থাকে। যেমন-
(১) গুনাহের শাস্তি স্বরূপ।
(২) পরীক্ষা স্বরূপ।
(৩) আল্লাহর রাস্তায় সঠিকভাবে দাওয়াতী কাজ করার দরুণ বিভিন্ন বিপদাপদ ইত্যাদি।
গুনাহের শাস্তি স্বরূপ যেই বিপদ আসে তার ব্যপারে মহান আল্লাহ বলেন, তোমাদের যে বিপদাপদ ঘটে তাতো তোমাদেরই কৃতকর্মের ফল (অর্থাৎ তোমাদের পাপের কারণেই তা হয়) এবং (আল্লাহ এমন ক্ষমাশীল ও দয়ালু যে) তোমাদের অনেক অপরাধ তিনি ক্ষমা করে দেন। (অর্থাৎ মানুষকে তাদের কৃতকর্মের জন্য শাস্তি দিলে ভূপৃষ্ঠের কোন জীব জন্তুকেই দিতেন না। কিন্তু তিনি সকল অপরাধের শাস্তি দেন না বরং অনেক অপরাধই ক্ষমা করে দেন।) (সূরাহ শুরা: ৩০)
আনাস (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, যখন আমার উম্মত নেশাদার দ্রব্য পান করবে, গায়িকাদের নিয়ে নাচ-গানে মত্ত হবে এবং বাদ্যযন্ত্র নিয়ে ব্যস্ত হবে তখন অবশ্যই তিনটি ভয়াবহ বিপদ নেমে আসবে- (১) বিভিন্ন এলাকায় ভূমি ধসে যাবে। (২) উপর থেকে অথবা কোন জাতির পক্ষ থেকে যুলুম-অত্যাচার চাপিয়ে দেওয়া হবে। (৩) অনেকের পাপের দরুণ আকার-আকৃতি বিকৃত করা হবে। (সিলসিলাতুছ ছহীহাহ: ১৬০৪)
উল্লেখিত আয়াত এবং হাদীস থেকে বুঝা যায় যে, বেশিরভাগ বিপদাপদই মানুষের কৃতকর্ম বা গুনাহের কারণেই এসে থাকে।
পরীক্ষা স্বরূপ যে বিপদাপদ আসবে তার ব্যপারে মহান আল্লাহ বলেন, এবং নিশ্চয়ই আমি তোমাদেরকে ভয়, ক্ষুধা, ধন, প্রাণ এবং ফল-ফসলের দ্বারা পরীক্ষা করব; এবং ঐ সব ধৈর্যশীলদের সুসংবাদ প্রদান কর- যাদের উপর কোন বিপদ নিপতিত হলে তারা বলে, নিশ্চয়ই আমরা আল্লাহরই জন্য এবং নিশ্চয়ই আমরা তাঁরই দিকে প্রত্যাবর্তনকারী। (সূরাহ বাক্বারাহ: ১৫৫,১৫৬)
এখান থেকে বুঝা যায় যে, সামান্য ভয়-ভীতি, কিছু ক্ষুধা, কিছু ধন-মালের ঘাটতি, কিছু প্রাণের হ্রাস অর্থাৎ নিজের ও অপরের, আত্মীয়-স্বজনের এবং বন্ধু-বান্ধবের মৃত্যু, কখনও ফল এবং উৎপাদিত শস্যের ক্ষতি ইত্যাদি দ্বারা আল্লাহ তায়ালা বান্দাদেরকে পরীক্ষা করেন। এতে ধৈর্যধারণকারীদের তিনি উত্তম প্রতিদান দেন আর অসহিষ্ণু, তাড়াহুড়াকারী এবং নৈরাশ্যবাদীদের উপর শাস্তি অবতীর্ণ করেন।
তৃতীয় প্রকার বিপদ যা আল্লাহর রাস্তার দাঈদের উপর এসে থাকে এ ব্যাপারে আমাদের সামনে অনেক প্রমাণ রয়েছে। আল্লাহর দিকে আহবান করার কারণে ইবরাহীম (আ.) কে জ্বলন্ত আগুনে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। মূসা (আ.) ও তাঁর জাতি ফেরাউনী যুলুম-অত্যাচারের শিকার হয়েছিল। ইলিয়াস (আ.) কে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। আল্লাহর নবী ঈসা (আ.) কেও তৎকালীন রোম সম্রাট ছাতিয়ূনুস- এর নির্দেশে গ্রেফতার ও হত্যা করার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। এরকমভাবে বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) ও আল্লাহর দিকে মানুষদেরকে আহবান করার কারণে বিভিন্ন বিপদাপদের সম্মুখীন হয়েছেন। তাঁকে নিয়ে হাসি-তামাশাও ঠাট্টা-বিদ্রƒপ করা হয়েছে। তাঁর উপর মিথ্যা অপবাদ দেওয়া হয়েছে। তাঁর সাথে সমাজের মানুষ বয়কট করেছে। দীর্ঘদিন পর্যন্ত অবরুদ্ধ অবস্থায় তাঁকে জীবন কাটাতে হয়েছে। তাঁর সারা শরীর থেকে রক্ত ঝরানো হয়েছে। এমনকি তাঁকে হত্যা করার জন্য কয়েকেবার চেষ্টাও করা হয়েছে।
উল্লেখিত আলোচনা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, আল্লাহর রাস্তায় সঠিকভাবে দাওয়াতী কাজ করলেও বিভিন্ন বিপদাপদের সম্মুখীন হতে হয়।
বিপদে করণীয়: প্রথম প্রকার বিপদ যা গুনাহের শাস্তি স্বরূপ এসে থাকে তা থেকে বাঁচার জন্য অবশ্যই সকল ধরণের কুফর, শিরক ও বিদআতসহ যাবতীয় পাপ বর্জন করতে হবে। দ্বিতীয় প্রকার বিপদ যার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা তাঁর বান্দাদেরকে পরীক্ষা করে থাকেন তা আসবেই। তাই বিপদে ধৈর্যধারণ করে তা থেকে উদ্ধার হওয়ার জন্য সঠিকভাবে চেষ্টা করতে হবে এবং আল্লাহর কাছে দোআ করতে হবে। আর তৃতীয় প্রকার বিপদ যা আল্লাহর রাস্তার সঠিক দাঈদের উপর আসে, তা আসাও স্বাভাবিক একটি বিষয়। এই ক্ষেত্রে দাওয়াতী কাজের উপর অটল থেকে বিপদ মুক্তির জন্য আল্লাহর নিকট সর্বদা দো’আ করতে হবে এবং বিপদ থেকে উদ্ধারের চেষ্টা করতে হবে। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সকল ধরণের বিপদ থেকে উদ্ধার হওয়ার জন্য যথাযথ চেষ্টা করার তাওফীক দান করুন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!