• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

“আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য কুরবানীর নিয়ম করে দিয়েছি, যাতে করে তারা আল্লাহর নাম উচ্চারণ করতে পারে ঐ সকল হালাল চতুষ্পদ জন্তুর উপর যা তিনি তাদেরকে রিয্ক হিসাবে দান করেছেন।” (সূরা আল-হাজ্ব: ৩৪)
আনাস (রা.) বর্ণনা করেন যে, রাসূল (সা.) কালো রং মিশ্রিত সাদা এবং শিংওয়ালা ভেড়া কুরবানী দিয়েছেন। এবং যবেহ করা কালীন আল্লাহর নাম এবং তাকবীর তথা বিস্মিল্লাহি আল্লাহু আকবার বলে নিজ হাতে উভয়টিকে যবেহ করেছিলেন এবং পশুদ্বয়ের কাঁধে তিনি (যবেহ কালীন) পা রেখেছিলেন। (বুখারী: ৫১৩৯, মুসলিম: ৩৬৩৫)
মহাগ্রন্থ আল-কুরআনের উল্লেখিত আয়াত এবং রাসূল (সা.) এর হাদীসের মাধ্যমে বুঝা যায় যে, কুরবানী করা গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদত। এটি এত গুরুত্বপূর্ণ যে, আদম (আ.) থেকে নিয়ে শেষ নবী মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত যত উম্মত এই পৃথিবীতে এসেছে সকলের জন্যই এই বিধান ছিল। কুরবানী করা আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের অন্যতম একটি মাধ্যম। তবে এই ক্ষেত্রে অবশ্যই কুরবানী সহীহ হওয়ার সকল শর্ত পূরণ করে, লৌকিকতা মুক্ত হয়ে, একমাত্র আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার উদ্দেশ্যে কুরবানী করতে হবে। অন্যথায় তা মহান আল্লাহর নিকট কবূল হবে না।
কাদের উপর ওয়াজিব : প্রয়োজনীয় খরচ মেটানোর পর যারা কুরবানী করতে সামর্থবান তাদের প্রত্যেকের উপরই কুরবানী দেওয়া ওয়াজিব। কেননা কুরবানী দেওয়ার সামর্থ থাকার পরও যারা কুরবানী দেয় না তাদেরকে ঈদগাহে যেতে রাসূল (সা.) নিষেধ করেছেন। যা ওয়াজিব হওয়ার প্রমাণই বহন করে। (মুসনাদে আহমদ: ৭৯২৪)
কুরবানীর পশুর ধরণ ও বৈশিষ্ট্য : আট প্রকার পশু দ্বারা কুরবানী করা সর্ব সম্মতিক্রমে জায়েজ। আর তা হল: (১) ভেড়া বা দুম্বা (২) ছাগল (৩) গরু (৪) উট। এগুলোর প্রত্যেকটির নর ও মাদি। তবে অনেক বিদ্বান গরুর উপরে ক্বিয়াস করে মহিষ দ্বারা কুরবানী জায়েজ বলেছেন। উল্লেখিত পশুগুলি ব্যতীত অন্য কোন পশু দ্বারা কুরবানী জায়েজ হবে না। কুরবানীর পশু সুঠাম, সুন্দর ও নিখুঁত হওয়ার পাশাপাশি দাঁতালোও হতে হবে। স্পষ্ট কানা, স্পষ্ট খোঁড়া, স্পষ্ট রোগী, জীর্ণশীর্ণ এবং অর্ধেক কান কাটা বা ছিদ্র করা কিংবা অর্ধেক শিং ভাঙ্গা পশু দিয়ে কুরবানী হবে না।
কুরবানীর অংশীদারিত্ব : এই কথা সর্বজন বিদিত যে, একা কুরবানী দেওয়াই উত্তম, যদিও তা একটি ছাগল হয়। কেননা একা কুরবানী দিলে তা পুরো পরিবারের জন্যই যথেষ্ট হয়ে যায়। পক্ষান্তরে শরীক কুরবানী এর ব্যতিক্রম। তাতে যে শরীক হবে শুধু মাত্র তার পক্ষ থেকেই কুরবানী হবে, তার পরিবারের পক্ষ থেকে আদায় হবে না। তবে শরীক কুরবানীর ক্ষেত্রে উট বা গরুতে সর্বোচ্চ সাতজন শরীক হতে পারবে। (আল-মুহাল্লা: ৭/৩৮২)
কুরবানী ও আক্বীকা : আক্বীকা বলা হয়, সন্তান জন্মগ্রহণের সপ্তম দিনে সন্তানের পক্ষ থেকে ভেড়া, দুম্বা বা ছাগল এ জাতীয় কোন পশু যবেহ করাকে। এটি প্রত্যেক পিতা-মাতার উপর সন্তানের হক্ব। আর কুরবানী কেবলমাত্র সামর্থবানদের উপর ওয়াজিব। কুরবানীর পশুতে শরীক হয়ে আক্বীক্বা দেওয়ার যেই প্রথা বর্তমানে চালু আছে তার পক্ষে কুরআন-হাদীসের কোন প্রমাণ পাওয়া যায় না। এই কারণেই ইমাম আবু ইউসুফ (রহ.) এবং ইমাম শাওকানী (রহ.) প্রমুখ বিদ্বান বলেন, কুরবানীর পশুতে শরীক হয়ে আক্বীকা দেওয়া জায়েজ নেই। (নায়লুল আওতার, আক্বীকা অধ্যায়: ৬/২৬৮)
উপসংহারে বলা যায় যে, কুরবানী করা অন্যতম একটি ইবাদত। আর প্রত্যেক ইবাদত রাসূল (সা.) এর আদর্শ অনুযায়ী করা বাধ্যতামূলক। অন্যথায় তা আল্লাহর নিকট গ্রহণীয় হয় না। অতএব আসুন, কুরবানীর ক্ষেত্রেও আমরা রাসূল (সা.) এর আদর্শকে অনুসরণ করি এবং সঠিকভাবে কুরবানী দেই। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে ঃ আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *