• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১০:১৬ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলনের কাউন্সিলর তালিকা নিয়ে ক্ষোভ সংবাদ সম্মেলন পাকুন্দিয়ায় আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটি বাতিলের দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের প্রতিযোগিতায় একই প্রতিষ্ঠান থেকে মা-মেয়ে শ্রেষ্ঠ কিশোরগঞ্জে ইয়াবা ও গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কিশোরগঞ্জে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের নির্ধারিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ তৃষা হোসেনপুরে জনশুমারী ও গৃহগণনা উপলক্ষে সভা ভৈরবের মেয়ে ইডেন কলেজ শাখার ছাত্রলীগ কমিটির সহসভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন পাকুন্দিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাজিতপুরে গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক কিশোরগঞ্জে ট্রাফিক সপ্তাহের শোভাযাত্রা আলোচনা সভা

কিশোরগঞ্জে কৃষক হত্যায় মা ও তিন ছেলেসহ ৬ ব্যক্তির যাবজ্জীবন

কিশোরগঞ্জে কৃষক হত্যায়
মা ও তিন ছেলেসহ ৬
ব্যক্তির যাবজ্জীবন

# মোস্তফা কামাল :-

কটিয়াদীতে এক কৃষক হত্যা মামলায় মা ও তিন ছেলেসহ ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে। আজ ১৭ জানুয়ারি সোমবার কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মো. সায়েদুর রহমান খান তার রায়ে কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের ভুনা গ্রামের মৃত গোলাপ মিয়ার স্ত্রী মজ্জু বানু (৫৫), তার তিন ছেলে বাচ্চু মিয়া (৩৮), ফেরদৌস মিয়া (২৮) ও সাফেক মিয়া (২৭) এবং একই গ্রামে আব্দুল মান্নান খানের ছেলে ছেলে জুবায়ের (২৮) ও আব্দুল মন্নাফ খানের ছেলে ফারুক মিয়াকে (২৮) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের করাদণ্ড দিয়েছেন। রায়ের সময় বাচ্চু মিয়া ছাড়া দণ্ডিত অন্য ৫ জন আদালত কাঠগড়ায় হাজির ছিলেন। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় অন্য তিনজনকে বিচারক খালাস দিয়েছেন। রায়ের পর দণ্ডিত ও তাদের স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, পারিবারিক বিরোধে ২০১৭ সালের ২৬ জুন দুপুরে ভুনা গ্রামের কৃষক দুলাল মিয়ার (৪৫) ওপর অভিযুক্তরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করলে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় ভিকটিমের স্ত্রী নাজমা বেগম বাদী হয়ে একই দিন কটিয়াদী থানায় ১০ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তবে এর মধ্যে একজন আগেই মারা গেছেন। আর পুলিশ তদন্ত করে একই বছর ২৪ ডিসেম্বর ৯ জনের নামে আদালতে অভিযোগপত্র দায়ের করেছিল। এদের মধ্যে ৬ জনকে যাবজ্জীবন ও তিনজনকে খালাস দেয়া হয়েছে। রায় ঘোষণার পর দণ্ডিতদের কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সরকার পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক ও আসামী পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট অধ্যক্ষ এমএ রশিদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!