• মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কুলিয়ারচরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন কুলিয়ারচরে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যদের সাথে নবাগত ইউএনও ও সংস্থার সভাপতি’র মতবিনিময় কিশোরগঞ্জে ব্যাবের হাতে প্রায় ৪ হাজার পিস ইয়াবা নিয়ে তিনজন গ্রেফতার মিঠামইনে দুই ইউনিয়নে ফ্রি চিকিৎসা সেবা ও ত্রাণ বিতরণ করলেন ডা. বুলবুল আহম্মদ পাকুন্দিয়ায় মাদক, কিশোর গ্যাং ও ইভটিজিং প্রতিরোধে সভা ইটনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ভৈরব র‌্যাবের হাতে নারায়ণগঞ্জের মদনপুর থেকে ২০ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সভা ও কমিটি গঠন কিশোরগঞ্জে মাদকবিরোধী দিবসে র‌্যালি আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণ কিশোরগঞ্জে মিঠামইনে এমপি তৌফিকের ত্রাণ

অষ্টগ্রামে অপরিকল্পিত খাল খননে হুমকির মুখে ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি

অষ্টগ্রামে অপরিকল্পিত খাল
খননে হুমকির মুখে
ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি

# মো. আল আমিন টিটু :-

কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা অষ্টগ্রামের কাস্তলে অপরিকল্পিত খননের ফলে এক খাল এখন নদীতে পরিনত হয়েছে। একই সঙ্গে গভীরতা বৃদ্ধির কারণে দু’পারে ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ফলে এরই মধ্যে পাকা ড্রেন, ফসলি জমি ও সড়কসহ একটি বাড়ির কয়েকটি বসত ঘরের ভিটে মাটি বিলীন হয়ে গেছে। দ্রুত বালি ফেলে এই খাল ভরাট কিংবা ভাঙ্গন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ না করলে এবারের বর্ষা মৌসুমে এই ভাঙ্গন আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।
জানাগেছে, দেশের অর্থনীতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে হাওরের কৃষি জমি। ফলে প্রায় ৬০ বছর আগে হাওরের কৃষি জমিতে সেচের জন্য টিআইপি (থানা ইরিগেশন প্রজেক্ট) এর অধীনে নালার মতো একটি খাল তৈরি করা হয়। বর্তমানে এই খালটি সরকারের বিএডিসি (ক্ষুদ্রসেচ) বিভাগের অধীনে রয়েছে। ফলে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন আওতায় কিশোরগঞ্জ জেলা বিএডিসি খালটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে। এদিকে গেল প্রায় দেড় বছর আগে একটি মহল বিএডিসি (ক্ষুদ্রসেচ) বিভাগের কাছে খালটি খননের জন্য আবেদন করলে তা মঞ্জুর হয়। পরে লোক দেখানো খননে নামে তারা। শুধু তাই নয়, খালটির উপরের অংশে খনন না করে নিচের অংশে অর্থাৎ গোড়ার দিকে অপরিকল্পিতভাবে খনন করে তারা। একই সঙ্গে কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে বরাদ্ধকৃত সকল অর্থ উত্তোলন করে অসাধু মহলটি। অথচ খাল খননের আবেদন বা খনন প্রসঙ্গে কিছুই জানেন না স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান কিংবা জনপ্রতিনিধিরা। আর এই খালটি খননের পরেই দেখা দেয় দু’পারে ভাঙ্গন। ফলে বিলীন হয়ে যাচ্ছে পাকা ড্রেন, ফসলি জমি ও সড়কসহ একটি বাড়ি কয়েকটি বসত ঘরের ভিটে মাটি। দ্রুত বালি ফেলে এই খাল ভরাট কিংবা ভাঙ্গন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ না করলে এবারের বর্ষা মৌসুমে এই ভাঙ্গন আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।
ভূক্তভোগী আরমান মিয়া জানান, তার বাড়ির প্রায় অর্ধেক ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে। কোনদিন জানি বাড়ির বাকি অংশ ভেঙ্গে যায়। এই চিন্তায় রাতে তার দু’চোখে ঘুম আসে না। ফুল মিয়া নামে আরেক ব্যক্তি জানান, খননের পর থেকেই ভাঙ্গন দেয়া দেয়। এরই মধ্যে ভাঙ্গন যে রূপ নিয়েছে, দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে ব্যাপক হারে এই ভাঙ্গন দেখা দিবে। তখন হয়তো অনেকেই ফসলি জমি বা ভিটে মাটি হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়বে। ফুল মিয়ার কথায় সুর মিলিয়ে সাইফুদ্দিন লিচু জানান, অপরিকল্পিত খননের ফলে খালটি এখন রাক্ষুসে নদীতে পরিণিত হয়েছে। তিনি মনে করেন, বালি ফেলে দ্রুত এই খাল বন্ধ করতে হবে নতুবা ভাঙ্গন ঠেকাতে সরকারকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে। তা- না হলে এই ভাঙ্গন ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।
এ প্রসঙ্গে কাস্তল ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম রন্টি জানান, কৃষকরা হাওরের জমিতে আদিকাল থেকে ধান আবাদ করে আসছে। যার ফলে অনেক আগেই কৃষিখাতের উন্নয়নে জমিতে সেচের জন্য টিআইপি (থানা ইরিগেশন প্রজেক্ট) এর অধীনে নালার মতো একটি খাল তৈরি করা হয়। পরবর্তিতে এই খালটি বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (সেচ) প্রকল্পের আওতায় কিশোরগঞ্জ জেলা বিএডিসি খালটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে। যদিও কালের বির্বতনে এখন কৃষকরা নিজেরাই ডিজেল চালিত ইঞ্জিনের মাধ্যমে মাটির নিচ থেকে জমিতে সেচের ব্যবস্থা করেছে। সে হিসেবে খালটি পুনরায় খননের বা খালের কোন প্রয়োজন নেই। কিন্তু একটি মহল গেল প্রায় দেড় বছর আগে বিএডিসি’র মাধ্যমে খালটি পুনরায় খনন করে। শুধু তাই নয়, খালটির উপরের অংশে খনন না করে নিচের অংশে অর্থাৎ গোড়ার দিকে অপরিকল্পিতভাবে খনন করে তারা। একই সঙ্গে বরাদ্ধকৃত সকল অর্থ উত্তোলন করে অসাধু মহলটি। অথচ খাল খনন প্রসঙ্গে কিছুই জানেন না তিনি। এই খালটি খননের পরেই দেখা দেয় এই ভাঙ্গন। ফলে হুমকির মুখে পড়ে পাকা ড্রেন, ফসলি জমি ও সড়কসহ বাড়ি-ঘরের ভিটে মাটি। তবে তিনি আশার কথাও জানান, এরই মধ্যে বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের মাধ্যমে চিঠি দিয়ে বিএডিসিকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত তারা পরিদর্শনে আসেননি।
খাল খননের অভিযোগ প্রসঙ্গে অষ্টগ্রাম বিএডিসি’র এসও রোকন জাহান মুঠোফোনে জানান, খাল থেকে ২১টি পাম্পের হাওরের প্রায় ১৫শ একর ধানী জমিতে সেচ দেয়া হয়ে থাকে। ফলে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের ৩৯ লাখ ব্যয়ে খালটি খনন করা হয়। আর এই খনন কাজের ঠিকাদার ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল হক জেমস। তবে অপরিকল্পিত খননের কারণে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে কিনা! এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অপরিকল্পিভাবে না নিয়মানুয়ায়ী খাল খনন করা হয়েছে। আসলে বর্ষা মৌসুমে পানির প্রবল চাপে এই ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন তিনি। তাছাড়া লোক দেখানো খনন করে বরাদ্ধের টাকা লুটপাট করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে? তিনি বলেন, এ বিষয়ে কিছুই বলতে পারবেন না।
ঠিকাদারের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল হক জেমস মুঠোফোন জানান, তিনি এবং ইউএনওসহ কয়েকজন উপস্থিত থেকে এই খাল খনন কাজের উদ্বোধন করেছেন। কিন্তু ঠিকাদার ছিলেন না। এমন কি তার কোন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নেই বলেও দাবী করেন। কে এই খনন কাজের ঠিকাদার ছিলেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ময়মনসিংহের একজন ঠিকাদার এই কাজ করেছেন। তাছাড়া নাম মাত্র কাজ করে বরাদ্ধে টাকা লুটপাট হয়েছে কিনা! এই প্রশ্নের জাবাবে তিনি বলেন, একবার এমন একটি অভিযোগ উঠেছে ছিল। পরে বিএডিসি’র ঊর্ধ্বতন কর্র্র্র্তৃপক্ষের লোকজন তদন্তে এসে অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি বলেও জানান তিনি। ভাঙ্গন ঠেকাতে কোন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে কিনা? এর উত্তরে তিনি জানান, স্থানীয় এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের নির্দেশ আগামী বর্ষার আগে খালের ভাঙ্গন ঠেকাতে বিএডিসি, পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগসহ এই ৩ দফতর মিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!