• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

ভৈরবে ফুটপাতে জমে উঠেছে শীতবস্ত্রের বেচাকেনা

ভৈরবে ফুটপাতে জমে
উঠেছে শীতবস্ত্রের বেচাকেনা

# আফসার হোসেন তূর্জা :-

হেমন্তের হালকা শীত আর সকালে কুয়াশামিশ্রিত বিন্দু বিন্দু শিশিরের উপস্থিতি বুঝিয়ে দিচ্ছে প্রকৃতিতে শীত আসছে। এই শীতকে মোকাবিলায় গ্রামের দরিদ্র মানুষরাও প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে। আর এই প্রস্তুতির অন্যতম হলো গরম কাপড় কেনা।
অল্প আয়ের লোকজন ইচ্ছে থাকলেও বড় বড় মার্কেট বা শপিংমলগুলোতে যেতে পারে না। তাদের একমাত্র ভরসা শহরের ফুটপাতে গড়ে ওঠা বিভিন্ন কাপড়ের দোকানগুলো। শীতের আগমনের আগেই তাই সরগরম হয়ে ওঠেছে ভৈরবে ফুটপাতের দোকানগুলো। বেচাকেনাও জমে উঠেছে।
এদিকে দিন যত গড়াচ্ছে শীতবস্ত্রের বিক্রি ও দাম বাড়ছে। দামও ঊর্ধ্বমুখী হওয়ায় নিম্নবিত্ত মানুষদের পক্ষে শীতের পোশাক কেনা দুঃসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিত্তবানরা অভিজাত শপিংমল ও বিপণিবিতানে ছুটলেও মধ্যবিত্তের অনেকেই ফুটপাতের দোকানগুলোর দ্বারস্থ হচ্ছেন।
হরেক রকমের পোশাক নিয়ে ভৈরব বাজারের জিল্লুর রহমান শহর রক্ষা বাঁধ রোড, ভৈরবপুর দক্ষিণপাড়া, বাগানবাড়ি, বাদামপট্টি, নদীরপাড়, ছবিঘর শপিংমল রোড, জামে মসজিদ রোড ও কাচারি রোড জুড়ে রাস্তার উপর বসে অস্থায়ী এসব কাপড়ের দোকান। এইসব দোকানে সোয়েটার, উলের পোশাক, ব্লেজার, ট্রাউজার, জ্যাকেট, চাদর, মাপলার, কানটুপিসহ নানা ধরনের শীতবস্ত্র কম দামে পাওয়া যায়।
ফুটপাতের দোকানগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন ধরনের শাল ও চাদর বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায়। উলের সোয়েটারের দাম ২০০ থেকে ৪০০ টাকা। মানভেদে জ্যাকেট পাওয়া যাচ্ছে ৩৫০ থেকে ৭০০ টাকায়। কার্ডিগান ২০০ থেকে ৩০০ টাকা এবং কানটুপি ১৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। এছাড়া ব্লেজার ১ হাজার ৫০০ থেকে ৫ হাজার টাকা, চামড়ার জ্যাকেট ২ হাজার থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।
ফুটপাত থেকে শীতের কাপড় কিনতে আসা চণ্ডিবের এলাকার রুনা বেগম বলেন, বড় বড় মার্কেট থেকে পোশাক কেনার সামার্থ্য নেই।
এজন্য ফুটপাত থেকে কাপড় কিনতে আসছি। আমার মতো যেসব মানুষ বিভিন্ন শপিংমল থেকে নতুন পোশাক কিনতে পারেন না, তারা ফুটপাত থেকে কম দামে গরম পোশাক কিনেন। কিন্তু গতবারের চেয়ে এইবার কাপড়ের দাম একটু বেশি বলে জানান তিনি।
গতবারের চেয়ে কাপড়ের দাম বেশি কেন জানতে চাইলে ফুটপাতে কাপড় বিক্রেতারা জানান, শীতের পোশাক তো সারা বছর বিক্রি হয় না। এ সময় চাহিদা বেশি থাকায় দাম একটু বেশি।এছাড়া সবকিছুই দাম বেড়েছে যার কারণে কাপড়ের দামও এই বছর একটু বেশি।
আগুগঞ্জ থেকে শীতের কাপড় কিনতে আসা আলামিন মিয়া বলেন, ফুটপাতে যে কাপড় বিক্রি করা হয় যদি দেখে কিনা যায় তাহলে ভালো ভালো কোয়ালিটির কাপড় পাওয়া যায়। মার্কেট থেকে আমরা যে কাপড় কিনি একই রকম কাপড় ফুটপাত থেকে কিনলে দেড় থেকে দুইশত টাকা কমে কিনা যায়। তাই শীত আসলে ফুটপাতের দোকানগুলো থেকেই শীতের কাপড় কিনি।
ফুটপাতে কাপড় বিক্রেতা নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলার অলি মিয়া বলেন, আমি ফুটপাতে বিভিন্ন রকম সোয়েটার, ফুল হাতা গেঞ্জি, টুপিওলা গেঞ্জি, উলের পোশাক ট্রাউজার, জ্যাকেট, চাদর, মাপলার ও কানটুপিসহ নানা ধরনের শীতবস্ত্র বিক্রি করি। যেগুলো পোশাক কারখানা থেকে রিজেক্ট হয়ে আসে, সেগুলো বিক্রি করি। আমাদের ক্রেতা হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষ। তারা অল্প দামে আমাদের পোশাক পেয়ে খুশি হন। কিন্তু সবকিছুর দাম বাড়াতে গত বারের চেয়ে এইবার কাপড়ের দাম তুলনামূলক একটু বেশি।
এছাড়া পৌর এলাকার কাপড় ব্যবসায়ী কালিকাপুর ফ্যাশন হাউজের মালিক মনা মিয়া বলেন, কয়েকদিন ধরে শীতের পোশাক ভালো বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী নানা ধরনের শীতের পোশাক এনেছি। ক্রেতারাও ভিড় করছেন পছন্দের পোশাক কিনতে। তাই বেচাকেনাও ভালো হচ্ছে। দামের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, শীতের সময়ই কেবল গরম কাপড় বিক্রি হয়। তাই ব্যবসায়ীরা একটু লাভে বিক্রি করছেন। তবে দাম সর্বসাধারণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই আছে।
অন্যদিকে, স্থানীয় মার্কেটগুলির তুলনায় ফুটপাত থেকে বিভিন্ন ধরনের শীত পোশাক কম দামে কিনতে পারায় ভৈরবসহ আশেপাশের বিভিন্ন জেলা উপজেলার নারী-পুরুষ উভয় শ্রেণির নিম্ন আর মধ্যবিত্ত পরিবারের অনেকেই ভিড় করছেন ফুটপাতের এইসব দোকানগুলোতে। ক্রেতার উপস্থিতিতে ফুটপাতের সড়কগুলি হয়ে ওঠে সরগরম। চাহিদা অনুযায়ী এখান থেকে কম দামে কাপড় কিনতে পেরে ক্রেতারাও খুশি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!