• মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

চিকিৎসক ছাড়াই মেডিসিন কেয়ার দিয়ে চলছে ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়

# রাজীবুল হাসান, সংবাদদাতা :-

চিকিৎসক ছাড়াই ১৪ বছর ধরে মেডিসিন কেয়ার দিয়ে চলছে ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়। যদিও একজন ফার্মাস্টিট অতিরিক্ত দায়িত্বে আছেন তিনি একাধারে দুটি হাসপাতালের দায়িত্ব পালন করছেন। নিয়ম অনুযায়ী সপ্তাহে দুটি কর্মস্থলে আসার কথা থাকলেও তিনি আসেন না। সরকারি নিয়ম রক্ষার্থে মাঝে মধ্য আসেন তিনি। দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে জংশন হচ্ছে ভৈরব বাজার জংশন। এ জংশনে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারিদের স্বাস্থ্য চিকিৎসার একমাত্র সরকারি চিকিৎসালয় হল ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়। এই হাসপাতালের অন্তর্ভূক্ত এলাকা হলো পূবাইল হতে ভৈরব বাজার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাতশাল হতে ভৈরব বাজার, ময়মনসিংহের গৌরীপুরে ভবায়নগর পর্যন্ত। এসব এলাকায় কর্মরত রয়েছে হাজারো কর্মকর্তা কর্মচারি। যার ফলে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে হাজারো কর্মকর্তা কর্মচারি ও রেলওয়ে দুর্ঘটনায় আহত রোগীরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ফার্মাস্টিটের রুমে একজন বসে কিছু লিখছেন। ডাক্তার আছে কি না তার কাছে জানতে তিনি বলেন উনি নেই আমি মজনু মিয়া এখানে মেডিসিন কেয়ার পদে আছি। আমিই আগত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকি। তিনি আরো জানান, এই হসপিটালে ১৪ বছরেও বেশি সময় ধরে কোন চিকিৎসক নেই। নামেমাত্র একজন ফার্মাস্টিট দায়িত্বে আছেন। তিনি থাকেন ময়মনসিংহে। সেখান থেকে মাঝেমধ্য আসেন তিনি।
রেলওয়ে বিভাগের ট্রলিম্যান পদে কর্মরত বাবুল মিয়া পেট ব্যথার চিকিৎসা নিতে আসেন হাসপাতালে তখন মেডিসিন কেয়ার মজনু মিয়া তাকে চিকিৎসা করে ঔষধ দিয়েছেন তিনি।
আগত রোগী বাবুল মিয়া বলেন, হাসপাতালে কোন ডাক্তার নেই কিন্তু কি করবো উনার কাছ থেকেই ঔষধ নিয়ে আমরা অসুখ ভালো করি। ডাক্তার থাকলে তো সঠিক চিকিৎসা সেবা পেতাম।
মজনু মিয়ার সামনের চেয়ারে বসা একজন বৃদ্ধা নারী বসে আছেন। তাকে জিঙ্গাসা করলে তিনি বলেন তার নাম শাহিনা। তিনি এই হসপিটালে দীর্ঘ ১৪ বছর যাবত রেলওয়ে চিকিৎসালয়ে ওয়ার্ড এন্টেনডেন্ট হিসাবে কর্মরত আছেন। তিনি বলেন, শুনেছি এই হাসপাতালের চিকিৎসক নিয়োগ বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। একজন বড় স্যার আছেন তিনি মাঝেমধ্য আসেন কিন্তু আমরা তো প্রতিদিনই হাসপাতালে এসে আমাদের দায়িত্ব পালন করছি। রোগীরা আসলে মেডিসিন কেয়ার মজনু মিয়া তাদের চিকিৎসা সেবা দেন। আমার তো বয়স হয়েছে চাকরি সময় শেষ আর কয়েকদিন পর অবসরে চলে যাবো তবে অবসরে যাওয়ার আগে এই
হাসপাতালে কোন চিকিৎসক দেখে যেতে পারবো না।
সরেজমিনে গিয়ে হাসপাতালের কর্মরত ফার্মাস্টিট কামরুজ্জামানকেও পাওয়া যায়নি। তার অনুপস্থিত বিষয়ে জানতে চাইলে মেডিসিন কেয়ার মজনু মিয়া বলেন, বড় সাহেব সপ্তাহে দুদিন বুধবার, বৃহস্পতিবার হাসপাতালে আসেন। যেসব দিন উনি আসেন সেদিন আমিই হসপিটালে আগত রোগীদের সেবা দিয়ে থাকি বলে জানান তিনি।
ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়ে কর্মরত থাকার কথা একজন চিকিৎসক, একজন ফার্মাস্টিট, একজন মেডিসিন কেয়ার, দুইজন ওয়ার্ড এন্টেডেন্ট, একজন ডিসপেনসারি কেয়ার, একজন চৌকিদার। কিন্তু বর্তমানে হাসপাতালে কর্মরত আছেন একজন ফার্মাস্টিট, একজন মেডিসিন কেয়ার, একজন ওয়ার্ড এন্টেডেন্ট, একজন ডিসপেনসারি কেয়ার, একজন চৌকিদার। একজন অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ফার্মাস্টিট দিয়ে চলছে ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়।
হসপিটালে উপস্থিত না পেয়ে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ভৈরব রেলওয়ে চিকিৎসালয়ের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ফার্মাস্টিট মো.কামরুজ্জামান এই প্রতিনিধিকে জানান, ১৪ বছরের বেশি সময় ধরে এ হাসপাতালে চিকিৎসক নেই। চিকিৎসক ছাড়াই আগত রেলওয়ে কর্মচারিদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। আমি এই হসপিটালে অতিরিক্ত দায়িত্বে আছি। আমার মূল দায়িত্ব ময়মনসিংহের চিকিৎসালয়ে। সেখান থেকে ভৈরব হসপিটালে দূরত্ব প্রায় ১২০ কি.মি। এত দূর থেকে তো এসে রোগী দেখা সম্ভব নয়। তবু আমি সপ্তাহে দুদিন হাসপাতালে একাই হাসপাতালের আগত রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছি। প্রতিদিন এ হাসপাতালে ২৫-৩০ জন নানা সমস্যা নিয়ে রোগীরা সেবা নিতে আসেন।
জরুরি চিকিৎসা ক্ষেত্রে হসপিটালে মেডিসিন কেয়ার পদে যিনি আছেন তিনি প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন। আর যদি গুরুত্বতর কোন রোগী হয় তাহলে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বা ঢাকা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!