• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
মহন বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে কুলিয়ারচরে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত মুন্সিগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে নিহত বাবা ও দ্ইু শিশুর কিশোরগঞ্জে দাফন সম্পন্ন ভৈরবে শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির ৮৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন বালক ফাইনালে উঠেছে রাজশাহী-সিলেট বিভাগ বালিকায় ময়মনসিংহ-রংপুর জে. শফিউল্লাহর চিঠি পেয়ে আহতদের চিকিৎসা করেছি আবার সশস্ত্র যুদ্ধও করেছি ….. ডা. আমির হোসেন মুন্সিগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে মারা গেছেন কিশোরগঞ্জের কাউসারসহ তার দুই শিশু বঙ্গমাতা সেমিফাইনালে খুলনা ময়মনসিংহ রংপুর এবং রাজশাহী বিভাগ কটিয়াদীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যানের ওপর দুর্বৃত্তের হামলা ভৈরবে প্রাইভেটকারে টিভি চ্যানেলের স্টিকার ব্যবহার করে গাঁজা পাচারকালে আটক ২ কিশোরগঞ্জে প্রতিবন্ধী দিবসের শোভাযাত্রা আলোচনা সভা

ইসলাহুন নফস বা আত্মশুদ্ধি (২য় পর্ব) : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ইসলাহুন নফস বা
আত্মশুদ্ধি (২য় পর্ব)

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

অন্তরের রোগ সমূহ থেকে নিজেকে মুক্ত করার নামই হল ইসলাহুন নফস বা আত্মশুদ্ধি। আর অন্তরের অনেকগুলো রোগ রয়েছে। যেমন-সত্যকে অপছন্দ করা, ইবাদতের বেলায় মনের অবাস্তব আকাঙ্খা, কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা ইত্যাদি।
১। সত্যকে অপছন্দ করা। অন্তরের অন্যতম একটি ব্যাধি বা রোগ হলো সে সত্যকে পছন্দ করতে চায় না। আনুগত্য তার স্বভাব বিরুদ্ধ বিষয়। যার কারণে অনেক সময় স্বেচ্ছাচারের জন্ম হয়। তাই অনেক চেষ্টা করে মনের এই অবস্থাকে বশে আনতে হয়। আর এই ব্যাধি বা রোগের প্রতিকার হলো, সম্পূর্ণভাবে আল্লাহর প্রতি ধাবিত হওয়া। পুরোপুরিভাবে মহান রবের প্রতি মনোনিবেশ স্থাপন করা। যেমনভাবে নবী ইবরাহীম (আ.) স্বীয় সন্তানকে যবাই করার হুকুমের বেলায় সম্পূর্ণরূপে মহান রবের আদেশের প্রতি মনোনিবেশ করেছিলেন।
২। ইবাদতের বেলায় মনের অবাস্তব আকাঙ্খা। অন্তরের আরেকটি রোগ হলো, সে নিজেকে মুক্তির দ্বারপ্রান্তে উপনীত মনে করে। সে ভাবে, বিভিন্ন যিক্র-আযকার ও ইবাদত বন্দেগী দিয়ে মুক্তির দরজায় কড়া নাড়বে আর দরজা তার জন্য সুন্দরভাবে খুলে যাবে। অথচ বাস্তবে দেখা যায় অবাধ্যতা আর পাপাচারের মাধ্যমে সে নিজেই মুক্তির দরজাকে বন্ধ করে ফেলার সকল আয়োজন সম্পন্ন করে রাখে। সে বুঝে যে, ভাল কাজগুলো তার করা দরকার কিন্তু কাজ করে না। সে ভাবে যে, একবারে সব খারাপ কাজ ছেড়ে দিয়ে শুধু ভাল কাজগুলোই করবে। অথচ অন্যায় কাজ করতে করতে তার অন্তরটা অনেক আগেই কালো ধূসর বর্ণের অন্তরে পরিণত হয়ে গিয়েছে, যেটাকে উপুড় করা জগ বা কলসীর সাথে তুলনা করা যায়। আর এই জাতীয় অন্তর সহজে হেদায়েতের রাস্তায় ফিরে আসতে পারে না। সহীহ মুসলিমের ২৬৪ নং হাদীসের মধ্যে এই অন্তরের আলোচনা এসেছে।
৩। কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা। স্বভাব ও মেজাজের অনুকুলের প্রতি টানকে প্রবৃত্তি বলে। আর অন্তরের বক্রতা ও বিবেক বিপর্যয়ের কারণে সত্য ছেড়ে বাতিলের দিকে ঝোঁকাকে কৃপ্রবৃত্তি বলে। আর কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা অন্তরের মারাত্মক একটি রোগ। যারা নিজেদেরকে পরিশুদ্ধ করতে চায় তাদেরকে অবশ্যই কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা হতে বেঁচে থাকতে হবে। কেননা আল্লাহ রব্বুল আলামীন মহাগ্রন্থ আল-কুরআনের অনেক জায়গায় কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করার নিন্দা করেছেন। যেমন এক জায়গায় তিনি বলেছেন,
আপনি কি তার প্রতি লক্ষ্য করেছেন, যে তার প্রবৃত্তিকে স্বীয় ইলাহ বা মা’বুদ স্থির করেছে? আল্লাহ জেনে শুনে তাকে পথভ্রষ্ট করেছেন, তার কান ও অন্তরে মোহর মেরে দিয়েছেন এবং তার চোখের উপর রেখেছেন পর্দা। অতএব, আল্লাহর পর কে তাকে পথ প্রদর্শন করবে? তোমরা কি চিন্তা-ভাবনা করবে না? (সূরা জাসিয়া: ২৩)
এরকমভাবে আল-কুরআনের অনেক জায়গায় কুপ্রবৃত্তির অনুসরণের নিন্দা জ্ঞাপন করা হয়েছে। বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) এর পবিত্র বাণীতেও কুপ্রবৃত্তির অনুসরণের প্রতি ভর্ৎসনা করা হয়েছে। কিন্তু এরপরও অনেক মানুষ কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করার মাধ্যমে নিজেকে কলুষিত করতেছে। নিজেকে গোমরাহীর দিকে নিয়ে যাইতেছে। আস্তে আস্তে ধ্বংসের অতল গহ্বরে নিক্ষিপ্ত হইতেছে। তাই এক্ষেত্রে আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা হতে নিজেকে বিরত রাখতে হবে। অন্যথায় ইসলাহুন নফস বা আত্মশুদ্ধিও হবে না আবার কুরআন-হাদীস ও ওয়াজ নসীহত দ্বারা উপকৃতও হওয়া যাবে না। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে অন্তরের রোগ সমূহ থেকে নিজেদেরকে মুক্ত করার তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!