• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৮:১৪ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের ৩ উপজেলার নির্বাচনে মোতায়েন ৭ প্লাটুন বিজিবি সদস্য নিকলীতে রাত পোহালেই ভোট, মোটরসাইকেল ও আনারসের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস র‌্যাব হেফাজতে গৃহবধূর মৃত্যু ভৈরবের ৪ র‌্যাব সদস্যসহ নান্দাইলের এক এসআই প্রত্যাহার কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবুল হোসেন লিটন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বিএনপির যুবদল নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ বাজিতপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে মার্কা বিতরণ করিমগঞ্জে বারঘড়িয়া ফাজিলখালী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় ৪ তলা নতুন ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ক্যাম্পে এক নারীর মৃত্যুতে র‌্যাব কর্মকর্তা প্রত্যাহার কিশোরগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইন বাস্তবায়নে সেমিনার ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার এখন চলছে দুর্দিন

কিশোরগঞ্জের হাওরে চৈত্রেই শুরু হলো বোরো ধান কাটা

কিশোরগঞ্জের হাওরে চৈত্রেই
শুরু হলো বোরো ধান কাটা

# মোস্তফা কামাল :-
সাধারণত বৈশাখ মাসকেই বোরো ধান কাটার সূচনা মাস ধরা হয়ে থাকে। কিন্তু কিশোরগঞ্জের হাওরে চৈত্রেই শুরু হয়ে গেছে ধান কাটা। বিস্তীর্ণ হাওর জুড়ে ফলে আছে সোনালী ধান। আর এই হাওরই দেশের অন্যতম খাদ্য ভাণ্ডার বলে খ্যাত।
শনিবার করিমগঞ্জ আর মিঠামইনের বিভিন্ন হাওরে গিয়ে দেখা গেছে, চৈত্রের তপ্ত রোদ পিঠে নিয়েই কৃষি শ্রমিকরা দলে দলে ধান কাটতে নেমে গেছেন মাঠে। গত বৃহস্পতিবার থেকেই ধান কাটা শুরু হয়েছে বলে শ্রমিকরা জানালেন। কেউ ধানের চুক্তিতে অন্যের জমি কেটে দিচ্ছেন, কেউ আবার টাকার বিনিময়ে কেটে দিচ্ছেন। আবার তাঁরা শঙ্কায় আছেন, কয়েক দিনের মধ্যেই যখন পুরো হাওরের ধান পেকে উঠবে, তখন মাঠে নামবে উচ্চ ক্ষমতার ধান কাটার প্রচুর মেশিন ‘কম্বাইন হার্ভেস্টার’। তখন আর শ্রমিকদের কেউ ধান কাটার কাজ দেবে না। থাকতে হবে বেকার।
শনিবার করিমগঞ্জের নোয়াগাঁও ইউনিয়নের উদারকান্দা হাওরে গিয়ে দেখা গেছে, ফনু মিয়া, নূরুল ইসলাম আর বাবুল মিয়াসহ ১৬ জন শ্রমিক ধান কাটছেন। তাঁরা জানালেন, পার্শ্ববর্তী রৌহা গ্রামের সুমন মিয়ার জমির ব্রিধান-২৮ জাতের ধান কেটে দিচ্ছেন চুক্তিতে। এক বিঘা জমি কেটে দিলে পাবেন চার মণ ধান। আবার টাকায় কাটলে পেতেন চার হাজার টাকা। তাঁরা জানান, এখন তো সব জমি পাকেনি। ফলে তাদের মত শ্রমিকরা ধান কাটার সুযোগ পাচ্ছেন। কয়েক দিনের মধ্যেই বিশাল হাওর জুড়ে নামবে বহু কম্বাইন হার্ভেস্টার। দ্রুততার সাথে জমির ধান কেটে ফেলবে। তখন জমির মালিকরা আর শ্রমিকদের ডাকবেন না। এরা বেকার হয়ে যাবেন।
মিঠামইনের গোপদীঘি ইউনিয়নের মাইঝের বন হাওরে গিয়ে দেখা গেছে, এলাকার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর এক একর জমিতে হাইব্রিড হীরা ধান করেছিলেন। শ্রমিকরা জমির ধান কেটে ঝাঁপিতে ভরে মাথায় চাপিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন রাস্তায়। সেখানে দাঁড়ানো আছে ট্রলি। তাতে করে আবার নিয়ে যাচ্ছেন খলায়। সেখানেই মাড়াই করে শুকিয়ে ধান নিয়ে যাবেন বাড়িতে। পাশের বাঘাইয়া হাওরে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে গোপদীঘি এলাকার মো. সামছুদ্দিনের ৫০ শতাংশ জমির ব্রিধান-৮৮ জাতের ধান কাটা হচ্ছে। কৃষকরা জানালেন, এবার সকল জাতের ধানেরই ফলন ভাল হয়েছে। বিশেষ করে হাইব্রিড হীরা এবং ব্রিধান-৯৮ ধানের ফলন বেশ ভাল হয়েছে।
কৃষকরা জানান, ২০১৭ সালে স্মরণকালের ভয়াবহ আগাম বন্যায় ৭টি হাওর অধ্যুষিত জেলা কিশোরগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, নেত্রকোণা আর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সকল হাওরের ধানই কাঁচা থাকতেই তলিয়ে গিয়েছিল। কৃষকরা এক মণ ধানও ঘরে তুলতে পারেননি। ফলে এর পর থেকেই আগাম জাতের ধান আবাদের ওপর বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। আর আগাম জাতের কারণেই এবার চৈত্র মাসের তিনদিন থাকতেই ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আব্দুস সাত্তার জানিয়েছেন, এবার ধানের ফলন ভাল হয়েছে। আর একটু আগেভাগেই ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে। আগাম বন্যার আশঙ্কার কারণে আগাম জাতের ধান আবাদ করার কারণে আগাম কাটা শুরু হয়েছে। বন্যার হাত থেকে ফসল রক্ষার লক্ষ্যে সরকার হাওরের চাষীদের জন্য ৭০ ভাগ ভর্তুকি মূল্যে ‘কম্বাইন হার্ভেস্টার’ দিয়েছে। শতকরা মাত্র ৩০ টাকা দিতে হয় কৃষককে। গত চার বছরে জেলার ১৩ উপজেলায় মোট ৭৮০টি কম্বাইন হার্ভেস্টার দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৭৮টি, ইটনায় ১০৪টি, মিঠামইনে ৯৬টি, তাড়াইলে ৮২টি, করিমগঞ্জে ৭২টি, অষ্টগ্রামে ৬৭টি, বাজিতপুরে ৬২টি, কুলিয়ারচরে ৫২টি, নিকলীতে ৫১টি, কটিয়াদীতে ৪৬টি, ভৈরবে ৩৯টি, পাকুন্দিয়ায় ২০টি, আর হোসেনপুরে ১১টি। একটি হার্ভেস্টার দৈনিক ৭০ থেকে ৮০ জন শ্রমিকের সমান ধান কাটতে পারে। সেই কারণে আগাম বন্যার হাত থেকে ফসল রক্ষায় দ্রুত ধান কাটার জন্য কম্বাইন হার্ভেস্টার দেওয়া হয়েছে। এবার জেলায় মোট এক লাখ ৬৭ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে কেবল হাওরেই আবাদ হয়েছে এক লাখ তিন হাজার ৬২০ হেক্টর। এখন জমির পরিমাণ বেড়েছে। কিন্তু পুরো দমে ধান কাটার সময় পর্যাপ্ত শ্রমিক পাওয়া যায় না। ফলে আগাম বন্যায় ফসল হানির ভয় থাকে বলেই এখন হার্ভেস্টারের সুবাদে দ্রুততার সাথে ধান কাটা সম্ভব হচ্ছে বলে উপ-পরিচালক আব্দুস সাত্তার জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *