• রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:২৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন আজ ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন, কে হচ্ছেন পৌর পিতা কিশোরগঞ্জে ইয়াবাসহ র‌্যাবের হাতে মাদক ব্যবসায়ী আটক স্যাটেলাইট যুগে প্রতিটি ঘরই এখন প্রেক্ষাগৃহ, কিশোরগঞ্জের ১৯টি হলই বন্ধ ৭টি চালু বন্ধ থাকার মতই ভৈরবে অটোচালক খুনের ৫ মাস পর খুনি গ্রেফতার, স্বীকারোক্তি লাগামহীন অপরাধীরা, ভৈরবে দুই মাসে তিন হত্যাকাণ্ড জ্ঞান ফেরেনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারীর ভৈরবে সাবেক রাষ্ট্রপতির এপিএস শাখাওয়াত উল্লাহ করোনায় আক্রান্ত ৩৫ কেন্দ্রের মধ্যে ৩০ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ, আগামীকাল ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন কিশোরগঞ্জে প্রথমবার জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস উদযাপন কিশোরগঞ্জে করোনামুক্ত হলো বাজিতপুর উপজেলা নতুন রোগি শনাক্ত ৩ জন

কিশোরগঞ্জে স্কুলের সভাপতি হতে ভুয়া শিক্ষাগত সনদ

কিশোরগঞ্জে স্কুলের সভাপতি
হতে ভুয়া শিক্ষাগত সনদ

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জে স্কুল কমিটির সভাপতি হতে ভুয়া শিক্ষাগত সনদ জমাদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। একবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক পাসের ভুয়া সনদ দিয়ে ধরা পড়ে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির সনদ জোগার করা হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির এক সদস্য জেলা প্রশাসক ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তর কাছে গত ৩১ জানুয়ারি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগে জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক পাশের সরকারী বিধিমালা রয়েছে। ফলে সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নের মধ্যপাটধা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হওয়ার জন্য এলাকার মোহাম্মদ হারুন রশিদ নামে এক ব্যক্তি জেলা সদরের সরকারী গুরুদয়াল কলেজ থেকে ২০০৬ সালে বি.এ পাশ করেছেন মর্মে একটি সনদ জমা দেন। কমিটির অন্য এক সদস্য বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করে অভিযোগ করলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস কলেজে যাচাই করলে সনদটি ভুয়া ধরা পড়ে। এরপর হারুন রশিদ ‘প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি’ থেকে ২০০৭ সালে বি.এ পাশ করেছেন মর্মে নতুন একটি সনদ জোগার করে সেটি প্রধান শিক্ষকের কাছে জমা দিয়েছেন। সনদে দেখা গেছে, হারুন রশিদ ২০০৭ সালের জুন মাসে পরীক্ষা দিয়েছেন। আর সনদটি ইস্যু করা হয়েছে পরের মাসে, অর্থাৎ ২০ জুলাই। এর বিরুদ্ধেও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির এক সদস্য জেলা প্রশাসক এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। হারুন রশিদ পার্শ্ববর্তী মইশাখালী এলাকায় পোল্ট্রি ফিডের ব্যবসা করেন বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের দায়িত্বে থাকা সহকারি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মুজাহিদুল ইসলামকে প্রশ্ন করলে এ প্রতিনিধিকে জানান, তদন্ত করে গুরুদয়াল কলেজের সনদটি জাল ধরা পড়েছে। এরপর প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয়েছে কেন তিনি জাল সনদটি গ্রহণ করলেন। পাশাপাশি কমিটির অন্য সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে যোগ্যতাসম্পন্ন নতুন ব্যক্তির প্রস্তাব পাঠানোর নির্দেশনা দিয়েছেন। তবে এখনো নতুন প্রস্তাব যায়নি।
এদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কমিটির সদস্যসচিব সোমা সাহাকে প্রশ্ন করলে তিনিও জাল সনদের বিষয়টি স্বীকার করেছেন এবং হারুন রশিদ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির বিএ পাসের সত্যায়িত ছাড়া নতুন একটি সনদ তার কাছে জমা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। এই সনদটি গ্যাজেটেড অফিসার দ্বারা সত্যায়িত করে দেয়ার কথা বললেও হারুন রশিদ তা এখনও দেননি। হারুন রশিদকে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি গুরুদয়াল কলেজের সনদ জমা দেয়ার কথা বেমালুম অস্বীকার করেন। তবে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির সনদটি সঠিক বলে দাবি করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!