• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবের ছাত্রসমাজের পক্ষ থেকে দেশব্যাপী ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন, ৬ দফা দাবি

ভৈরবের ছাত্রসমাজের পক্ষ থেকে
দেশব্যাপী ধর্ষণের প্রতিবাদে
মানববন্ধন, ৬ দফা দাবি

# মোস্তাফিজ আমিন :-

সিলেট এমসি কলেজের ধর্ষকসহ বাংলাদেশের সকল ধর্ষকদের দ্রুত বিচার ও সর্বোচ্চ শাস্তি দাবী করে ভৈরবে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে ছাত্রসমাজ। সর্বস্তরের ছাত্র-ছাত্রীর নামে করা ব্যানারে কয়েকশ শিক্ষার্থী এই কর্মসূচীতে অংশ নেন।
ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভৈরব বাসস্ট্যান্ড দুর্জয় মোড়ে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে ছাত্র সমাজের পক্ষ থেকে ৬ দফা দাবি তুলে ধরা হয়।
উত্থাপিত ৬ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, ধর্ষণের বিচারের জন্য অতিসত্ত্বর আলাদা ট্রাইব্যুনাল গঠন, ১৮ বছরের নীচের কেউ ধর্ষণের শিকার হলে তার চিকিৎসাসহ পরবর্তী পড়াশোনার দায়ভার রাষ্ট্রকে নিতে হবে, ধর্ষণের ঘটনার ৭-১০ দিনের মধ্যে অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করে সেটি বাস্তবায়ন করতে হবে, ইতোমধ্যে সংগঠিত সকল ধর্ষণ মামলার বিচার কাজ আগামী তিন মাসের মধ্যে শেষ করতে হবে, কোন ধর্ষণ মামলায় প্রশাসনের কারো স্বজনপ্রীতি, গাফিলতি ধরা পরলে বা প্রভাবশালী কারো মাধ্যমে টাকা দিয়ে নিষ্পত্তি করতে চাইলে অথবা কেউ ধর্ষকের পক্ষে কথা বললে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে, সুষ্ঠু তদন্ত করে ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির (ফাঁসির) ব্যবস্থা করতে হবে।
আজ রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভৈরব বাসস্ট্যান্ড দুর্জয়মোড়ে আয়োজিত ওই মানববন্ধনে দেশব্যাপী চলা ধর্ষণের বিপক্ষে তাদের মতামত তুলে বক্তব্য রাখেন আয়োজকদের প্রতিনিধি ইয়াসিন, অপি, ইস্তিয়াক, শুভ, জুনায়েদ, পিয়াস, ইবাদ প্রমুখ।
তারা এই সময় বলেন, আমরা ছাত্রসমাজ কোনো অন্যায় আবদার নিয়ে আজ রাস্তায় নামিনি। আমাদের দাবি আদায়ে আমরা কোনো সহিংসতার পন্থাও বেছে নিইনি। আমরা সমাজ ও রাষ্ট্রে চলমান একটি ভয়াবহ, জঘন্য ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে রাষ্ট্রযন্ত্রের কাছে সহায়তা চাচ্ছি।
যে দেশের নারীরা নিজেদের সম্ভ্রমের বিনিময়ে হায়েনাদের কাছ থেকে স্বাধীনতা এনেছেন, সেই দেশের নারী-শিশু ও কিশোরীরা কেন ধর্ষণের শিকার হবেন? আর ধর্ষিতারা তার সর্বস্ব হারিয়ে মরে যাবে, আত্মহত্যা করবে। তাদের অভিভাবকরা মাথা নীচু করে হাঁটবেন। অপরদিকে ধর্ষক ও তাদের সহযোগীরা বুকটান করে হাঁটবে-এটা হতে পারে না। এরজন্য প্রশাসনকে জবাবদেহী করতে হবে। সমাজের কাছে, রাষ্ট্রের কাছে।
এ সময় তারা ধর্ষণের প্রতিবাদে লেখা বিভিন্ন ফেস্টুন, ব্যানার, প্লে-কার্ড, পোস্টার ও হাতে লেখা স্লোগান বহন করেন। মানববন্ধন শেষে তারা একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শহরের বিভিন্ন অলিগলি প্রদক্ষিণ শেষে পৌরসভার চত্বরের সামনের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে কর্মসূচীর সমাপ্তি টানে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!