• শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:৫২ অপরাহ্ন |
  • English Version

দেশপ্রেমিক ত্রৈলোক্য মহারাজ

দেশপ্রেমিক ত্রৈলোক্য মহারাজ

গৌরমোহন দাস

‘আমি ভারতবর্ষের মধ্যে, ভারতবর্ষ কেন সম্ভবত পৃথিবীর মধ্যে রাজনৈতিক কারণে সর্বাপেক্ষা অধিকবার যাহারা রাজনৈতিক কারণে সর্বাপেক্ষা অধিক বৎসর কারাগারে কাটাইয়াছেন, তাহাদের অন্যতম। কথাগুলো শুনে মনে হয় একজন সাহসী তথা বিপ্লবীর কথা। কথাগুলো যিনি বলেছিলেন তিনি হলেন বিপ্লবী মহারাজা ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী। তিনি শুধু বিপ্লবীই ছিলেন না; ছিলেন একজন মানবদরদী, দেশ্রপ্রেমিক, সমাজ সংস্কারক, ধার্মিক। তার সম্পর্কে স্বল্প পরিসরে লেখনিতে প্রকাশ সম্ভব না। জন্মজয়ন্তীতে আন্তরিক শ্রদ্ধাঞ্জলি হিসেবে তার সম্পর্কে কিছু লেখার প্রয়াসী হলাম।
কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর থানার কাপাসাটিয়া গ্রামে ১২৯৬ বঙ্গাব্দের ২১ বৈশাখ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী জন্মগ্রহণ করেন। পিতা দুর্গাচরণ চক্রবর্তী, মাতা প্রসন্নময়ী দেবী। ছয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার ছোট। তার পারিবারিক নাম ছিল ত্রৈলোক্যমোহন চক্রবর্তী। তার ছাত্রাবস্থায় বিদ্যালয় পরিদর্শক অফিস থেকে বিদ্যালয়ের শিক্ষকের নিকট একটি পত্র আসে। তাতে লেখা ছিল, ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী’ আপনার বিদ্যালয়ের ছাত্র-রাজনৈতিক আন্দোলন যোগদান করে…….’ ইত্যাদি ইত্যাদি। সে চিঠির এবং চিঠির উত্তরের পরিপ্রেক্ষিতে তার নামের ‘মোহন’ শেষে ‘নাথ’-এ পরিবর্তিত হয়ে যায়। আবার উড়িষ্যার পুরিতে ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় ‘শশীকান্ত’ ছদ্মনামে বাস করেন। ময়মনসিংহ জেলার তখনকার মহারাজের নাম ছিল শশীকান্ত রায় চৌধুরী। লোকে তাকে শশীকান্ত রায় চৌধুরী মনে করে ‘মহারাজ’ বলে ডাকতেন। এভাবে তিনি হয়ে যান মহারাজ। পরে ত্রৈলোক্যেনাথ চক্রবর্তী বললে কেউ না চিনলেও মহারাজ নামে সবাই তাকে চিনত। সমাজদর্পণ সম্পাদক শ্রী শিবসঙ্কর চক্রবর্তী মহাশয়ের সঙ্গে তার প্রসঙ্গে কথা বলছিলাম। তখন তিনি মহারাজের নামকরণ বিষয়ে একটি ঘটনার কথা বললেন-আমি যখন পুঁথিঘরে চাকরি করি তখন আমাদের কাছে ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় যাওয়া-আসা করতেন। তো একদিন আমাদের পাশে বসে সচিবালয় ফোন করছেন। কে যেন ফোন রিসিভ করে বলছে-আপনি কে? মহারাজ উত্তর দিচ্ছেন-‘তুমি কে? আর তুমি যেই হও, গিয়ে বল ‘মহারাজ’ ফোন করছে। তার এ কথাতেও বোঝা যায় ‘মহারাজ’ হিসেবে তিনি বেশ পরিচিত ছিলেন।
মহারাজের ছাত্রজীবন শুরু হয় মালদহ জেলার কানসাটে। দু’বছর পর তিনি চলে যান ময়মনসিংহ জেলার ধলা হাইস্কুলে। সেখানে তিনি বেশি পড়াশোনা করতে পারেননি। ইংরেজ বেনিয়া শাসকগোষ্ঠী ভারতবাসী স্বাধীনতা সংগ্রামকে ধূলিস্যাৎকরে দেয়ার জন্য ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের ১৬ অক্টোবর বঙ্গভঙ্গ ঘোষণা দেয়। জাতীয় কংগ্রেস নেতারা উপযুক্ত সময় বঙ্গভঙ্গ উপলক্ষ করে স্বদেশী আন্দোলনের জন্ম দেন। এই আন্দোলনই ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রথম সোপান। স্বদেশী আন্দোলন সারা বাংলাদেশকে আলোড়িত করেছিল। ধলা স্কুলে পড়ার সময় ত্রৈলোক্য মহারাজ স্বদেশী আন্দোলনে যোগদান করেছিলেন। স্বদেশী আন্দোলনের ডাক গিয়ে তার ক্ষুদ্র গ্রাম কাপাসাটিয়াতেও পৌঁছেছিল। তার কথার প্রমাণ মেলে-‘একদিন দেখিলাম বাড়ি হইতে আমার নামে একটি পার্সেল আসিয়াছে। কীসের পার্সেল বুঝিতে পারি নাই। আমার নামে কোন পার্সেল আসার কথা ছিল না, আমি মনে করিলাম এখানে খাওয়ার কিছু পাওয়া যায় না। এজন্য বাড়ি হইতে কিছু খাদ্যদ্রব্য পাঠাইয়াছে। তাড়াতাড়ি পার্সেল খুলিয়া দেখিলাম একজোড়া দেশী মোটা কাপড়। …. পার্সেল পাঠাইয়াছিলেন আমার পিতা। তিনি সম্ভবত চাহিয়াছিলেন তাহার কনিষ্ঠপুত্র স্বদেশপ্রেমী হউক। …. ’
পরে তার ছোড়দা চন্দ্রমোহন চক্রবর্তী তাকে সাটিরপাড়া স্কুলে ভর্তি করে দেন। বিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক ললিতমোহন বাবুর ভাই মোহিনী বাবু এবং বাহ্মণদীর কামিনী মল্লিক মহাশয় ওই অঞ্চলের স্বদেশী আন্দোলনের নেতৃস্থানীয় ছিলেন। ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় অল্প দিনের মধ্যেই সবার পরিচিত ও ওই অঞ্চলের উৎসাহী কর্মীরূপে পরিচিত লাভ করেন।
সাটিরপাড়ায় পড়ার সময় ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দে বিপ্লবী পুলিনবিহারী দাসের কাছে স্বদেশী মন্ত্রের দীক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে অনুশীলন সমিতির সদস্যপদ লাভ করেন। [অনুশীল সমিতির স্রষ্টা ও নেতা ব্যারিস্টার প্রমথ মিত্র (পি.মিত্র) সমিতির পশ্চিমবঙ্গের ভার সতীশ চন্দ্র বসুর ওপর এবং পূর্ববঙ্গের তার পুলিনবিহারী দাসের ওপর ন্যস্ত করেন। স্বদেশী আন্দোলনকে আরও একধাপ এগিয়ে নিতে পুলিন বাবু দেশের জনগণের জাগরণে ক্ষাত্রশক্তি লাভ করার জন্য সমিতির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। আত্মরক্ষার কৌশল শিক্ষা গ্রহণ করতে মানুষও দলে দলে সমিতির সদস্য হতে থাকে।] এই অনুশীলন সমিতির সংস্পর্শে সে সময় ভারতবর্ষের নামকরা পুলিনবিহারী দাস, রবি সেন, মাখন সেন, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস প্রমুখ বিপ্লবীর সঙ্গে তিনি রনকৌশল শিক্ষা গ্রহণ করেন, তাতে করে মহারাজের মধ্যে এক অদ্ভুত নেতৃত্বের বিকাশ ঘটে। কর্তৃপক্ষ ওই বালকের সংগঠন ক্ষমতা দেখে খুশি হয়ে ত্রৈলোক্য মহারাজের ওপর মহেশ্বরদী পরগনার ৫০টি শাখা সমিতি পরিচালনার ভার দেন। তখন তিনি মাত্র তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র।
১৯০৮ খ্রিষ্টাব্দে নৌকা চুরি করে ডাকাতি করতে যাবে এই অভিযোগে প্রবেশিকা পরীক্ষার ঠিক আগে নারায়ণগঞ্জে তাকে গ্রেফতার করা হয়। নৌকা চুরির অভিযোগে তিনি প্রথমবার ১২ মাস কারাভোগ করেন। ঢাকা ষড়যন্ত্র মামলার পলাতক আসামি থাকাকালীন ১৯১২ খ্রিষ্টাব্দে ঢাকা শহরের একজন পুলিশ কর্মচারী (রতিলাল রায়) হত্যার অভিযোগে আবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঢাকার অতিরিক্ত ম্যাজিষ্ট্রেট যামিনীমোহন দাস মহাশয়ের আদালতে ১০৯ ধারায় বিচার শেষে কয়েক মাস হাজত বাসের পর তিনি বেকসুর খালাস পান। গুপ্তচরের কড়া নজর থাকায় তিনি আবার আত্মগোপন করে থাকেন। এক পর্যায়ে মহারাজকে ধরার জন্য সরকার পক্ষ থেকে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল। ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে কোলকাতায় গঙ্গাস্নান করার সময় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। বরিশাল ষড়যন্ত্র মামলার আসামি করে কোর্টে হাজির করা হলে দশ বছরের নির্বাসন দণ্ড দেয়া হয় (আন্দামানের সেলুলার জেলে পরে ১৯২৪ খ্রিষ্টাব্দে আলীপুর সেন্ট্রাল জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয়। এভাবে ৬ বছর জেলে থেকে স্বাধীনতা লাভের আগে ১৯০৮ থেকে ১৯৪৬ স্বদেশপ্রেমিক মহারাজের জীবনের ৩০ বছর ইংরেজদের জেলে কেটে গেছে। ৫ বছর কেটেছে আত্মগোপন করে)
দেশ বিভাগের পর তিনি আপনজনদের নিয়ে ভারত চলে যাননি। ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দে বরিশালে পাকিস্তান সোশালিস্ট পার্টি প্রতিষ্ঠা করে সভাপতিরূপে স্বাধীন দেশে তার কাজ শুরু করেন। হিন্দুরা যাতে দেশ ত্যাগ না করে, পূর্ব পাকিস্তানের জেলায় জেলায় ঘুরে তিনি তার জন্য চেষ্টা করেন। ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ওই অশীতিপর দেশপ্রেমিক মানুষটিকে পাকিস্তান সরকার দু’বছর কারারুদ্ধ করে রাখেন। ওই সময় হিন্দুদের সম্পত্তি বহু স্থানে শত্রু সম্পত্তি বলে দখল করে নেয়া হয়। তিনি তার প্রতিবাদ করেছেন এবং জোরালো আন্দোলন করেছেন।
মানবদরদী এই মহারাজীকে ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দের ২৪ জুন দেশ বিভাগ আর দেশ ত্যাগ বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকার এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেনÑদেশ বিভাগের পর পূর্ব পাকিস্তানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একজন না হয়ে ভারত চলে গেলেন না কেন? আপনার সহকর্মীরা বা অনেকেই তো পশ্চিম বাংলায় চলে গেছেন।
চির বিপ্লবী মহারাজ দীপ্তকণ্ঠে জবাব দেনÑ‘প্রকৃত বিপ্লবীরা কোন সম্প্রদায়ে বিশ্বাস করে না, একমাত্র মানব সম্প্রদায় ছাড়া। আপনারা কি মনে করেন যে, ভারতের হিন্দু সম্প্রদায়ভূক্ত বিপ্লবীরা কেবলমাত্র হিন্দুদের স্বাধীনতার জন্যই জীবন উৎসর্গ করেছেন? তারা ভারতের মুক্তি কামনায় জীবন উৎসর্গ করেছিলেন: কোন বিশেষ সম্প্রদায়ের জন্য তারা গৃহত্যাগ করেননি। দেশত্যাগ বিপ্লবীর ধর্ম নয়। সর্বভারতের মুক্তিকামী হয়েও মুসলমানদের দুঃখ দুর্দশাই একদিন আমাকে বিপ্লবী রাজনীতিতে উদ্ধুদ্ধ করেছিল। আজও এখানে দুই সম্প্রদায় বর্তমান। এদের দুঃখ দুদর্শার অবসান আজও হয়নি।’
দেশপ্রেমিক ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় বহুগুণের অধিকারী ছিলেন। ধর্মীয় কুসংস্কারগুলোতেও তীব্র প্রতিবাদ করেছেন। একজন ব্রাহ্মণ সন্তানকে অন্যের অন্ন-জল গ্রহণে যখন ছিল প্রথম বাধা তখনই তিনি ব্রাহ্মণ সন্তান হয়েও নিম্নবর্ণের মানুষের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করেছেন। বিবাহে উপহার দেয়া বা নেয়া বিষয়ে তিনি বলেছেন-‘বিবাহ উপলক্ষে উপহার দেওয়া বা গ্রহণ করা যেমন কুপ্রথা; বিবাহে পণ দেওয়া বা নেওয়াও কুপ্রথা। ইহা হিন্দু সমাজের কলঙ্কবিশেষ, ইহাও বন্ধ করিতে হইবে। …… যেখানে আত্মীয়তা হইবে সেখানে ব্যবসা করা উচিত নয়। শুধু আইন দ্বারা সমাজ হইতে এই কুপ্রথা দূর হইবে না। প্রয়োজন প্রচার দ্বারা জনমত গঠন করা।’
জেলখানায় বসে তিনি ‘জেলে তিরিশ বছর’, ‘পাক ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম’ নামক বই রচনা করেন। অবশ্য দুটি বই-ই পাক-ভারত সরকার বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করেছিল। তখন গীতা স্বরাজ নামে একটি গীতা গ্রন্থও রচনা করেছিলেন। ফলে হয়ত গীতার কথা মনে রেখেই তিনি তার মৃত্যুকে একান্ত সহজভাবে নিয়েছিলেন। তিনি মৃত্যুর জন্য ভয় না পেয়ে এক পত্রে লিখেছিলেন, ‘আমার ঘণ্টা বাজিতেছে, ডাক পড়িয়াছে, পা ফুলিয়াছে।’
৮ আগস্ট, ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে ২১ জনপথ রোডে সুরেন্দ্রমোহন ঘোষ মধু বাবুর বাড়িতে এক প্রীতিভোজের আয়োজন করা হয়েছিল। ওই দিনের ভোজসভায় কেন্দ্রীয় সরকারের বহু মন্ত্রী, লোকসভার সরকার ও বিরোধী পক্ষের বহু সদস্যও আমন্ত্রিত হয়েছিলেন। মহারাজের শীরর সে দিন সন্ধ্যা থেকেই খারাপ যাচ্ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর অনুরোধ, আগ্রহ ও পরিবেশনে কিছু খান। রাত ৩টার দিকে তিনি একবার বাথরুমে যান। ফিরে বিছানায় শোয়ার সঙ্গে সঙ্গে (৩টা ২০ মিনিটে) বিপ্লবী মহানায়ক তার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মৃত্যুতে দেশবাসী ১০ আগস্ট এক শোকযাত্রা বের করে, কোলকাতার কেওড়াতলা মহাশ্মশান তার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়। উল্লেখ্য শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীকে তিনি অনুরোধ করে বলেছিলেন-‘বাংলাদেশের মানুষ সাম্প্রদায়িক নয়। মনে-প্রাণে তারা ১০০ ভাগ বাঙালি। তারা কারও আধিপত্য মানতে চায় না। তারা কোন শক্তিশালী পড়শীর সহযোগিতা পেলে সার্বভৌমত্ব নিয়ে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে। মা তুমি তাদের প্রতি নজর রেখো।’
বিপ্লবী এই মহারাজের কথা আমাদের প্রজন্মের জানা থাকা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তার স্মৃতি তথা অবদান জন্মস্থানটি ঐতিহ্য, আন্দামান জেল থেকে আসার সময় তৎকালীন সরকার তার আসার সুবিধার জন্য একটি চেয়ার এবং একটি টেবিল, কুলিয়ারচর সদরে স্থাপিত ‘ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী স্মৃতি পাঠাগার,’ তার নিজ হাতে লাগানো সানবাঁধানো একটি বৃক্ষ (যে গাছটি সকলে মান্য করে) যথাযথ সংরক্ষণ ও অবহেলায় পরে আছে। তাকে অনেকেই আজ চেনে না, জানে না। একমাত্র শ্রী শিবশঙ্কর চক্রবর্তী মহাশয় সম্পাদিত, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু সমাজ সংস্কার সমিতি প্রকাশিত সুদর্শণ পঞ্জিকা-ই তার ছবি সংবলিত তথ্য পরিবেশন করে সুধীজনের প্রশংসার দাবিদার হচ্ছে। তার স্মৃতি ধরে রাখার প্রয়োজন মনে করেও সরকারি সহায়তা ছাড়া ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। জাতীয় জাদুঘরের গ্যালারিতে বহু লোকের ছবি স্থান পেলেও ছবি নেই দেশের জন্য সংগ্রামী ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহারাজের। সত্যি কি তার ছবি জাদুঘরের গ্যালারিতে স্থান পাওয়ার যোগ্য নয়? নাকি অবহেলায়, অকৃতজ্ঞতায় তা সম্ভব হয়নি। দেশের জন্য নিবেদিত প্রাণ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয়ে অবদানের কথা বিবেচনা করে জাতীয় জাদুঘরে তার একটি ছবি, স্মৃতিচিহ্ন যথাযথ সংরক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সমীপে জোরালো অনুরোধ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আজ যে হত্যা, ধর্ষণ, বোমাবাজি, খুনোখুনি, চলছে সে ক্ষয়িষ্ণু সমাজে প্রত্যেককে বিপ্লবী ত্রৈলোক্য মহারাজের আদর্শ অনুসরণ করে এক একজন মহারাজ হওয়ার শপথ গ্রহণের আশাবাদ ব্যক্ত করে তার মৃত্যু বার্ষিকীতে আমাদের আন্তরিক শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করছি।

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!