• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

হেদায়াত পাওয়ার উপায়সমূহ ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

হেদায়াত শব্দটি আরবী। যার অর্থ পথ প্রদর্শন। আল্লাহ প্রদত্ত বিশেষ এক অনুগ্রহ ও দয়ার নাম হলো হেদায়াত। মূলত আল্লাহ সুব. যার মঙ্গল কামনা করেন এবং যাকে ভালবাসেন তাকেই তিনি হেদায়াত দান করেন। পক্ষান্তরে যার প্রতি তিনি অসন্তুষ্ট হন তাকে হেদায়াত থেকে বঞ্চিত করেন। তবে এ ক্ষেত্রে বান্দার প্রচেষ্টা হেদায়াত লাভের জন্য অনেকটা কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে পারে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,

“আর যারা আমার পথে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালায় তাদেরকে আমি অবশ্যই অবশ্যই আমার পথে পরিচালিত করব। নিশ্চয় আল্লাহ সৎকর্মপরায়নদের সঙ্গে আছেন। (সূরা আনকাবুত: ৬৯)

পবিত্র কুরআন ও হাদীসে হেদায়াত পাওয়ার অনেকগুলো উপায় ও উপকরণের কথা বর্ণিত হয়েছে তন্মধ্যে আমরা কয়েকটি উপকরণ তুলে ধরলাম।

১। দুআ করা। হেদায়াত লাভের অন্যতম একটি মাধ্যম হলো আল্লাহর নিকট আন্তরিকতার সাথে দুআ করা। কেননা দু’আর মাধ্যমে হেদায়াত লাভের বিষয়টি স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে শিক্ষা দিয়েছেন। বিশেষত প্রত্যেক সালাতে সূরাতুল ফাতিহা “আমাদেরকে সরল সঠিক পথ প্রদর্শন কর” বলে দুআ করার জন্য তাকিদ প্রদান করা হয়েছে।

২। ঈমান আনয়ন ও নেক আমল করা। হেদায়াত লাভের অন্যতম আরেকটি মাধ্যম হলো ঈমান আনার পাশাপাশি নেক আমল করা। আল্লাহ তায়ালা বলেন, নিশ্চয় যারা ঈমান আনে ও সৎকর্ম করে তাদের পালনকর্তা তাদের পথ প্রদর্শন করেন তাদের ঈমানের মাধ্যমে”। (সূরা ইউনুছ: ৯)

৩। কুরআন তিলাওয়াত করা। এমনিতেই কুরআন তিলাওয়াতের বিভিন্ন ফায়দা ও উপকারিতা রয়েছে। তবে অর্থ বুঝে একাগ্রতার সাথে কুরআন তিলাওয়াত করলে হেদায়াতের পথ সুগম হয়ে যায়। আল্লাহ তায়ালা বলেন নিশ্চয় এই কুরআন এমন পথের নির্দেশনা দেয় যা সবচেয়ে সরল। (সূরা বনি ইসরাঈল: ৯)

৪। আল্লাহ ও তার রাসূলের আনুগত্য করা। আল্লাহ তায়ালা বলেন, “বল, তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর ও রাসূলের আনুগত্য কর। অতপর যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও তাহলে তার দায়িত্বের জন্য তিনি দায়ী এবং তোমাদের দায়িত্বের জন্য তোমরা দায়ী। আর যদি তোমরা আনুগত্য কর তাহলে তোমরা সুপথ প্রাপ্ত হবে। বস্তুত রাসূলের উপর দায়িত্ব হল কেবল সু-স্পষ্টভাবে পৌছে দেয়া। (সূরা নূর: ৫৪)

৫। নেককার ব্যক্তিদের সঙ্গী হওয়া। পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা সৎ ও তাকওয়াবান ব্যক্তিদেরকে সঙ্গী বানানোর ফলে তারা হেদায়েতপ্রাপ্ত হয়েছে।

রাসূল (সা.) বলেন, মানুষ তার বন্ধুর রীতিনীতির অনুসারী হয়। কাজেই তোমাদের প্রত্যেকেই যেন লক্ষ করে সে কার সংগে বন্ধুত্ব করছে। (আবু দাউদ: ৪৮৩৩)

উল্লেখিত আলোচনা থেকে হেদায়েত পাওয়ার উপায়সমূহের মধ্য থেকে কয়েকটি মাধ্যমের কথা আমরা জানতে পারলাম। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে এই বিষয়গুলো মানার তাওফিক দিন। আমীন

প্রচারে : আসুন  কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।

আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *