• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

২৬০ প্রজাতির মাছের ৬৫ প্রজাতি হুমকিতে

বক্তব্য রাখছেন এলজিইডির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুল বাসেত -পূর্বকণ্ঠ

২৬০ প্রজাতির মাছের
৬৫ প্রজাতি হুমকিতে

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
বাংলাদেশের প্রাকৃতিক জলাশয়ে ২৬০ প্রজাতির দেশীয় মাছ রয়েছে। এর মধ্যে ৬৫টি প্রজাতিই হুমকিতে। ৩৫টি প্রজাতি জিন ব্যাংকে রেখে বংশ বিস্তারের লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। হাওরের মৎস্য সম্পদ, কৃষি সম্পদ, অবকাঠামো ও হাওরবাসীর জীবনমান উন্নয়ন বিষয় এক সেমিনারে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।
এলজিইডি ভবনে আজ ৭ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার ওয়ার্ল্ড ফিশের আয়োজনে, এলজিইডির বাস্তবায়নে ও জাইকার অর্থায়নে সেমিনারটি হয়েছে। জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেমিনারে আলোচনা করেন এলজিইডির নারায়ণগঞ্জ জোনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলি আব্দুল বাছেত, ওয়ার্ল্ড ফিশের প্রকল্প কর্মকর্তা ফিরোজ খান, হাওরের জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প কর্মকর্তা রায়হান সিদ্দিক, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কুমার পাল, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মতিউর রহমান, জেলা ব্র্যাক সমন্বয়ক মো. শফিকুল ইসলাম, পপি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম, সমকাল প্রতিনিধি মোস্তফা কামাল, ইটনার একজন উপকারভোগী আব্দুল ওয়াহাব প্রমুখ।
সেমিনারে বলা হয়, গত ৫ বছরে দেশের ৭টি জেলার ৩৭৩টি হাওরের মধ্যে ২৯টি হাওর নিয়ে এই প্রকল্পের কাজ হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, ২০১৭ যেখানে প্রতি হেক্টরে মাছের উৎপাদন ছিল ২৪৫ কেজি, ২০২২ সালে তা উন্নীত হয়েছে ৩৬০ কেজিতে। ২০১৭ সালে উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছের প্রজাতির সংখ্যা ছিল ১০৫টি। ২০২২ সালে সেই সংখ্যা উন্নীত হয়েছে ১২২টিতে।
একজন মৎস্য কর্মকর্তা বলেছেন, মৎস্যসম্পদ রক্ষায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বাবদ উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বরাদ্দ দেয়া হয় ১৫ হাজার টাকা। অথচ মৎস্য কর্মকর্তাকে বরাদ্দ দেয়া হয় মাত্র ৫ হাজার টাকা। এত অল্প টাকা দিয়ে কাজ করা কঠিন হয়ে যায়। এছাড়া জলমহাল সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করে ভূমি মন্ত্রণালয়। এতে মৎস্য মন্ত্রণালয়ের কিছু করার থাকে না। ফলে এসব জলমহালের কোনগুলি ইজারা দেয়া মৎস্য সম্পদের জন্য ক্ষতিকর হবে, এ ব্যাপারে মৎস্য কর্মকর্তাদের কিছু বলারও সুযোগ থাকে না। এ বিষয়ে সমন্বিত ব্যবস্থাপনা থাকা উচিত বলে তিনি মনে করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *