• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভৈরবে এতিম ও গরীব শিশুদের সুন্নাতে খাৎনা বিএডিসির দূরত্ব বিধান অমান্য করে প্রতিবেশির সেচের সীমায় সেচ প্রকল্প হোসেনপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড ও ডিজিটাল সনদ বিতরণ কিশোরগঞ্জের ঈশাঁখা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা কিশোরগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসে গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কার্যালয়ে শোকসভা তাড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচন করার বিধানের রিট খারিজ কুলিয়ারচরে রাস্তার পাশে ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এক বাড়িতে হামলা, আহত ৩ কিশোরগঞ্জে অশোক-ঝুমু স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা কিশোরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজা নিয়ে ৬ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

মুর্হারম ও আশুরা ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

রাসূলুল্লাহ (সা.) এর সময়ে ও তাঁর পূর্বে রোমান, পারসিয়ান ও অন্যান্য জাতির মধ্যে তাদের নিজস্ব ক্যালেন্ডার বা পঞ্জিকার প্রচলন থাকলেও আরবদের মধ্যে কোন নির্ধারিত বর্ষ গণনা পদ্ধতি ছিল না। তখন বিভিন্ন ঘটনার উপর নির্ভর করে তারিখ বলা হতো। যেমন- অমুক ঘটনার বছর, অমুক ঘটনার এত বছর আগে বা পরে ইত্যাদি। একপর্যায়ে খলীফা উমর (রা.) এর খিলাফতকালের তৃতীয় বা চতুর্থ বৎসরে আবু মুসা আশআরী (রা.) তাঁকে পত্র মারফত জানান যে, সরকারি ফরমানগুলিতে সন-তারিখ না থাকায় প্রশাসনিক জটিলতা দেখা দেয়; তাই একটি বর্ষপুঞ্জি ব্যবহারের প্রয়োজন। তার এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে খলীফা উমর (রা.) সাহাবীগণের সাথে পরামর্শ করে মুসলিমদের জন্য নিজস্ব ক্যালেন্ডার বা পঞ্জিকা চালুর সিদ্ধান্ত নেন। অবশেষে রাসূল (সা.) এর ইন্তেকালের প্রায় ৬ বৎসর পরে ১৬ বা ১৭ হিজরী সাল থেকে হিজরী সাল গণনা শুরু করেন এবং মুর্হারম মাসকে সাহাবীগণের ঐক্যমতের ভিত্তিতে ইসলামী পঞ্জিকার প্রথম মাস হিসেবে নির্ধারণ করেন। (তবারী, আত তারীক: ২/৩-৪)
আর মহান আল্লাহর সৃষ্টি বারোটি মাসের মধ্যে যেই চারটি মাসকে হারাম বা সম্মানিত করা হয়েছে তার মধ্য থেকে অন্যতম একটি মাস হলো মুর্হারম মাস। এই মাসে সকল প্রকার পাপ ও অন্যায় থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়ে মহান আল্লাহ বলেন, তোমরা এই মাস সমূহে (অর্থাৎ হারাম চারটি মাসে তথা যুলকাদ, যুলহাজ¦, মুর্হারম ও রজবে) নিজেদের উপর কোন যুলম করো না। (সূরা তওবা: ৩৬)
মুর্হারম মাসকে বিশেষভাবে মর্যাদা প্রদান করে শাহরুল্লাহ তথা আল্লাহর মাস বলে আখ্যা দিয়ে রাসূল (সা.) বলেছেন, রমযান মাসের ছিয়ামের পরে আল্লাহ তা’য়ালার মাস মুর্হারমের রোযাই সবচেয়ে ফযীলতপূর্ণ। (তিরমিযি: ৭৪০)
কাজেই এই মাসের মর্যাদা রক্ষা করে চলা আমাদের সকলেরই কর্তব্য।
আশুরা: আশুরা শব্দটি আরবী আশারা হতে নির্গত, যার অর্থ হলো দশ। আর অধিকাংশের মতে মুহাররম মাসের দশম তারিখকেই আশুরার দিন বলে। ইসলামের পূর্বযুগ হতেই এই দিনে ছিয়াম রাখার প্রচলন ছিল। জাহিলী যুগে মক্কার মানুষেরা আশুরার দিন ছিয়াম পালন করত এবং কা’বা ঘরের গেলাফ পরিবর্তন করত। হিজরতের পূর্বে মক্কায় অবস্থান কালে রাসূল (সা.) নিজেও এই দিন সিয়াম পালন করতেন। মদীনায় হিজরতের পরে তিনি এই দিনে ছিয়াম পালনের জন্য মুসলিমদেরকে নির্দেশ দেন। এই বিষয়ে ইবনু আব্বাস (রা.) বলেন, নবী‎ (সা.) যখন মদীনায় আগমন করেন, তখন তিনি মদীনাবাসীকে এমনভাবে পেলেন যে, তারা একদিন সাওম পালন করে অর্থাৎ সে দিনটি হল ‘আশুরার দিন। তারা বলল, এটি একটি মহান দিবস। এ এমন দিন যে দিনে আল্লাহ্ মূসা (আ.) -কে নাজাত দিয়েছিলেন এবং ফির‘আউনের সম্প্রদায়কে ডুবিয়ে দিয়েছিলেন। অতঃপর মূসা (আ.) শুকরিয়া হিসেবে এদিন সাওম পালন করেছেন। তখন নবী‎ (সা.) বললেন, তাদের তুলনায় আমি হলাম মূসা (আ.)-এর অধিক নিকটবর্তী। কাজেই তিনি নিজেও এদিন সাওম পালন করেছেন এবং এদিন সাওম পালনের নির্দেশ দিয়েছেন। (বুখারী: ৩৩৯৭)
অন্যত্র এসেছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) যখন ‘আশূরার দিন ছিয়াম পালন করেন এবং লোকদের ছিয়াম পালনের নির্দেশ দেন, তখন সাহাবীগণ বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ! ইয়াহুদ এবং নাসারা এই দিনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে থাকে। এ কথা শুনে রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, ইনশাআল্লাহ আগামী বছর আমরা নবম তারিখেও ছিয়াম পালন করব। বর্ণনাকারী বললেন, এখনো আগামী বছর আসেনি, এমতাবস্থায় রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর ইন্তেকাল হয়ে যায়। (মুসলিম: ২৫৫৬)
উল্লেখিত হাদীসদ্বয় থেকে বুঝা যায় যে, আশুরার দিনের অন্যতম একটি আমল হল ছিয়াম রাখা। পাশাপাশি এটাও বুঝা যায় যে, আশুরার ছিয়ামের সংখ্যা হল দুইটি। কাজেই আশুরা উপলক্ষে ছিয়াম রাখতে চাইলে মুর্হারম মাসের ৯ ও ১০ তারিখে ছিয়াম রাখতে হবে। কোন কারণে ৯ তারিখে রাখতে না পারলে ১০ ও ১১ তারিখে দুইটি ছিয়াম রাখতে হবে। (ছহীহ ইবনে খুমাইমা: ২০৯৫) তবে ৯ ও ১০ তারিখ ছিয়াম রাখাই উত্তম।
আশুরার ছিয়ামের ফযীলত: রমযানের ছিয়াম ফরয হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত আশুরার ছিয়াম ফরয ছিল। রমযানের ছিয়াম ফরয হওয়ার পর আশুরার ছিয়াম ঐচ্ছিক বা নফল ইবাদত বলে গণ্য হয়। তা পালন না করলে কোনো গোনাহ হবে না, তবে পালন করলে রয়েছে অফুরন্ত সওয়াব। এই মর্মে রাসূল (সা.) বলেছেন, আশুরার ছিয়ামের ব্যাপারে আমি আল্লাহর কাছে আশাবাদী যে, তাতে পূর্ববর্তী বছরের গুনাহ সমূহের কাফ্ফারা হয়ে যাবে। (মুসলিম: ২৬৩৬)
উপরোল্লিখিত আলোচনা থেকে আমরা মুর্হারম ও আশুরা সম্পর্কে জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত আশুরায়ে মুহাররমে নবী (সা.) এর আদর্শ অনুযায়ী ইবাদত করা তথা ছিয়াম রাখা এবং আশুরাকে কেন্দ্র করে যত ধরণের শিরকী, বেদআতী, কুসংস্কার ও জাহেলী কর্মকা- হয় সেগুলো থেকে নিজেদেরকে হেফাজত করা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!