• রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৬ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে ভৈরবে সংবর্ধনা কিশোরগঞ্জে পরিমাপে কম দেওয়ার দায়ে দুই ফিলিং স্টেশনে জরিমানা ৩ লাখ কিশোরগঞ্জ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতির বিদায় সংবর্ধনা পাকুন্দিয়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির লাশ উদ্ধার পাকুন্দিয়ায় হত্যা মামলার প্রধান আসামি পঞ্চগড় থেকে গ্রেফতার হোসেনপুরে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা কিশোরগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর নামে গড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জীর্ণদশা ভৈরবের নদ-নদী খাল-বিল ভরাট, ব্যাহত হচ্ছে নৌ-যোগাযোগ ও সেচ ব্যবস্থা, সংকটে মৎস্যসম্পদসহ জীব-বৈচিত্র পাকুন্দিয়ায় ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন কিশোরগঞ্জে সফলতার সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ মীমাংসায় মহিলা পরিষদ

ইবাদত বাতিল হওয়ার কারণ সমূহ ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

দুনিয়াতে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা অনেক ইবাদত বন্দেগী করে থাকেন, পাশাপাশি এমন কিছু কাজের সাথে তারা জড়িত হয়ে পড়েন, যেই কাজগুলো করলে ইবাদত বন্দেগী আবার বাতিলও হয়ে যায়। যার কারণে তারা বিভিন্ন আমল করেও পরকালে জাহান্নামের অধিবাসী হবেন। আর এই ব্যাপরে সতর্ক করার জন্যই মহান আল্লাহ বলে, সেদিন অনেক চেহেরা হবে অবনত, (তারা এমন মানুষ যারা) আমল করে ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত, অথচ তারা জ্বলন্ত অগ্নিতে (অর্থাৎ জাহান্নামে) প্রবেশ করবে। (সূরা গাশিয়াহ: ২-৪)
তাই আমাদের সকলেরই উচিত ইবাদত বাতিল হওয়ার কারণ সমূহ থেকে নিজেদেরকে বাঁচিয়ে চলা। আর এখানে ইবাদত বাতিল হওয়ার কিছু কারণ তুলে ধরা হল:
১। শিরক করলে। মহান আল্লাহর সাথে কোন অংশীদার স্থাপন করাকে শিরক বলে। আর শিরক করলে ইবাদত বাতিল হয়ে যায়। এই ব্যাপারে আল্লাহ তায়ালা বলেন, আর অবশ্যই তোমার কাছে এবং তোমার পূর্ববর্তীদের কাছে ওহী পাঠানো হয়েছে যে, তুমি শিরক করলে তোমার কর্ম বাতিল হবেই। আর অবশ্যই তুমি ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে। (সূরা যুমার: ৬৫)
২। কুফরী করলে। যারা কুফরী কাজের সাথে জড়িত হয় তাদের আমলও বাতিল হয়ে যায়। কেননা কাফেরদের আমলের ব্যাপারে আল্লাহ তায়ালা বলেন, আর তারা যে কাজ করেছে আমি সেদিকে অগ্রসর হব। অতঃপর তাকে বিক্ষিপ্ত ধূলিকণায় পরিণত করে দেব। (সূরা ফুরকান : ২৩)
৩। রিয়া বা লোক দেখানো আমল হলে। যেই আমল সম্পাদনের সময় রিয়া যুক্ত থাকে সেই আমল বাতিল হয়ে যায়। কেননা আমল করতে হয় একনিষ্ঠতার সাথে শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে। যদি অন্য কোন উদ্দেশ্য আমল করার পেছনে থাকে তবে সেখানে আর একনিষ্ঠতা থাকেনা, বরং তা ছোট শিরকে পরিণত হয়। এই ব্যাপারে রাসূল (সা.) বলেন, মহান আল্লাহ বলেন, আমি শরীকদের শিরক হতে সম্পূর্ণ মুক্ত। যদি কোন লোক কোন কাজ করে এবং এতে আমি ছাড়া অপর কাউকে শরীক করে, তবে আমি তাকে ও তার শিরকী কাজকে প্রত্যাখ্যান করি। (মুসলিম: ৭৩৬৫)
৪। রাসূল (সা.) এর পদ্ধতি ছাড়া অন্য কোন পদ্ধতিতে ইবাদত করলে। কেননা আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, হে মুমিনগণ, তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রাসূলের আনুগত্য কর। আর তোমরা তোমাদের আমলসমূহ বিনষ্ট করো না। (সূরা মুহাম্মদ: ৩৩)
রাসূল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি এমন কোন কর্ম করলো যাতে আমাদের নির্দেশনা নেই,তা প্রত্যাখ্যাত হবে। (মুসলিম: ৪৩৮৫)
৫। উপার্জন হারাম হলে। হারাম উপার্জনের খাবার খেয়ে, পোশাক পরিধান করে ইবাদত করলে সেই ইবাদত গ্রহণীয় হয় না। কেননা হাদীসে এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, “আল্লাহ্ তা’আলা পবিত্র, তিনি পবিত্র ও হালাল বস্তু ছাড়া গ্রহণ করেন না। আর আল্লাহ্ তা’আলা তার প্রেরিত রাসূলদের যে হুকুম দিয়েছেন মুমিনদেরকেও সে হুকুম দিয়েছেন। তিনি বলেছেন,“হে রাসূলগণ! তোমরা পবিত্র ও হালাল জিনিস আহার কর এবং ভালো কাজ কর। আমি তোমাদের কৃতকর্ম সম্বন্ধে জ্ঞাত”। (সূরাহ্ আল মু’মিনূন: ৫১) তিনি (আল্লাহ্) আরো বলেছেন,“তোমরা যারা ঈমান এনেছ শোন! আমি তোমাদের যে সব পবিত্র জিনিস রিয্ক্ব হিসেবে দিয়েছি তা খাও”-(সূরাহ্ আল বাক্বারাহ্ : ১৭২)। অতঃপর তিনি এক ব্যক্তির কথা উল্লেখ করলেন, যে দূর-দূরান্ত পর্যন্ত দীর্ঘ সফর করেছে। ফলে সে ধুলি ধূসরিত রুক্ষè কেশধারী হয়ে পড়ে। অতঃপর সে আকাশের দিকে হাত তুলে বলে,“হে আমার প্রতিপালক! অথচ তার খাদ্য হারাম, পানীয় হারাম, পরিধেয় বস্ত্র হারাম এবং আহার্যও হারাম। কাজেই এমন ব্যক্তির দু’আ তিনি কি করে কবুল করতে পারেন? (মুসলিম: ২২৩৬)
৬। নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করলে চল্লিশ দিন সালাত কবূল হয় না। কেননা হাদীসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি শরাব পান করে এবং মাতাল হয়, চল্লিশ দিন পর্যন্ত তার নামাজ কবুল হয় না। (ইবনে মাজাহ: ৩৩৭৭)
৭। অশ্লীল কাজে লিপ্ত নারীর দোআ কবূল হয় না। রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘অর্ধরাতে আকাশের দরজা খোলা হয়। তখন আল্লাহ আহŸান করে বলেন, কোন প্রার্থনাকারী আছে কি তার প্রার্থনা কবুল করা হবে? কোন সাহায্য প্রার্থী ব্যক্তি আছে কি তাকে সাহায্য করা হবে? কোন সংকটে নিমজ্জিত ব্যক্তি আছে কি তার সংকট দূর করা হবে? এ সময় কোন মুসলমান দো’আ করলে তার দো’আ কবুল করা হয়। তবে অশ্লীল কাজে লিপ্ত যে নারী তার প্রার্থনা কবুল হয় না। (আহমদ, তারগীব: ৩৪২০)
৮। অন্যের নামে গীবত করলে, মিথ্যা অপবাদ দিলে বা কাউকে গালি দিলেও পরকালে নিজের নেকী শেষ হয়ে যাবে। আবূ হুরাইরাহ্ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, তোমরা কি বলতে পার অভাবী লোক কে? তারা বললেন, আমাদের মাঝে যার দিরহাম (টাকা কড়ি) ও ধন-সম্পদ নেই সে তো অভাবী লোক। তখন তিনি বললেন, আমার উম্মতের মধ্যে সে প্রকৃত অভাবী লোক, যে ব্যক্তি কিয়ামতের দিন সলাত, সাওম ও যাকাত নিয়ে আসবে; অথচ সে এ অবস্থায় আসবে যে, সে কাউকে গালি দিয়েছে, কাউকে অপবাদ দিয়েছে, অমুকের সম্পদ ভোগ করেছে, অমুককে হত্যা করেছে ও আরেকজনকে প্রহার করেছে। এরপর সে ব্যক্তিকে তার নেক ‘আমল থেকে দেয়া হবে, অমুককে নেক ‘আমল থেকে দেয়া হবে। এরপর যদি পাওনাদারের হক্ব তার নেক ‘আমল থেকে পূরণ করা না যায় তাহলে সে ঋণের পরিবর্তে তাদের পাপের একাংশ তার প্রতি নিক্ষেপ করা হবে। এরপর তাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। (মুসলিম: ৬৪৭৩)
৯। উপকার করে খোঁটা দিলে উপকারের সওয়াব নষ্ট হয়ে যায়। এই ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, হে মুমিনগণ, তোমরা খোঁটা ও কষ্ট দেয়ার মাধ্যমে তোমাদের সদাকা বাতিল করো না। (সূরা বাকারা: ২৬৪)
উল্লেখিত আলোচনা থেকে আমরা ইবাদত বাতিল হওয়ার কতগুলো কারণের ব্যাপারে জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত এই কারণগুলো থেকে বিরত থাকা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফীক দিন। আমীন

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রাঃ), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!