• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪০ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো

রাকিব মাহমুদের খামারের লাল বাহাদুর এখন কালো রং ধারণ করেছে -পূর্বকণ্ঠ

লাল বাহাদুরের রং পাল্টে
হয়ে গেল কুচকুচে কালো

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জের অন্যতম বড় পশুর হাট শোলাকিয়া গরুর হাট। এই হাটে ১৪ জুন শুক্রবার সাপ্তাহিক পশুর হাটে করিমগঞ্জ পৌরসভার দরগাবাড়ি এলাকার খামারি রাকিব মাহমুদ নিয়ে এসেছেন তিনটি বেশ বড় ষাঁড়। এর মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর ষাঁড়টি বেশ অবাক করার মত। এক বছর আগেও এর রং ছিল একেবারে লাল। রাকিব মাহমুদ এর নাম দিয়েছিলেন লাল বাহাদুর। কিন্তু এক বছর আগে হঠাৎ এর রং কালো হতে শুরু করলো। এখন একেবারেই কালো। মাথার ওপরের দিকে সামান্য একটু জায়গা লাল রয়ে গেছে। কিন্তু এর নাম পাল্টানো হয়নি, লাল বাহাদুরই রয়ে গেছে।
রাকিব মাহমুদ জানিয়েছেন, এসব ষাঁড় তাঁর খামারের গাভি থেকে জন্ম নেওয়া। তিনি গাভির দুধ দোহন করেন না। পুরো দুধই বাছুরদের খাওয়ান। এভাবেই পরম যত্নে ষাঁড়গুলো লালন করেছেন। লাল বাবাহাদুর ছাড়া বাকি দুটি সাদা-কালো মিশেল। লাল বাহাদুর আর অন্য একটি সম আকৃতির ষাঁড়ের দাম হাঁকছেন ৮ লাখ টাকা করে। অন্যটির দাম হাঁকছেন ৭ লাখ টাকা। বড় দুটির মাংস হবে আনুমানিক ২০ মণ করে। ছোটটির মাংস হবে আনুমানিক ১৫ মণ। এখানে যদি উপযুক্ত দাম না পান তাহলে ঢাকায় নিয়ে যাবেন বলে জানালেন।
এদিকে প্রাণিসম্পদ বিশেষজ্ঞ সাবেক জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, গরুর রং এভাবে পাল্টাতে পারে। হরমুনের কারণে, অর্থাৎ রঞ্জক উপাদান মেলানিনের মাত্রা বেড়ে গেলে রং কালো হতে পারে। এটা অসম্ভব নয়। তবে আলাদা রং ব্যবহার করলে গায়ে পাটি দিয়ে ঘষা দিলেই পরীক্ষা হয়ে যাবে। অবশ্য ষাঁড়টি বাজারে আনার পর গায়ে গোবর লেগে ছিল। পানি দিয়ে গোসল করিয়ে গামছা দিয়ে মুছে দেওয়া হয়েছে। তাতে কোন রং ওঠেনি, বিবর্ণও হয়নি। এতে পরীক্ষা হয়ে গেল, সত্যিই লাল বাহাদুরের রং পাল্টে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *