• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২:১২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে বিবাহ : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে বিবাহ

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

মানব সভ্যতার মূল উপাদান হল ‘মানুষ’। আর মানুষের জন্ম ও সংরক্ষণ হয় পরিবারের মাধ্যমে। আর পরিবার গঠিত হয় বিবাহের মাধ্যমে। তাই বলা যায় যে, বিবাহ ও পরিবারই হল মানব সমাজের মূল ভিত্তি এবং এর উপরই নির্ভর করে মানব সভ্যতার অস্তিত্ব। তাই বিবাহ করাকে ইসলামে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের অন্যতম পথ হিসাবে গণ্য করা হয়েছে। মহান আল্লাহ বলেন, তোমাদের মধ্যে যারা বিবাহহীন তাদের বিবাহ সম্পন্ন কর এবং তোমাদের দাস ও দাসীদের মধ্যে যারা সৎ তাদেরকেও। তারা যদি অভাবগ্রস্থ হয় আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে অভাবমুক্ত করে দিবেন। আল্লাহ তো প্রাচুর্যময়, সর্ববিষয়ে জ্ঞাত। আর যাদের বিবাহ করার সামর্থ নেই, তারা যেন সংযম অবলম্বন করে যতক্ষণ না আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে অভাবমুক্ত করেন। (সূরা নূর: ৩২-৩৩)
আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, হে যুবকের দল, তোমাদের মধ্যে যারা বিবাহ করার (অর্থাৎ বিবাহের দায়িত্বাদি পালন করার) সামর্থ রাখে তারা যেন বিয়ে করে। কেননা বিবাহ তার দৃষ্টিকে সংযত রাখবে এবং লজ্জাস্থানকে সংরক্ষিত রাখবে। আর যার বিয়ে করার সামর্থ নেই, সে যেন সাওম পালন করে, কেননা সাওম তার যৌনতাকে দমন করবে। (বুখারী: ৫০৬৬)
অন্যত্র এসেছে, আয়িশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, বিবাহ করা আমার সুন্নত। যে ব্যক্তি আমার সুন্নত মুতাবিক কাজ করলো না সে আমার দলভুক্ত নয়। তোমরা বিবাহ কর, কেননা আমি তোমাদের সংখ্যাধিক্য নিয়ে অন্যান্য উম্মতের সামনে গর্ব করবো। অতএব যার সামর্থ্য আছে সে যেন বিবাহ করে এবং যার সামর্থ নেই সে যেন সিয়াম রাখে। কারণ সাওম তার জন্য জৈবিক উত্তেজনা প্রশমনকারী। (ইবনে মাজাহ: ১৮৪৬)
ইসলামী শরীয়তে বিবাহের অবস্থান বা হুকুম: অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে বিবাহের হুকুম ভিন্ন রকম হয়ে থাকে। যেমন- স্বাভাবিক অবস্থায় (অর্থাৎ বিবাহ করার সামর্থ আছে, আবার বিয়ে না করলে কোন ধরণের পাপে লিপ্ত হওয়ার আশংকাও নেই তখন) বিয়ে করা সুন্নত। আর যদি বিয়ে করার সামর্থ থাকে এবং বিয়ে না করলে যিনা বা সমকামিতায় লিপ্ত হওয়ার আশংকা থাকে তখন বিয়ে করা ওয়াজিব। পক্ষান্তরে বিয়ে করলে যদি স্ত্রীর উপর কোনরূপ অবিচার করার আশংকা থাকে তখন বিয়ে করা হারাম। আর কারো যদি শারিরীক সক্ষমতা থাকে কিন্তু আর্থিক সক্ষমতা না থাকে তখন তার বিধান হল সে সাওম পালন করবে।
বিবাহের ফজিলত: বিবাহ করার অনেক ফজিলত রয়েছে। যেমন-
১। বিবাহ করা নবী রাসূলদের আদর্শ। আল্লাহ বলেন, আমি তোমার পূর্বেও রাসূলগণকে পাঠিয়েছিলাম, আর তাদেরকে দিয়েছিলাম স্ত্রী ও সন্তানাদি। (সূরা রা’দ: ৩৮)
২। প্রশান্তি লাভ হয়। আল্লাহ বলেন, তাঁর নিদর্শনের মধ্যে হল এই যে, তিনি তোমাদের জন্য তোমাদের মধ্য হতেই তোমাদের সঙ্গিণী সৃষ্টি করেছেন যাতে তোমরা তার কাছে শান্তি লাভ করতে পার আর তিনি তোমাদের মধ্যে পারস্পরিক ভালবাসা ও দয়া সৃষ্টি করেছেন। এর মাঝে অবশ্যই বহু নিদর্শন আছে সেই সম্প্রদায়ের জন্য যারা চিন্তা করে। (সূরা রুম: ২১)
৩। যিনা ও সমকামিতা থেকে বাঁচা যায়। কেননা রাসূল (সা.) বলেছেন, বিবাহ দৃষ্টিকে সংযত রাখে এবং লজ্জাস্থানকে সংরক্ষিত রাখবে। (বুখারী: ৫০৬৬)
৪। সদকাহর সওয়াব হয়। আবূ যর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ (সা.) বলেছেন, প্রত্যেক ‘তাসবীহ’ অর্থাৎ সুবহা-নাল্লা-হ বলা সদক্বাহ্, প্রত্যেক ‘তাকবীর’ অর্থাৎ আল্লাহু আকবার বলা সদক্বাহ্, প্রত্যেক ‘তাহমীদ’ বা আলহামদুলিল্লা-হ বলা সদক্বাহ্। প্রত্যেক ‘তাহলীল’ বা ‘লা-ইলা-হা ইল্লাল্লা-হ’ বলা সদক্বাহ্। নেক কাজের নির্দেশ দেয়া, খারাপ কাজ থেকে ফিরিয়ে রাখা সদক্বাহ্। নিজের স্ত্রী অথবা দাসীর সাথে সহবাস করাও সদক্বাহ্। সাহাবীগন আরয করলেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমাদের কেউ যদি নিজের কামভাব চরিতার্থ করে তাতেও কি সে সওয়াব পাবে? উত্তরে রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, আমাকে বলো, কোন ব্যক্তি যদি হারাম উপায়ে কামভাব চরিতার্থ করে তাহলে সেকি গুনাহগার হবে না? ঠিক এভাবেই হালাল উপায়ে (স্ত্রী অথবা দাসীর সাথে) কামভাব চরিতার্থকারী সাওয়াব পাবে। (মুসলিম, মিশকাত: ১৮৯৮) এছাড়াও বিবাহ করার আরো নানাবিধ উপকার রয়েছে।
বিবাহ না করার কুফল: বিবাহ করার যেমন অনেক ফজিলত বা লাভ রয়েছে ঠিক তেমনভাবে বিবাহ না করার কিছু কুফলও রয়েছে। প্রথমত, বিবাহ করার যেই ফজিলত রয়েছে সেই ফজিলত থেকে বঞ্চিত হবে। দ্বিতীয়ত, বিবাহ না করার কারণে অবৈধ প্রেম-ভালবাসা, যিনা ব্যভিচার এবং সমকামিতার মত অন্যায়ে মানুষ জড়িয়ে যায়। এমনকি ধর্ষণের মত নিকৃষ্ট কাজ করতেও মানুষ দ্বিধাবোধ করেনা। এছাড়াও বিয়ে না করার আরো অনেক কুফল রয়েছে।
তাই সামর্থবান সকলেরই উচিত বিবাহ করে নেওয়া আর যারা বিবাহ করার সমর্থ রাখেনা তাদের উচিত সামর্থবান হওয়ার আগ পর্যন্ত ধৈর্য ধারণ করে অপেক্ষা করা।
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!