• শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

গৃহকর্মী মনিকে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় গৃহকর্তী জবা গ্রেফতার

গৃহকর্মী মনিকে অমানবিক নির্যাতনের
ঘটনায় গৃহকর্তী জবা গ্রেফতার

# রাজন সরকার :-

ঢাকার উত্তরার একটি বাসায় শিশু গৃহকর্মীকে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্ত প্রধান আসামি তাসলিমা ইয়াসমিন জবা (২৬) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। ২৭ সেপ্টেম্বর রোববার দিবাগত গভীর রাতে ঢাকাস্থ উত্তরার ১২ নম্বর সেক্টরের ১৯ নম্বর রোডের ২ নম্বর বাসার ৬তলা থেকে তাকে গ্রেফতার করে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ। তবে তার স্বামী মো. মাসুদ ওরফে রয়েলকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় গত সোমবার সকালে গৃহকর্তী তাসলিমা ইয়াসমিন জবা ও তার স্বামী মো. মাসুদ ওরফে রয়েলকে অভিযুক্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে গৃহকর্মী মনির বাবা আ. মোতালিব বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। মনির বাড়ি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের খামা গ্রামে।
এ নিয়ে জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত প্রতিবেদন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে এলে উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্রী তপন চন্দ্র সাহার নিদের্শে এ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পাকুন্দিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া।
পাকুন্দিয়া থানা সূত্রে জানা যায়, এ ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানার উপ-পরিদর্শক আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গত রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে পাকুন্দিয়া থানায় আসে। পরে পাকুন্দিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়াকে সঙ্গে নিয়ে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। সেখানে গিয়ে নির্যাতিতা গৃহকর্মী মনি ও তার মা নিলুফার সঙ্গে আলাপ করে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করেন। পরে মনির মা নিলুফাকে সঙ্গে নিয়ে গৃহকর্মী সরবরাহকারী মরিয়মের বাড়িতে গিয়ে তাকে আটক করে উত্তরা পশ্চিম থানায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে মরিয়মকে সঙ্গে নিয়ে উত্তরার ওই গৃহকত্রীর বাসায় গিয়ে জবাকে গ্রেফতার করে উত্তরা পশ্চিম থানায় নিয়ে আসে। তার স্বামী রয়েলকে বাসায় না পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার করা যায়নি।
মামলা সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ১ ডিসেম্বর পার্শ্ববর্তী তালদশী গ্রামের ইউনুছ আলীর মেয়ে মরিয়মের মাধ্যমে উত্তরার রয়েল-জবা দম্পতির বাসায় মাসিক তিন হাজার টাকা বেতনে গৃহকর্মীর কাজ দেন শিশু মনিকে (১১)। এর এক মাস পর থেকেই নানা বিষয় নিয়ে গৃহকর্ত্রী জবা মনিকে বকাঝকা ও নির্যাতন শুরু করে। তাকে দিয়ে দিনরাত বাসার সব কাজ করাত। ঘাম ঝড়ানো খাটুনি শেষে খাবার চাইলে সেটিও দিত না। মাঝে মধ্যে পঁচা বাসি খাবার দিত। তা সে খেতে পারত না। ক্ষুধার জ্বালায় ছটফট করত। এসব নিয়ে গৃহকর্তা রয়েলের কাছে বিচার দিলে তিনিও তাকে লাঠি দিয়ে মারধর করতেন। কোন কাজ শেষ করতে একটু দেরি হলেই স্বামী-স্ত্রী মিলে গরম খুন্তি দিয়ে ছ্যাঁকা দেওয়া হত তার শরীরে। এছাড়াও লাঠি ও রুটি বানানোর বেলন দিয়ে বেধড়ক পেটাত। খুন্তির ছ্যাঁকা আর লাঠি ও বেলনের পিটুনিতে তার মাথা ও হাত-পায়ের আঙ্গুলসহ পুরো শরীর ক্ষত বিক্ষত হয়ে গেছে। সে এখন হাঁটতে ও চলতে পারে না। মরিয়মের মাধ্যমে মেয়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে তার মা নিলুফা ২১ সেপ্টম্বর ওই বাসা থেকে মেয়েকে উদ্ধার করে এনে ২৩ সেপ্টেম্বর পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করান। মনি বর্তমানে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিছানায় যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে।
পাকুন্দিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া বলেন, এ বিষয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ গত রোববার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামি জবাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় গৃহকর্মী মনির বাবা আ. মোতালিব গৃহকর্ত্রী তাসলিমা ইয়াসমিন জবা ও তার স্বামী মো. মাসুদ ওরফে রয়েলকে আসামী করে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!