• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ভৈরবে বিশাল কয়লার মোকাম, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখছে, বেচা-কেনা চলছে মৌসুমের শেষ সময়ের

# মিলাদ হোসেন অপু :-
কিশোরগঞ্জ জেলার একটি অর্থ ভান্ডারে স্তম্ভ ভৈরব উপজেলা। জল ও স্থল পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকায় জায়গাটি প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবসায়ীক নগরী। ভৈরবে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী কাপড়ের হাট, রয়েছে ধান-চালের মোকাম, দেশে বৃহত্তর পাদুকা ব্যবসা ও কয়েল ব্যবসা। সেই সাথে ২০ বছরে যুক্ত হয়েছে ভৈরব পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় কয়লার একটি বৃহত্তর বাজারে। যেখানে বিদেশ থেকে আমদানীকৃত কয়লা বিক্রি হয় বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে। এ ব্যবসার কারণে সৃষ্টি হয়েছে প্রায় ১০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান। শুধু ভৈরবে নয় ভৈরবের বাইরের মানুষসহ প্রায় ৪০ হাজার মানুষের হয়েছে রুটি রোজগারের ব্যবস্থা। এই কয়লা ব্যবসাকে উদ্দেশ্য করে ফেরিঘাট এলাকায় গড়ে উঠেছে ছোট বড় ২ শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৯০ দশক থেকেই ভৈরবে কয়েকজন ব্যবসায়ী ছোট্ট পরিসরে ভারত থেকে বাল্কহেড নৌকা বোঝায় করে কয়লা এনে ব্যবসা শুরু করেন ফেরিঘাটে। ২০০৩ সালের আগে জায়গাটি ছিল মেঘনা ফেরিঘাট ভৈরব-আশুগঞ্জ ফেরি পরাপারে যোগাযোগ মাধ্যম। এখানে ছিল ১ হাজার লোকের কর্মসংস্থান। দিন বদলের পালায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম সৈয়দ নজরুল ইসলাম সড়ক সেতু নির্মাণ হওয়াতে ফেরিঘাট এলাকার মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়ে। পরে ছোট কয়লার বাজারটি ধীরে ধীরে গড়ে উঠে বাংলাদেশের একটি বৃহত্তর কয়লার হাট। ভৈরবের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী উছমান মিয়া ও মানু মিয়াসহ ৪/৫ জনে প্রথমে কয়লার ব্যবসা শুরু করেন। প্রথম দিকে সুনামগঞ্জের তাহেরপুর, বড়ছড়া, চাড়াগাঁও ও বাধাঘাট হয়ে ভৈরব কয়লা আসে ভারত থেকে। বর্তমানে ইন্দোনিয়েশিয়া, আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া থেকেও আমদানী হচ্ছে এই কয়লা। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ছোট ছোট জাহাজে করে ভৈরবে পৌঁছে কয়লা। এখান থেকেই শ্রমিকদের মাধ্যমে কয়লা ট্রাক বোঝায় করে বাংলাদেশের বিভিন্ন কল-কারখানা ও ইট ভাটাগুলোতে যায়। এই মোকাম থেকে কয়লা যায় নরসিংদী, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ময়মনসিংহ, মানিকগঞ্জ, শেরপুর, নেত্রকোনা, সিরাজগঞ্জ, ফরিদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভৈরব মেঘনা ফেরীঘাট এলাকায় কয়লা বোঝায় ১৫টি জাহাজ নোঙর করে আছে খালাসের অপেক্ষায়। অপরদিকে ভৈরব মেঘনা ব্রীজে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর নিচেসহ রেলওয়ে জায়গায় পৃথকভাবে কয়লার স্তুপ রাখা হয়েছে। মেঘনা নদীর তীরে বিশাল জায়গায় নোঙর করা কোন কোন জাহাজ থেকে শ্রমিকরা মাল আনলোড করছে আবার কোন কোন জাহাজ থেকে এসকেভেটর দিয়ে জাহাজের মাল খালাস করছে। এছাড়া শ্রমিকরাও সারিবদ্ধভাবে ট্রাকে কয়লা লোড আনলোড করছে।
ভৈরব পৌর শহরের রামশংকরপুর এলাকার কয়লা শ্রমিক রইছ মিয়া বলেন, আমি এই কয়লার আড়তে প্রায় ৩০ বছর যাবত শ্রমিক হিসেবে কাজ করছি। ১২ টাকা মজুরী থেকে কাজ শুরু করে এখন ৭শ টাকা পর্যন্ত মজুরী পায়। সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কাজ করতে হয়। কাজের চাপ না থাকলে বিকাল ৫টার ভেতরে আমরা কাজ শেষ করে ফেলি। মৌসুমের প্রথম দিকে আমাদের কাজ বাড়ে, তখন মজুরীও কিছুটা বেড়ে যায়।
ভৈরব পৌর শহরের কালিপুর এলাকার শ্রমিক কালাম, লতিফ ও চাপাইনাবগঞ্জের মোফাজ্জল জানান, কয়লার মৌসুমের শেষ সময়। কয়লার দাম বাড়াতে কয়লা আমদানী কমে গেছে। তাই আমাদের কাজ কম। আর কয়েকদিন গেলে আমাদের মধ্যে অনেকে বেকার হয়ে পড়বে। জিনিস পত্রের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে কিন্তু আমাদের মজুরী বাড়েনি। মালিকরা যদি আমাদের বেতন বাড়িয়ে দেয় তাহলে আমরা পরিবার নিয়ে খেয়ে বেঁচে থাকবো।
ভৈরব মেঘনা ফেরীঘাট কয়লা ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি. এর সাংগঠনিক সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন দেলু জানান, ভৈরবে কয়লা ব্যবসায়ীদের সুদিন চলছে। বর্তমানে দেশের বৃহত্তর মোকাম ভৈরব। শুরুতে এই ফেরীঘাট এলাকায় যখন ফেরী বন্ধ হয়ে যায়। ফেরীঘাট ভিত্তিক অনেক শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ে। কয়লার ব্যবসার উত্থানে ওইসব শ্রমিকসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক এ কয়লা ব্যবসার কারণে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যবসার সাথে সংশ্লিষ্ট রয়েছেন দেশের নামী-দামী শিল্পপতিসহ ভৈরবের অর্থ শতাধিক মানুষ। বর্তমানে এই ব্যবসা বিভিন্ন কোম্পানী ভৈরবের স্থানীয় মালিকদের মাধ্যমে পরিচালনা করে আসছে।
ভৈরব মেঘনা ফেরীঘাট কয়লা ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লি. এর সভাপতি সাজ্জাত ইবনে সোলায়মান জানান, যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওয়ায় দেশ বিদেশের ব্যবসায়ীদের সবচেয়ে পছন্দের জায়গা ভৈরব। বর্তমানে ফেরীঘাট এলাকায় বেড়িবাঁধের কাজের টেন্ডার হয়ে গেছে। বেড়িবাঁধের কাজ নির্মাণ শেষ হলে ভৈরবের এ ব্যবসা বাংলাদেশের একটি অর্থনীতিতে বিশাল ভূমিকা পালন করবে। এখান থেকে সরকার অনেক টাকা রাজস্ব পাবে। ডলারের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কয়লার দাম বেড়ে গেছে। এতে করে দেশের বিভিন্ন স্থানের বেশ কিছু ইটের ভাটা বন্ধ হয়ে আছে। মৌসুমের শুরুতে কয়লা ব্যবসায়ীদের কিছু অসাধু সিন্ডিকেট কয়লার দাম বৃদ্ধি করে দেয়।
ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ বলেন, ভৈরবের কয়লার ব্যবসাটির অনেক সুনাম রয়েছে। সরকারের রাজস্ব আয়ের বড় ধরণের ভূমিকা পালন করছে এ কয়লা ব্যবসা। কয়লা রাখার জায়গা নিয়ে তিনটি মন্ত্রণালয়ের রশি টানাটানি রয়েছে। ইতিমধ্যে মন্ত্রণালয়ে জানানো হয়েছে। ৩ মন্ত্রণালয় সমঝোতা হলেই এখানকার ব্যবসায়ীরা স্বস্তিতে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবে। আর যাতায়াতের জন্য রাস্তার পরিবর্তে যদি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা যায় তাহলে এ ব্যবসার আরো প্রসার ঘটবে। ভৈরব উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা কয়লা ব্যবসায়ীদের সার্বিক সহযোগিতা করে যাচ্ছি এবং করব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *