• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

চাকরি ছেড়ে কোয়েলে মন মজেছে স্বপনের

স্বপনের কোয়েল সংসার। -পূর্বকণ্ঠ

চাকরি ছেড়ে কোয়েলে
মন মজেছে স্বপনের

# মোস্তফা কামাল :-
স্বপন চাকরি করতেন গার্মেন্ট কারখানায়। ৩ ভাই ২ বোনের মধ্যে স্বপন সবার বড়। নিম্নবিত্ত পরিবারের হাল ধরতেই অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ে চাকরিতে গিয়েছিলেন। চাকরির পাশাপাশি বাসায় পালতেন ৬০টি কোয়েল। কোয়েলের জীবনাচরণ ও জীবনচক্র গভীর মনযোগে পর্যবেক্ষণ করতেন। এক সময় কোয়েলই তাঁর মনযোগ কেড়ে নেয়। নিজেরই জীবনচক্র পাল্টে গেল। চাকরি ছেড়ে গড়ে তুললেন কোয়েল খামার। নাম দিলেন ‘শাহজালাল কোয়েল ফার্ম এন্ড হ্যাচারি’। ইন্টারনেট ঘেঁটে নিজেই তৈরি করলেন ইনক্যুভেটর। নিজেই ডিম থেকে বাচ্চা উৎপাদন শুরু করলেন। এখন তিনি এক সফল কোয়েল খামারি। দেশের বিভিন্ন জেলায় তাঁর খামার থেকে কোয়েল যাচ্ছে। তবে খাবারের দাম বেড়ে যাওয়ায় বর্তমানে এই খাতে দুুর্দিন যাচ্ছে।
কোয়েল খামারে গিয়ে কথা হয় কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের কাটাখালী এলাকার রেনু মিয়ার ছেলে স্বপন মিয়ার (২৭) সাথে। তিঁনি বলছিলেন তাঁর কোয়েল খামারের সূচনা থেকে বেড়ে ওঠার বৃত্তান্ত। তিঁনি ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন গার্মেন্ট কারখানায় চাকরি করেছেন। বাসায় যে কোয়েলগুলো পালতেন, তিঁনি চাকরির ডিউটি শেষে এগুলি নিয়েই পড়ে থাকতেন। খুব যতœ করতেন। এদের কিচিরমিচির শব্দ তাঁকে আনন্দ দিত। খেয়াল করতেন কোয়েলগুলোর আচরণ কি রকম। লালনপালনে কষ্ট কেমন। দেখলেন, কোয়েলের জীবন বেশ শক্ত। মারা যাচ্ছে না। খুব সহজেই এরা বেঁচে আছে। চাকরির কষ্ট আর আয়ের সঙ্গে কোয়েল খামার দিলে কিরকম কষ্ট হতে পারে আর কিরকম আয় হতে পারে, হিসাব মেলাতে লাগলেন। হিসাব মিলে গেল। স্বাধীন পেশা, আনন্দের পেশা। মনস্থির করে ফেললেন কোয়েলের খামার দেবেন। এক সময় চাকরি ছেড়ে কোয়েলের খামার করার দিকে মনস্থির করলেন। ২০১৪ সালে প্রথমে হোসেনপুরের মাস্টার বাজারে শুরু করেন কোয়েলের খামার। বন্ধু সবুরের খামার থেকে নিতেন কোয়েল। এনজিও থেকে ৮০ হাজার টাকা ঋণ নেন। সেখান থেকে চলে আসেন নিজ এলাকা কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কাটাখালীতে। এখানে তিনটি শেড তৈরি করে ইনক্যুবেটরে ডিম থেকে বাচ্চা উৎপাদন শুরু করেন। এরপর ডিম পারা এবং মাংসের কোয়েলের আলাদা ব্যবস্থাপনা করতে শুরু করেন।
বর্তমানে তাঁর খামারে ৭ দিন বয়সি বাচ্চা রয়েছে ২ হাজার ৬০০। এগুলোকে বৈদ্যুতিক বাল্বের আলোয় ওম দেয়া হচ্ছে। দুই সপ্তাহ বয়স হলে শেডের বড় জায়গায় রাখা হবে। আর ২৫ দিন বয়সি কোয়েল রয়েছে ৩ হাজার। দেড়মাস বয়স হলেই কোয়েল ডিম দিতে থাকে। একটি কোয়েল বছরে ২৮০ থেকে ৩০০ ডিম দেয়। এক সময় তাঁর খামারে তিনটি ইনক্যুবেটরে মাসে ৬৮ হাজার বাচ্চা ফোটানো হতো। এখন খাবারের দাম অনেক বেড়ে গেছে। দুই বছর আগে এক বস্তার দাম ছিল ২ হাজার ২০০ টাকা। এখন ৩ হাজার ৭০০ টাকা। যে কারণে খামারে এখন কোয়েলের সংখ্যা অনেক কমিয়ে ফেলেছেন। আগে তাঁর খামারে ৩০ হাজার থেকে ৩৫ হাজার কোয়েল থাকতো। ইনক্যুবেটরে বাচ্চা উদৎপাদনও আপাতত বন্ধ। এখন তিঁনি পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহের নান্দাইলের খামার থেকে বাচ্চা নিয়ে আসেন।
স্বপন জানান, যখন সুদিন ছিল, তখন তাঁর খামার থেকে বছরে প্রায় ৪ লাখ টাকা আয় হতো। যখন খাদ্যের দাম কম ছিল, তখন একটি কোয়েল বিক্রি করা হতো ২০-২২ টাকায়। এখন বিক্রি হচ্ছে ৩৫-৪০ টাকায়। যেসব কোয়েল একবছর ডিম দিয়ে দেয়, সেগুলির ওজন হয় একটু বেশি। একটি প্রায় ২৫০ গ্রাম পর্যন্ত হয়। তখন মাংসের জন্য বিক্রি হয় প্রতিটি ৫৩-৫৫ টাকায়। আগে প্রতিশ ডিম বিক্রি হতো ১৮০-২০০ টাকায়। এখন বিক্রি হচ্ছে ২৮০-৩০০ টাকায়।
তাঁর খামার থেকে সিলেট, ময়মনসিংহ, নরসিংদী, বগুড়া, নেত্রকোণাসহ বিভিন্ন জেলার খামারিরা বাচ্চা এবং প্রাপ্ত বয়স্ক কোয়েল নিয়ে যান। সিলেট রশিদপুরের খামারি পারভেজ জানিয়েছেন, তিঁনি স্বপনের খামার থেকেই কোয়েল নিয়ে থাকেন। তাঁর এলাকায় অন্তত দেড় হাজার কোয়েল খামার আছে। তবে খাবারের দাম বেশি হওয়ায় এখন কোয়েল ব্যবসায় মন্দা চলছে। তাঁর খামারে এখন ৩ হাজার কোয়েল আছে। আগে দ্বিগুণ-তিনগুণ থাকতো। সিলেটের হোটেলসহ বিভিন্ন এলাকায় তিঁনি কোয়েল বিক্রি করেন। ময়মনসিংহের নান্দাইল এলাকার খামারি মাহবুবুল হকও স্বপনের খামার থেকে কোয়েল নিয়ে খামার গড়ে তুলেছেন। তাঁর নিজের ৫টি শেড ছিল। এখন খাবারের দাম বেশি হওয়ায় সবগুলো আপাতত বন্ধ আছে।
স্বপন নান্দাইল উপজেলার সিংরইল ঢাকীপাড়া এলাকায় ১৫ শতাংশ জায়গা কিনেছেন বড় করে কোয়েল খামার করার জন্য। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকার কারণে সেখান থেকে বিভিন্ন জেলায় সহজে কোয়েল সরবরাহ করা যাবে বলে তিঁনি মনে করছেন। এর জন্য এনজিও থেকে দেড় লাখ টাকা ঋণ নিয়েছেন। তবে খামার চালু হলে সহজেই ঋণ পরিশোধ করে ফেলবেন বলে তিঁনি আশাবাদী।
তবে খাবারের দাম বৃদ্ধির কারণে তিঁনি নিজের খামারে বাচ্চা উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছেন। কোয়েল সরবরাহের খাঁচাগুলো বাইরে ফেলে রেখেছেন। খাবারের দাম কমলে আবারও খামারে সুদিন ফিরে আসবে। অন্যথায় এই খাতটি ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাবে বলে স্বপন মনে করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *