• বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৪০ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে বিশ্ব এইডস দিবসে র‌্যালি আলোচনা ভৈরবে বর্ণাঢ্য আনন্দ আয়োজনে নিরাপদ সড়ক চাই এর ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কিশোরগঞ্জে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় অংশ নেয়াদের পুরস্কার প্রদান হোসেনপুরে মাতৃমৃত্যু বিষয়ক সামাজিক পর্যালোচনা সভা কুলিয়ারচরে উন্নয়ন কাজের শুভ উদ্বোধন করেন আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন এমপি তাড়াইলে বিট পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী?দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী? সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ভৈরবে পুড়ে যাওয়া পাদুকা মার্কেট পরিদর্শন করলেন এমপি পাপন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ২০০ জন প্রান্তিক কৃষককে বিনামূল্যের বীজ প্রদান বাজিতপুরে চালকে হত্যা করে বিভাটেক ছিনতাই

আইভি রহমানের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-

২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জনসভায় বর্বোরচিত গ্রেনেড হামলায় নিহত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নেত্রী নারী জাগরণের অগ্রদূত প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব মো.জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী বেগম আইভি রহমানের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আজ ২৪ আগষ্ট বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হল রুমে বেগম আইভি রহমান মৃত্যুবার্ষিকী পালন কমিটি ও রাবেয়া- হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ শিল্প ও বাণিজ্য উপ-কমিটির সদস্য রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের সভাপতি লায়ন মশিউর আহমদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য সাবেক কৃষি মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি।
এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি।
প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি।
এছাড়া মো. রোকন উদ্দিন পাঠান এর পরিচালনায় আলোচনা সভায় আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাক্তার রোকেয়া সুলতানা, সংসদ সদস্য কানিজ ফাতেমা আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি ডঃ সিদ্দিকুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম, বীর মুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক, স্বাধীনতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন টয়েল, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য ইদ্দিস মল্লিক, বঙ্গবন্ধু দুস্থ কল্যাণ সমিতির সভাপতি মাহবুব হোসেন।
প্রধান অতিথি সাবেক কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, আগস্ট মাসটা আমাদের জন্য বেদনাবিধুর। এই মাসেই জাতির পিতাকে আমরা হারিয়েছি, হারিয়েছি আইভী রহমানের মত নেত্রীকে।
বাংলাদেশে এই হত্যার রাজনীতির শুরু বিএনপির হাতে।
প্রবীণ এই আওয়ামী লীগ নেত্রী বলেন, রাজনীতি আমরা করছি অনেকটা মৃত্যুকে হাতে নিয়েই। শেখ হাসিনাকে যে হত্যাচেষ্টা করা হবে, এটা আমরা জানতাম। আমরা জানতাম, ওনাকে এত সহজে সামনে এগিয়ে যেতে দেওয়া হবে না। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট হামলাকারীরা গ্রেনেড দিয়ে যে কোনোভাবে নেত্রীকে শেষ করতে চেয়েছিল। সেদিন আহতরা যাতে চিকিৎসা সুযোগ না পায়, সে নির্দেশনাও সরকার দিয়েছিল৷
এরপর, এই ঘটনা নিয়ে খালেদা জিয়া সদে দাঁড়িয়ে মশকারি করেছে। গ্রামে একটা কথা আছে, কারতা হে চুরি, দেখাতাহে ছেনালি- বিএনপির এখন সে অবস্থা।
মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী হাওয়া ভবনে গেছিলেন, কোকো মারা যাওয়ার পর। তারা গেটটা বন্ধ করে রেখেছিল। প্রধানমন্ত্রীর তো এতে কোনো লাভ ছিল না। উনি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে গিয়েছিলেন। কিন্তু, তারা অমানবিক সেটা প্রমাণ করেছেন।
আইভী রহমানের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, এ দেশের নারীমুক্তি, মানব মুক্তির জন্য আইভী রহমানের যে সংগ্রাম, সেটি বৃথা যাবে না।
বিশেষ অতিথি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর বিএনপি বাংলাদেশে রাজনীতি করার নৈতিক অধিকার হারিয়ে ফেলেছে।
মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে হয়। বিএনপি গ্রেনেড হামলা চালিয়ে বিরোধী দলের নেতাদের নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার যে কাজটি রাষ্ট্রীয় যন্ত্র ব্যবহার করে করেছে, এরপর তাদের রাজনীতি করার নৈতিক অধিকারই থাকে না।
তিনি বলেন, একাত্তরে গোলাম আজমের নেতৃত্বে গণহত্যা হয়েছে। ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত হাওয়া ভবন বানিয়ে বিএনপি তারেক রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ২৬ হাজার নেতা-কর্মী হত্যা করেছে। ২১ আগস্ট তার মধ্যে অন্যতম। গোলাম আজমের গণহত্যা আর তারেক জিয়ার গণহত্যা একই। একাত্তরে গণহত্যার কারণে জামায়াত দেশে রাজনীতি করার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে। এরপর বিএনপিরও এদেশে রাজনীতি করার নৈতিক অধিকার থাকার কথা নয়।
তিনি আরও বলেন, যে দল রাষ্ট্র যন্ত্রকে ব্যবহার করে বিরোধী দলের নেতাদের নিশ্চিহ্ন করতে গ্রেনেড হামলা ঘটাতে পারে তাদের রাজনীতি করার নৈতিক অধিকার থাকতে পারে কি? ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে যারা ক্ষমতায় থাকতে চায়, ক্ষমতা দখল করতে চায় তাদেরকে রাজনীতি থেকে বিতাড়ন করে যত দ্রুত একঘরে করে দেয়া যায় ততই মঙ্গল।
হানিফ বলেন, ৭৫ পরবর্তী সময়ে সবচেয়ে কলঙ্কময় দিন ২১ আগস্ট। রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে বিরোধী দলের সমাবেশে হামলা চালানোর পর মির্জা ফখরুলসহ বিএনপি অনেকই সাফাই গাওয়ার চেষ্টা করেন। অবাক হয়ে যেতে হয়। অথচ পৃথিবীর ইতিহাসে বিরোধী দলের শীর্ষ নেতাদের হত্যার জন্য রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে হামলা দ্বিতীয়টি হয়েছে জানা নেই। এ ঘৃণ্য ইতিহাস শত শত বছর ধরে লেখা থাকবে।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, আল্লাহর রহমতে সেদিন গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে গিয়েছি। হাসপাতালে গিয়ে যখন টেবিলের ওপর আইভি রহমানকে দেখলাম জীবিত না মৃত বুঝা যাচ্ছিল না। নিষ্পলক চোখে তাকিয়ে ছিলেন। দুই পা নেই। কী বিভৎস, মর্মান্তিক দৃশ্য।
গ্রেনেড হামলা কারা করেছিলো? কিভাবে ঘটিয়েছিল? এমন প্রশ্ন রেখে আওয়ামী লীগের এই সিনিয়র নেতা বলেন, বিএনপি রাষ্ট্রীয়যন্ত্র ব্যবহার করে এ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল। হাওয়া ভবন বানিয়ে সীমাহীন দুর্নীতি করায় মানুষ তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল। তারা বুঝেছিল আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারলে আর কেউ প্রতিবাদ করতে পারবে না। তাহলে তারা আজীবন ক্ষমতায় থাকতে পারবে।
২০০৪ সালে বিএনপি শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে মরিয়া হয়ে গিয়েছিলো উল্লেখ করে হানিফ বলেন, তাদের গ্রেনেড হামলার মূল লক্ষ্য ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করা।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের পালিয়ে যেতে বিএনপি সহযোগিতা করেছিলো এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের নেতৃত্বে এ হামলা হয়েছিল। তার প্রমাণ তারা রেখে গেছে। হামলার পর পুলিশ টিয়ারশেল, লাঠিচার্জ করে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের সরিয়ে খুনিদের নির্বিঘ্নে পলায়নে সহায়তা করেছে। হতাহতদের উদ্ধারের ব্যবস্থা না করে সিটি করপোরেশনের গাড়ি দিয়ে পানি ছিটিয়ে মামলার আলামত ধ্বংস করে দিয়েছিল।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মরহুম জলিল সাহেব, সাবের হোসেন থানায় মামলা করতে গেলে মামলা না নিয়ে তাদেরকে ঘুরানো হলো। ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসিয়ে রেখে মামলা নেয়া হলো না। বলা হলো উপরের নির্দেশে নিতে পারছি না। তারা যদি জড়িত না থাকবে তাহলে তারা কেন এই কাজ করেছে?
হানিফ বলেন, সংসদের নিয়মানুযায়ী সংসদ নেতা, বিরোধীদলীয় নেতা যখনই বক্তব্য দিতে চাইবেন, দিতে পারেন। কিন্তু গ্রেনেড হামলার পর তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনা বক্তব্য দিতে চাইলে মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়। খালেদা জিয়া বললেন, শেখ হাসিনাকে কে মারতে যাবে, সে নিজেই ভ্যানিটি ব্যাগে করে গ্রেনেড নিয়ে গেছে। কী নিষ্ঠুর প্রতিহিংসা পরায়ন তামাশা।
আওয়ামী লীগের এ জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, হামলার পর বিএনপি জজ মিয়া নাটক সাজিয়ে মামলা ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করেছিল। পরে খুনিদের সাক্ষীতে প্রমাণ হয়েছে লুটেরা তারেক হাওয়া ভবনে বসে বিএনপি শীর্ষ নেতা ও জঙ্গিদের নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক করে হামলার পরিকল্পনা করেছে। গ্রেফতার হওয়া মুফতি হান্নান সাক্ষ্য দিয়েছে কিভাবে হাওয়া ভবনে বসে তারেক রহমান, লুৎফুজ্জামান বাবর, আব্দুস সালম পিন্টু, জামায়াতের সেক্রেটারি আলী আহসান মুজাহিদ, বঙ্গবন্ধুর খুনি মেজর নূর মিলে দফায় বৈঠক করে হামলার পরিকল্পনা করেছে। হামলার জন্য পাকিস্তান থেকে আর্জেস গ্রেনেড আনা হয়েছে।
বিএনপির মহাসচিবকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বিএনপিতে অনেকে শিক্ষক, উচ্চশিক্ষিত আছেন। মির্জা ফখরুল সাহেবও শিক্ষক ছিলেন। একজন উচ্চশিক্ষিত মানুষ হয়ে তিনি কিভাবে মিথ্যাচার করেন বোধগম্য হয় না।
এ সময় তিনি ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্টের পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকরের মধ্য দিয়ে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করা হবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, আইভী রহমানের মৃত্যুটা অত্যন্ত দুঃখজনক, কষ্টজনক। প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান রাজনীতি করতে গিয়ে সর্বদা তার সহযোগিতা পেয়েছেন। আইভী রহমান নেই, কিন্তু তার স্মৃতি সবার হৃদয়ে আছে।
স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা বিরোধিতা করেছে তারা, খালেদা জিয়া এবং আন্তর্জাতিক চক্রের সহায়তায় এই হামলা হয়েছিল। কিন্তু, রাখে আল্লাহ মারে কে। দেশের মানুষের সেবা করার জন্য আল্লাহ নেত্রীকে বাঁচিয়ে রেখেছেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজকে রোল মডেল। সারাবিশ্ব আজকে এক নামে বাংলাদেশকে চেনে। সারাবিশ্বে আমি শুনিনি ১০০ বছর পর মানুষ কীভাবে বাঁচবে তার চিন্তা করতে। কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনা সেটি করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!