• শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৩২ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে করোনামুক্ত হলো বাজিতপুর উপজেলা নতুন রোগি শনাক্ত ৩ জন পাকুন্দিয়ায় লাল তীর আলু উৎপাদনে রেকর্ড হোসেনপুরে বারি উদ্ভাবিত উন্নত জাতের আলুর উপর মাঠ দিবস ভৈরবে ভোটারদের প্রশিক্ষণ দিতে “মক ভোটিং” কিশোরগঞ্জে র‌্যাবের হাতে ইলেক্ট্রনিক সরঞ্জামসহ দুই পর্ণোগ্রাফ ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে নতুন ১০ জনের করোনা শনাক্ত, কুলিয়ারচর দু’মাস শূন্য থাকার পর একজন শনাক্ত কিশোরগঞ্জে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সম্মেলনে নতুন কমিটি পাকুন্দিয়ায় কালাজ্বর নির্মূল কর্মসূচির অবহিতকরণ সভা ভৈরব পৌরসভার নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের ইভিএম প্রশিক্ষণ ভৈরবে ছিনতাইকারীর হামলায় শিশু সন্তানকে ট্রেনে রেখেই ছিঁটকে পড়লেন মা

দালালী ব্যবসা হারাম : সংকলনে: ডা: এ.বি.সিদ্দিক

দালালী ব্যবসা হারাম

সংকলনে: ডা: এ.বি.সিদ্দিক

দালালীর পরিচয়: দালালী বহুল আলোচিত একটি বিষয়। ব্যবসা-বাণিজ্য বা ক্রয়-বিক্রয়ে সাধারণত দালালী খুব বেশী হয়ে থাকে। কোন ব্যক্তি কর্তৃক ক্রেতা কিংবা বিক্রেতার পক্ষে অথবা উভয়ের পক্ষ থেকে দ্রব্যের মূল্য কমানো কিংবা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে দর কষাকষি করাকে দালালী বলে। আর যিনি দালালী করেন তাকে বলে দালাল। উদাহরণ স্বরূপ: যায়েদ নামক একজন ব্যক্তি তার গরু বিক্রয় করার জন্য বাজারে গেল, অন্যদিকে বকর নামক আরেকজন লোক গরু খরিদ করার উদ্দেশ্যে বাজারে আসল, এখন খালেদ নামক আরেকজন ব্যক্তি যায়েদের পক্ষে তার গরুর দাম বৃদ্ধি করার উদ্দেশ্যে অথবা বকর নামক ব্যক্তিকে সস্তায় গরু কিনে দেওয়ার জন্য বিভিন্ন মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে দর কষাকষি করল অথবা খালেদ নামক ব্যক্তিটি একদিকে যায়েদের সাথে তার গরু বেশি দামে বিক্রয় করার ব্যপারে চুক্তি করল আবার অন্যদিকে যায়েদের অগোচরে বকরকে সস্তায় গরু কিনে দিবে বলে বকরের সাথেও চুক্তি করল, অর্থাৎ একই ব্যক্তি বিক্রেতা এবং ক্রেতা উভয়ের নিকট থেকেই প্রতারণার মাধ্যমে উপকার নেওয়ার চেষ্টা করল। এমতাবস্থায় খালেদ নামক ব্যক্তিটি হল দালাল আর তার কর্মটাই হল দালালী। আর এই ধরণের দালালী যে কোন ব্যবসায় হতে পারে। আবার ব্যবসা-বাণিজ্য ছাড়া অন্য ক্ষেত্রেও হতে পারে। যেমন: কোন ব্যক্তি কর্তৃক রোগী এবং ডাক্তারের মাঝে, রোগী এবং হসপিটাল বা ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের সাথে, বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে, জায়গা বা জমিন ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ইত্যাদি।
ইসলামী শরীয়তে দালালীর বিধান: ইসলামী শরীয়ত অনুযায়ী ধোঁকাপূর্ণ দালালী করা সম্পূর্ণরূপে হারাম। এই ধরণের কর্মের মাধ্যমে উপার্জিত টাকা হারাম টাকা। এই টাকা ভোগ করে আল্লাহর ইবাদত করলে মহান আল্লাহ সেই ইবাদত কবুল করবেন না। পরকালে তাদেরকে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন না, বরং তাদেরকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন। কেননা হাদীসে এসেছে,
আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, কেউ যেন তার ভাইয়ের কেনা-বেচার উপর ক্রয় না করে। আর তোমরা প্রতারণামূলক দালালী করবে না এবং শহরবাসী যেন গ্রামবাসীর পক্ষে বিক্রয় না করে অর্থাৎ শহরবাসী যেন গ্রাম্য লোককে ঠকিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে গ্রাম্য লোকের পক্ষে পণ্য বিক্রয় না করে। (বুখারী: ২১৪০, ২১৫০, ২১৬০)
আব্দুল্লাহ বিন উমার (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী (সা.) প্রতারণামূলক দালালী হতে নিষেধ করেছেন। (মুসলিম: ১৫১৬, বুখারী: ২১৪২)
আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেছেন, তোমরা পণ্যবাহী কাফেলার সাথে (শহরে প্রবেশের পূর্বে পণ্য খরিদের উদ্দেশ্যে) সাক্ষাত করবে না এবং শহরবাসী যেন গ্রামবাসীর পক্ষে বিক্রয় না করে। অর্থাৎ তার হয়ে যেন সে প্রতারণামূলক দালালী না করে। (বুখারী: ২১৫৮, মুসলিম: ১৫২১)
রাসূল (সা.) বলেছেন, প্রতারণার ঠিকানা হল জাহান্নাম। (বুখারী: পর্ব: ৩৪, অধ্যায়: ৬০)
উপরোল্লিখিত হাদীসগুলোর আলোকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, প্রতারণামূলক দালালী সম্পূর্ণরূপে হারাম।
সামাজিক প্রেক্ষাপট: বর্তমান সামাজিক অবস্থার প্রতি একটু লক্ষ্য করলেই বুঝা যায় যে, আজকাল ব্যবসা-বাণিজ্যসহ উপার্জনের বিভিন্ন মাধ্যমে দালালী ব্যপক বিস্তার লাভ করেছে। একজন রোগী চিকিৎসা নিতে এসে দালালদের খপ্পরে পড়তেছে, বাজার থেকে বিভিন্ন পণ্য খরিদ করতে গিয়ে কিংবা কোন কিছু বিক্রয় করতে গিয়ে মানুষ ধোঁকায় পড়তেছে, জায়গা বা জমিন বিক্রয় করতে বা ক্রয় করার বেলায়ও মানুষ দালালীর শিকারে পরিণত হইতেছে। এরকমভাবে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ধোঁকাপূর্ণ দালালী ব্যপকহারে সয়লাভ করেছে। ইসলামী শরীয়ত দালালীকে হারাম ঘোষণা করার পরও এই ধরণের কর্মের সাথে জড়িত ব্যক্তিরা জনগণের সাথে প্রতারণামূলক দালালী করেই উপার্জন করতেছে। অথচ এর পরিণতি খুবই ভয়াবহ। কেননা ধোঁকাপূর্ণ দালালী হল কবীরা বা বড় গুনাহ। আর কবীরা গুনাহকারীর ঠিকানা হল জাহান্নাম।
অতএব, এই ধরণের কর্মের সাথে জড়িত হওয়া থেকে অবশ্যই বেঁচে থাকতে হবে। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!