• শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:৫৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে র‌্যাবের হাতে ইলেক্ট্রনিক সরঞ্জামসহ দুই পর্ণোগ্রাফ ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে নতুন ১০ জনের করোনা শনাক্ত, কুলিয়ারচর দু’মাস শূন্য থাকার পর একজন শনাক্ত কিশোরগঞ্জে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সম্মেলনে নতুন কমিটি পাকুন্দিয়ায় কালাজ্বর নির্মূল কর্মসূচির অবহিতকরণ সভা ভৈরব পৌরসভার নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের ইভিএম প্রশিক্ষণ ভৈরবে ছিনতাইকারীর হামলায় শিশু সন্তানকে ট্রেনে রেখেই ছিঁটকে পড়লেন মা নির্বাচনকে ঘিরে ভৈরব পৌর এলাকা এখন উৎসবের নগরী পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডা. হাবিবুর রহমানের টিকাদান কেন্দ্র পরিদর্শন কিশোরগঞ্জে ৭০টি নমুনা পরীক্ষায় সব নেগেটিভ

কিশোরগঞ্জের থৈ থৈ বর্ষার পানিতে চলছে মাছ শিকার

মিঠামইনে বাতাসে ভাসিয়ে অথৈ পানিতে ঝাঁকি জাল ফেলছেন দুই মৎস্যজীবী। - পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জের থৈ থৈ বর্ষার
পানিতে চলছে মাছ শিকার

# মোস্তফা কামাল :-

দেশের অন্যতম মৎস্যভাণ্ডার হিসেবে যুগ যুগ ধরেই কিশোরগঞ্জের বিশেষ খ্যাতি রয়েছে। বিশেষ করে এখানকার বিস্তীর্ণ হাওরের মিঠা পানির স্থানীয় আদি প্রজাতির সুস্বাদু মাছের জুড়ি নেই। তবে কোন এক কালে বিশাল বিশাল হাওর হোক, আর বিল হোক, এসব মৎস্যক্ষেত্র ছিল মৎস্যজীবীদের জন্য উন্মুক্ত। যে যেখানে পারতো, মাছ শিকার করতে পারতো। আশ্বিন-কার্তিক মাসে এসব জলাশয়ে বড় প্রজাতির মাছ ধরার জন্য শত শত মানুষের জমজমাট পলো উৎসব হতো। কিন্তু এখন আর সেই যুগও নেই, সুযোগটিও নেই।
হাটবাজারের তরকারি মহাল বা চাল মহালের মত বিভিন্ন খাস বিল বা হাওরের জলাশয়গুলো ‘জলমহাল’ নাম দিয়ে সরকারীভাবে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে বছর ভিত্তিক ইজারা দেয়া হচ্ছে। আর এসব জলমহাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির নামে ইজারা দেয়ার বিধান থাকলেও প্রকৃত মৎস্যজীবীরা টাকা এবং ক্ষমতার অভাবে কখনই ইজারা নিতে পারেন না। রাজনৈতিক প্রভাবশালী মহল তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন কয়েকজন মৎস্যজীবীর নাম ব্যবহার করে কোন একটি মৎস্যজীবী সমিতির নাম দিয়ে এসব জলমহাল ইজারার নামে নিজেদের কব্জায় নিয়ে নেয়। আর ২০ একর জায়গা ইজারা নিয়ে জোরপূর্ব ভোগদখল করে ৫০ একর। ফলে ইজারা নেওয়া জলমহালের আশেপাশে কোন দরিদ্র মৎস্যজীবী মাছ ধরতে পারেন না। এসব নিয়ে হাওরে খুনখারাবির দৃষ্টান্তও রয়েছে ভুরি ভুরি।
তবে ইজারা দেওয়া জলমহালের বাইরে হাওরে বিস্তীর্ণ প্লাবন ভূমি রয়েছে, যেখানে কেবল ভরা বর্ষাকালে পানি ওঠে, আর শুকনো মৌসুমে শুকনো থাকে। আর বর্ষাকালে কয়েক মাস এসব প্লাবন ভূমিতে মৎস্যজীবীরা মাছ ধরার সুযোগটি নিয়ে থাকেন। আবার কৃষিজীবীরাও পরিবারের প্রয়োজন মেটাতে মাছ শিকার করে থাকেন। এখন চলছে সেসব প্লাবন ভূমিতে মাছ শিকারের মৌসুম। গত বৃহস্পতিবার হাওর উপজেলা মিঠামইনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলা সদরের পাশেই ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম ‘অলসিজন’ সংযোগ সড়কের জিরো পয়েন্টের কাছে বেশ ক’জন মাছ শিকারি বিভিন্ন রকমের জাল ফেলে মাছ শিকার করছেন। কয়েকজনকে দেখা গেছে ঝাঁকি জাল ফেলে মাছ ধরছেন। যখন এক তালে বাতাসে উড়িয়ে ঝাঁকি জাল ফেলেন, তখন সে এক শৈল্পিক দৃশ্যের অবতারণা হয়। বাতাসে উড়িয়ে ফেলা হয় বলে এই জালকে স্থানীয়ভাবে অনেকে উড়াইন্যা জালও বলে থাকেন। জালগুলোর নীচের অংশ ভেতরের দিকে ভাঁজ করা থাকে। আর এসব ভাঁজের কিনারে লোহার ভারী কবজের মালা লাগানো থাকে। এসব কবজের ভারে জালটি দ্রুত পানিতে তলিয়ে গিয়ে এর আওতাও থাকা মাছগুলোকে আটকে ফেলে। তখন মাছগুলো ছুটোছুটি করতে গিয়ে জালের নীচের অংশের ভাঁজে ঢুকে আটকে যায়। শিকারিরা আস্তে আস্তে জাল টেনে ডাঙা বা নৌকায় তুলে মাছগুলো সংগ্রহ করে নেন।
এখন স্থানীয় বাজারে বর্ষার পানির প্রচুর মাছের আমদানি রয়েছে। মাছের দামও এখন বেশ কম। বরফ ছাড়া বর্ষার পানির তাজা মাছ এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। এর মধ্যে বোয়াল, গচি, চাপিলা, কাইক্কা, মলা, পুঁটি, টেংরা, চাঁদা, রুই, মৃগেল, কাতলা, কাজলি, বাতাসি, কাচকিসহ নানা জাতের মাছ পাওয়া যাচ্ছে। জেলা মৎস্য বিভাগের হিসাব মতে কিশোরগঞ্জে বিভিন্ন আয়তনের ২৩১টি জলমহাল রয়েছে। এর বাইরে পুকুর, খাল, বিল আর নদী তো রয়েছেই। প্রকৃতিক মৎস্যভাণ্ডার ছাড়াও এখন মাছের কৃত্রিম চাষাবাদও হচ্ছে। প্রাকৃতিক জলাশয়ের তুলনায় কৃত্রিম চাষাবাদের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন বেশি হচ্ছে। জেলায় বার্ষিক মাছের চাহিদা রয়েছে ৬৬ হাজার মেট্রিক টনের বেশি। আর জেলায় মাছ উৎপাদিত হচ্ছে ৭৮ হাজার মেট্রিক টনের বেশি। ফলে ১২ হাজার মেট্রিক টনের বেশি উদ্বৃত্ত থাকে। এসব উদ্বৃত্ত মাছ দেশের নানা প্রান্তে, এমনকি প্রকৃয়াজাত করে বিদেশেও রপ্তানি করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!