• শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

জান্নাতে যাওয়ার আমলসমূহ (শেষ পর্ব): সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

জান্নাতে যাওয়ার আমলসমূহ (শেষ পর্ব)

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পূর্বে প্রকাশিতের পর..
গত পর্বগুলোতে আমরা জান্নাতে যাওয়ার আমলসমূহের মধ্য থেকে কিছু আমলের কথা জেনেছিলাম। আর এ পর্বেও আমরা আরো কয়েকটি আমলের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ। আর তা হলো:
২৪। মানুষের সাথে নরম কথা বলা। আবূ মালিক আল আশ্‘আরী (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, জান্নাতে এমন সব কক্ষ আছে যার বাইরের জিনিস ভেতর থেকে আর ভেতরের জিনিস বাইরে থেকে দেখা যায়। আর এ বালাখানা আল্লাহ তা’আলা ঐসব ব্যক্তির জন্যে তৈরি করে রেখেছেন, যারা অন্য ব্যক্তির সঙ্গে নরম কথা বলে। (গরীব-মিসকীনকে) খাবার দেয়। প্রায়ই (নফল) সওম পালন করে। রাত্রে এমন সময় (তাহাজ্জুদের) সালাত আদায় করে যখন অনেক মানুষ ঘুমিয়ে থাকে। (সহীহ ইবনে হিব্বান: ৫০৯, মিশকাত: ১২৩২)
২৫। রাসূল (সা.) এর আনুগত্য করা। রাসূল (সা.) এর আনুগত্য করা সকলের জন্যই বাধ্যতামূলক। এই মর্মে আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর, আর রাসূলের আনুগত্য কর আর তোমাদের আমলগুলোকে নষ্ট করে দিও না। (সূরা মুহাম্মদ: ৩৩)
আর যারা রাসূল (সা.) এর আনুগত্য করবে তারা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে।
আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আমার সকল উম্মতই জান্নাতে প্রবেশ করবে, কিন্তু যে অস্বীকার করে। তারা বললেন, কে অস্বীকার করবে। তিনি বললেন, যারা আমার অনুসরণ করবে তারা জান্নাতে প্রবেশ করবে, আর যে আমার অবাধ্য হবে সে-ই অস্বীকার করবে। (বুখারী: ৭২৮০)
২৬। আল্লাহর ইবাদত করা। আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, তোমরা রহমানের ইবাদত কর, পরস্পরে সালামের প্রচলন কর এবং খাদ্য প্রদান কর, তাহলে তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে। (তারগীব: ২৬৯৮)
২৭। ইয়াতীমের প্রতিপালনকারী। ইয়াতীমের সাথে ভাল ব্যবহার করা, তাদের খবরা-খবর নেওয়া এবং সাধ্যানুযায়ী তাদের সাহায্য-সহযোগীতা করা অত্যন্ত জরুরী। কেননা ইয়াতীমের সাথে সৎ ব্যবহার করার নির্দেশ স্বয়ং আল্লাহ রব্বুল আলামীন দিয়েছেন। তিনি বলেন, তোমরা আল্লাহর ইবাদত কর, কিছুকেই তাঁর শরীক করো না এবং মাতা-পিতা, আত্মীয়-স্বজন, ইয়াতীম, নিকট প্রতিবেশী, দূর প্রতিবেশী, সাথী, মুসাফির এবং তোমাদের আয়ত্তাধীন দাস-দাসীদের সঙ্গে সদ্ব্যবহার কর, নিশ্চয়ই আল্লাহ ঐ লোককে ভালবাসেন না, যে অহংকারী, দাম্ভিক। (সূরা নিসা: ৩৬)
আর যারা ইয়াতীমের সাথে কোনরূপ অন্যায় আচরণ না করে তাদেরকে প্রতিপালন করবে তারা বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) এর সাথে জান্নাতে থাকতে পারবে।
সাহ্ল (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আমি ও ইয়াতীমের প্রতিপালনকারী জান্নাতে এমনিভাবে নিকটে থাকবো। এই বলে তিনি শাহাদাত ও মধ্যমা আঙ্গুল দু’টি দ্বারা ইঙ্গিত করলেন এবং এই দুটির মাঝে কিঞ্চিত ফাঁক রাখলেন। (বুখারী: ৫৩০৪)
২৮। ঘুমানোর আগে তাসবীহ পাঠ করা। আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে এসেছে যে, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, দুইটি বিষয় বা দুইটি অভ্যাসের প্রতি যে মুসলিম খেয়াল রাখবে সে নিশ্চয়ই জান্নাতে যাবে। অভ্যাস দুইটি সহজ কিন্তু তা আমলকারীর সংখ্যা কম। তা হলো (১) প্রত্যেক সালাতের পর দশবার সুবহানাল্লাহ, দশবার আল্হামদুলিল্লাহ ও দশবার আল্লাহু আকবার বলবে। মুখে (পাঁচ ওয়াক্তে) এর সংখ্যা একশ পঞ্চাশ, কিন্তু মীযানে তা একহাজার পাঁচশ। (২) যখন শয্যায় যাবে চৌত্রিশ বার আল্লাহু আকবার, তেত্রিশ বার আল্হামদু লিল্লাহ ও তেত্রিশ বার সুবহানাল্লাহ বলবে। তা মুখে একশ কিন্তু মীযানে একহাজার। ‘আব্দুল্লাহ (রা.) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা.) কে তা হাতের আঙ্গুলে গণনা করতে দেখেছি। সাহাবীগণ বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! অভ্যাস দুইটি সহজ হওয়া সত্ত্বেও এর আমলকারীর সংখ্যা কম কেন? তিনি বললেন, তোমরা বিছানায় ঘুমাতে গেলে শয়তান তোমাদের কোন লোককে তা বলার আগেই ঘুম পাড়িয়ে দেয়। আর সালাতের মধ্যে শয়তান এসে তার বিভিন্ন প্রয়োজনীয় কাজের কথা স্মরণ করিয়ে দেয় এবং সে ঐগুলো বলার আগেই প্রয়োজনের দিকে চলে যায়। (আবু দাউদ: ৫০৬৫)
উপরোল্লিখিত আলোচনা থেকে আমরা জান্নাতে যাওয়ার কতগুলো আমলের কথা জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত এই আমলগুলোর প্রতি গুরুত্ব দেওয়া। আল্লাহ আমাদের সবাইকে এই আমলগুলো করার তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে: আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!