• শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৩৯ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
করিমগঞ্জে আ’লীগে ১৮ বছর আহবায়ক কমিটি, পাল্টা কমিটির সংবাদ সম্মেলন থেকে পুরনো আহবায়ককে প্রতিহতের ডাক সরেজমিন প্রতিবেদন, ভারতীয় তালিকাভুক্তি ছাড়া করিমগঞ্জে ২২ মুক্তিযোদ্ধা কিশোরগঞ্জে র‌্যাবের হাতে নিষিদ্ধ আল্লাহর দলের এক সদস্য আটক ইবাদত কবুলের শর্ত : ইখলাছ তথা সকল ইবাদতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখা কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৪ সুস্থ হয়েছেন নতুন ১৭ জন কিশোরগঞ্জ ও কুলিয়ারচর পৌর নির্বাচন, মনোনয়ন জমা ২০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ ১৬ জানুয়ারি ভৈরবে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি অব্যাহত কিশোরগঞ্জে বিজয় দিবস উদযাপনে সভা অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জে প.প. সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে অ্যাডভোকেসি সভা করিমগঞ্জে কৃষক লীগের সম্মেলন

জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জুম মিটিং, কিশোরগঞ্জ শহরে রোগিদের বাড়ি ভৈরবে মহল্লায় লকডাউন প্রস্তাব

জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জুম মিটিং
কিশোরগঞ্জ শহরে রোগিদের বাড়ি
ভৈরবে মহল্লায় লকডাউন প্রস্তাব

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জের কয়েকটি এলাকায় করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এই সংক্রমণ রোধকল্পে এলাকাভিত্তিক লকডাউন পদ্ধতি অবলম্বন করা হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেসব এলাকায় জসংখ্যার অনুপাতে প্রতি লাখে ১০ জন করোনা রোগি শনাক্ত হবে, সেখানেই ‘রেডজোন’ ঘোষণা করে লকডাউনের চিন্তা করা যেতে পারে। কিশোরগঞ্জ পৌর এলাকা এবং ভৈরব পৌর এলাকার কয়েকটি ওয়ার্ডেও করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর প্রেক্ষিতে আজ বুধবার (২৪ জুন) বিকাল ৩টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে কমিটির জুম ক্লাউড সভা হয়েছে।


সভায় বলা হয়েছে, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ২ নং ও ৩ নং ওয়ার্ডভুক্ত খরমপট্টির আংশিক এলাকায় গত ১৪ দিনে ১২ জন রোগি শনাক্ত হয়েছে। আর পৌরসভার বত্রিশ এলাকায়ও ১০ জন রোগি শনাক্ত হয়েছে। ফলে এসব রোগিদের বাড়িকে পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন করার সপক্ষে সভায় আলোচনা হয়েছে। আর ভৈরব পৌরসভার ৭ নং ও ৮ নং ওয়ার্ডের অংশবিশেষে ৪১ জন করোনা রোগি শনাক্ত হয়েছে। ফলে ওই দুই ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট এলাকাকে পরীক্ষামূলক লকডাউন করার সপক্ষে সভায় আলোচনা হয়েছে। সভায় বলা হয়েছে, লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিলে সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষদের কার্যত বন্দি অবস্থায় দিনযাপন করতে হয়। তখন ওই এলাকার মানুষদের দৈনন্দিন চাহিদাসহ চিকিৎসা সেবার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে দায়দায়িত্ব বহন করতে হয়, সার্ভিস দিতে হয়। এসব বিবেচনা করেই উপরোক্ত প্রস্তাবনার ওপর আলোচনা হয়েছে। আর এসব প্রস্তাব স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে। সেখান থেকে সম্মতি এবং দিকনির্দেশনা পেলেই লকডাউন কার্যকর করা হবে বলে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
সভায় যার যার অফিস ও বাসা থেকে যুক্ত হয়ে মতামত তুলে ধরেন পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ও জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্যসচিব ডা. মো. মুজিবুর রহমান, পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ, ভৈরব পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাস, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, র‌্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক লে. কমান্ডার এম শোভন খান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল কাদির মিয়া, ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল, সনাক সভাপতি সাইফুল হক মোল্লা দুলু, ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ, সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক, ভৈরব থানার ওসি মোহাম্মদ শাহীন প্রমুখ। এ ছাড়াও কমিটির আরো বেশ কয়েকজন সদস্য সভায় জুমের মাধ্যমে সংযুক্ত হয়েছিলেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!