• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভৈরবে এতিম ও গরীব শিশুদের সুন্নাতে খাৎনা বিএডিসির দূরত্ব বিধান অমান্য করে প্রতিবেশির সেচের সীমায় সেচ প্রকল্প হোসেনপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড ও ডিজিটাল সনদ বিতরণ কিশোরগঞ্জের ঈশাঁখা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা কিশোরগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসে গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কার্যালয়ে শোকসভা তাড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচন করার বিধানের রিট খারিজ কুলিয়ারচরে রাস্তার পাশে ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এক বাড়িতে হামলা, আহত ৩ কিশোরগঞ্জে অশোক-ঝুমু স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা কিশোরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজা নিয়ে ৬ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

ভৈরবে পাদুকা ক্লাস্টারে পরিবেশগত উন্নয়ন ও অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক মহড়া

# আফসার হোসেন তূর্জা :-

ভৈরবে কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নে পাদুকা ক্লাস্টারে পরিবেশগত উন্নয়ন ও অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ১৬ জুন বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্প (এসইপি) এর উদ্যােগে বিশ্বব্যাংক এর অর্থায়নে ও পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর ব্যবস্থাপনায় পিপলস্ ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রাম ইমপ্লিমেন্টেশন (পপি) কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নে লেইস ফুটওয়্যার (বিডি) পাদুকা কারখানা মাঠে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক মহড়া আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করেন ভৈরব বাজার ফায়ার স্টেশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।
এসইপি প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. বাবুল হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন লেইস ফুটওয়্যার (বিডি)’র ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মো. এরশাদ আলী আকাশ। আরও বক্তব্য রাখেন ভৈরব বাজার ফায়ার স্টেশনের স্টেশন অফিসার মো. আজিজুল হক। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় পাদুকা উদ্যোক্তা, শ্রমিক ও পাদুকা কারখানা মালিক সমবায় সমিতির প্রতিনিধিবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ভৈরব পাদুকা উৎপাদনের ক্ষেত্রে স্থানীয় উদ্যোক্তারা পরিবেশ সংরক্ষণ বিষয়ে একেবারেই সচেতন নয়। পাদুকা কারখানায় স্থানীয় উদ্যোক্তারা পাদুকা তৈরীতে বিভিন্ন ধরণের রাসায়নিক দ্রব্য, রেক্সিন, ফোম, চামড়া, প্যাকেজিং ও অন্যান্য উপকরণ ব্যবহার করে যেগুলি খুবই দাহ্য। এছাড়া পাদুকা তৈরীর সময় উৎসৃষ্ট বর্জ্য যেখানে সেখানে ফেলা হয় এবং অনেক সময় বর্জ্য একত্রিত করে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় যা এলাকার আশপাশের পরিবেশ দূষিত করে। ভৈরবে ছোট বড় মিলিয়ে ৮-১০ হাজার পাদুকা কারখানা রয়েছে। এ সকল পাদুকা কারখানায় বছরে ৩৬০-৩৮০ টন পাদুকা বর্জ্য তৈরী হয়। উৎপাদিত পাদুকা বর্জ্যের মধ্যে ২৫-৩০% বর্জ্য রিসাইক্লিন কারখানায় ব্যবহার হয়। উৎপাদিত বর্জ্যের ৫-১০% পূর্ণ ব্যবহার হয় এবং প্রায় ৫০-৬০% বর্জ্য যেখানে সেখানে ডাম্পিং হয় যা পরিবেশের জন্য হুমকি স্বরূপ। এছাড়া পাদুকা উৎপাদনে বিভিন্ন ধরণের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। এ সকল কেমিক্যাল ব্যবহারের ক্ষেত্রে পাদুকা শ্রমিকগণ কোন সাবধানতা অবলম্বন করে না। আবার কেমিক্যাল যুক্ত বর্জ্য যেখানে সেখানে ফেলার কারণে বৃষ্টির পানিতে মিশে খাল, বিল, নালা ও ডোবায় যায় ফলে মাটি ও পানি দূষিত করছে ও দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।
এছাড়া স্থানীয় পাদুকা কারখানায় অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে প্রস্তুতিমূলক কোন ব্যবস্থাও থাকে না। আবার অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার এক্সটিংগুইশার থাকলেও এর ব্যবহার সম্পর্কে প্রশিক্ষণ না থাকায় বিপদের সময় তা ব্যবহার করতে পারে না। এ সকল বিষয়ে পাদুকা উদ্যােক্তা ও কারিগরদের পরিবেশগত বিষয়ে সচেতনতা, কারখানার কর্ম পরিবেশ উন্নয়ন, সঠিকভাবে বর্জ্য সংগ্রহ ও ব্যবস্থাপনা করতে পারে এ জন্য প্রকল্পটি দীর্ঘদিন ধরে, কারিগরি প্রশিক্ষণ, পরামর্শ ও সহযোগীতা প্রদান করে যাচ্ছে।
বক্তারা আরও বলেন, সহযোগী সংস্থা পপি- এসইপি প্রকল্পটি কিশোরগঞ্জ জেলার জুতা উৎপাদনকারী ক্ষুদ্র উদ্যােগসমূহকে পরিবেশ সম্মত টেকসই উদ্যােগে উন্নতীকরণে ভৈরব, বাজিতপুর ও কুলিয়ারচর উপজেলায় কাজ করছে। এ প্রকল্পটি বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ও পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) ব্যবস্থাপনায় পিপলস্ ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রাম ইমপ্লিমেন্টেশন (পপি)
বাস্তাবায়ন করে যাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!