• রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৯ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে ভৈরবে সংবর্ধনা কিশোরগঞ্জে পরিমাপে কম দেওয়ার দায়ে দুই ফিলিং স্টেশনে জরিমানা ৩ লাখ কিশোরগঞ্জ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতির বিদায় সংবর্ধনা পাকুন্দিয়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির লাশ উদ্ধার পাকুন্দিয়ায় হত্যা মামলার প্রধান আসামি পঞ্চগড় থেকে গ্রেফতার হোসেনপুরে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা কিশোরগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর নামে গড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জীর্ণদশা ভৈরবের নদ-নদী খাল-বিল ভরাট, ব্যাহত হচ্ছে নৌ-যোগাযোগ ও সেচ ব্যবস্থা, সংকটে মৎস্যসম্পদসহ জীব-বৈচিত্র পাকুন্দিয়ায় ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন কিশোরগঞ্জে সফলতার সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ মীমাংসায় মহিলা পরিষদ

কিশোরগঞ্জ মুক্ত হয়েছিল একাত্তরের ১৭ ডিসেম্বর

কিশোরগঞ্জ মুক্ত হয়েছিল
একাত্তরের ১৭ ডিসেম্বর

# মোস্তফা কামাল :-

আজ ১৭ ডিসেম্বর ‘কিশোরগঞ্জ মুক্ত দিবস’। একাত্তরে ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধশেষে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাদের পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডার জেনারেল আমীর আব্দুল্লাহ খান নিয়াজীর নেতৃত্বে ১৬ ডিসেম্বর তৎকালীন ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে মিত্র বাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পন করলেও তখনও হানাদারদের দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামসরা কিশোরগঞ্জ শহর আগলে রেখেছিল। তৎকালীন কিশোরগঞ্জ মহকুমার সকল থানা এলাকা মুক্তিযোদ্ধারা ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে মুক্ত করতে সক্ষম হলেও কিশোরগঞ্জ শহর ছিল স্থানীয় দোসরদের দখলে। শেষ পর্যন্ত বীর মুক্তিযোদ্ধারা চারিদিক থেকে শহরকে ঘিরে ফেললে অবস্থা বেগতিক দেখে স্বাধীনতা বিরোধীরা বিনা প্রতিরোধেই আত্মসমর্পনের প্রস্তাব দেয়। মু্িক্তযোদ্ধারা সাধারণ মানুষের প্রাণহানির আশঙ্কা এড়ানোর লক্ষ্যে এই প্রস্তাবে সম্মতি দেন। ফলে ১৭ ডিসেম্বর স্বাধীনতা বিরোধীরা আত্মসমর্পন করলে শহরটি আনুষ্ঠানিকভাবে শত্রুমুক্ত হয়।
আকাশপথে সেসনা বিমান প্রহরায় পাকিস্তানী সেনারা একটি বিশেষ ট্রেনযোগে একাত্তরের ১৯ এপ্রিল প্রথম কিশোরগঞ্জ শহরে ঢোকে। তাদেরকে স্বাগত জানান পাকিস্তান নেজামে ইসলামীর তৎকালীন সভাপতি শহরের শহীদি মসজিদের ইমাম মাওলানা আতাহার আলীর নেতৃত্বে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র। শহরে ঢুকেই হানাদাররা বেপরোয়া লুটপাট আর হত্যাকাণ্ডে মেতে ওঠে। স্বাধীনতা যুদ্ধের ৯ মাসে তারা কিশোরগঞ্জের প্রায় সর্বত্রই হত্যাযজ্ঞ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ আর নারী নির্যাতনে লিপ্ত থাকে। তাদেরকে সহায়তা করে এদেশীয় রাজাকার, আলবদর, আলশামস আর তথাকথিত শান্তি কমিটির নেতারা। কিশোরগঞ্জ শহরতলির বরইতলা, শোলমারা, ভৈরবের মানিকদী, ইটনার বয়রা, মিঠামইনের ধোবাজুরা, নিকলীর গুরই, কটিয়দীর ধুলদিয়াসহ জেলার ২৫টি বধ্যভূমির পাশাপাশি বহু জায়গায় চলেছে হত্যাযজ্ঞ।
মুক্তিযুদ্ধকালী সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান ও বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের এলাকা কিশোরগঞ্জ ছিল মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার মেজর শফিউল্লাহ বীর উত্তমের নেতৃত্বাধীন ৩ নং সেক্টরের অধীনে। মূলত নভেম্বর থেকেই জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে পাকিস্তানি হানাদার আর তাদের এদেশীয় দোসররা মুক্তিযোদ্ধাদের সাঁড়াশি আক্রমণে পর্যুদস্ত হয়ে পালাতে শুরু করে। পরাজয় আঁচ করতে পেরে দিশেহারা পাকিস্তানি সেনা আর মিলিশিয়ারা ৪ ডিসেম্বরই কিশোরগঞ্জ শহরে তাদের দোসরদের হাতে চাঁদতারা পতাকার দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে ঢাকায় পালিয়ে যায়।
রাজধানীসহ সারাদেশ ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের উল্লাসে মেতে উঠলেও তখনও কিশোরগঞ্জ শহরে উড়ছিল পরাধীনতার প্রতীক চাঁদতারা খচিত পাকিস্তানি পতাকা। পাকিস্তানিদের স্থানীয় দোসররা তখনও অখণ্ড পাকিস্তানের অলিক স্বপ্নে বিভোর। কিন্তু চারিদিক থেকে ক্যাপ্টেন হামিদ, কমান্ডার নূরুল ইসলাম খান পাঠান বীরপ্রতীক, আব্দুল বারী খান, কবীর উদ্দিন আহমেদ, হান্নান মোল্লা, নাজিম কবীর, সাব্বির আহমেদ মানিকসহ দুঃসাহসী কমান্ডারদের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জ শহরকে জালের মত ঘিরে ফেলেন। ক্যাপ্টেন চৌহানের নেতৃত্বে ভারতীয় মিত্র বাহিনীও প্রস্তুত ছিল। অবশেষে ১৭ ডিসেম্বর স্থানীয় রাজাকার আলবদর, আলশামসরা বিনা প্রতিরোধে আত্মসমর্পন করতে বাধ্য হয়। উল্লাসে ফেটে পড়েন স্বাধীনতাপ্রিয় জনগণ। মুক্ত আকাশে উড়িয়ে দেয়া হয় স্বাধীন দেশের পতাকা। মুক্তিযোদ্ধারা মুক্ত আকাশে মুহুর্মুহু ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে তাদের বহু আকাক্সিক্ষত মহান বিজয়ের বার্তা ঘোষণা করেন। শীর্ষস্থানীয় যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তিযোদ্ধারা বিভিন্ন ক্যাম্পে বন্দি করেন। এদের অনেককেই তখন ময়মনসিংহ কারাগারে পাঠানো হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!