• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে অটোচালক খুনের ৫ মাস পর খুনি গ্রেফতার, স্বীকারোক্তি

ভৈরবে অটোচালক
খুনের ৫ মাস পর খুনি
গ্রেফতার, স্বীকারোক্তি

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জের ভৈরব কালিকাপ্রসাদ এলাকায় এক অটোচালককে খুন করে অটো ছিনতাইয়ের ৫ মাস পর পিবিআই রহস্য উদঘাটন করে এক খুনিকে গ্রেফতার করেছে। খুনি লিটন মিয়া (২২) আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। আরো তিন খুনিকে ধরার অভিযান চলছে।
পিবিআই’র (পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন) পরিদর্শক এ ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা মো. জামির হোসেন জিয়া জানান, কুলিয়ারচরের দ্বাড়িয়াকান্দি এলাকার আব্দুল হান্নান খন্দকারের ছেলে মো. সোহেল ওরফে বদন খন্দকার (৪০) গত বছর ২২ সেপ্টেম্বর দুপুরে বাড়িতে খাওয়া-দাওয়া করে ইজিবাইক নিয়ে বেরিয়ে গিয়ে রাতে আর ফেরেননি। তার মা শরুফা বেগম রাতে ছেলের মোবাইলে ফোন করলেও কেউ রিসিভ করেনি। এরপর স্বজনরা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেও সোহেলের খোঁজ পাননি। পরদিন সকাল সাড়ে ৭টার দিকে খবর আসে, ভৈরবের কালিকাপ্রসাদ এলাকায় ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের পাশে একটি মৃতদেহ পড়ে আছে। তখন স্বজনরা গিয়ে সোহেলের লাশ শনাক্ত করেন। এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা আব্দুল হান্নান খন্দকার বাদী হয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর ভৈরব থানায় অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এক পর্যায়ে মামলাটি পিবিআই’র হাতে ন্যস্ত হলে ক্রাইমসিন ইউনিট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং পরিদর্শক জামির হোসেন জিয়া ভিকটিমের মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে সন্দিগ্ধ আসামি ভৈরব উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ছনছাড়া এলাকার মৃত আব্দুল লতিফ মিয়ার ছেলে লিটন মিয়াকে (২২) ভৈরবে শম্ভুপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করেন। পরদিন ২৬ ফেব্রুয়ারি লিটন কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আশিকুর রহমানের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দেয়। এতে জানা যায়, লিটন, রাব্বানী, জুয়েল ও কাজল পরস্পর বন্ধু। এরা দলবদ্ধভাবে ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধ সংঘটিত করে। গত বছর ২২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার পর এরা ভৈরবের শিবপুর এলাকায় বসে ইজিবাইক ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে দুর্জয় মোড়ে গিয়ে ভিকটিম সোহেলের ইজিবাইকটি ১০০ টাকায় ভাড়া করে কালিকাপ্রসাদ এলাকায় যায়। এক পর্যায়ে রাব্বানী প্রস্রাবের কথা বলে বাইকটি থামায়। এরপর রাব্বানী, জুয়েল আর কাজল চালক সোহেলকে জাবড়ে ধরে বাইরে নিয়ে গিয়ে রশি দিয়ে হাতপা বেঁধে মাথা ও মুখমণ্ডলে লোহার ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করে গামছা দিয়ে গলায় পেচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। আর লিটন বাইকে বসে লোকজন আসে কি না তা লক্ষ্য রাখে। এরপর দুর্বৃত্তরা বাইক নিয়ে পালিয়ে গিয়ে লিটনকে ভিকটিমের মোবাইল ফোনটি দিয়ে অন্যরা বাইক বিক্রির টাকা ভাগাভাগি করে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত অন্যদের ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে বলে পিবিআই জানিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!