• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ১০:১১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কিশোরগঞ্জে হাওরের বিস্ময় ‘অলসিজন’ রোড উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

(বামে) স্পিকার থাকাকালে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাঁশের সাঁকো দিয়ে একটি খাল পার হচ্ছেন। (ডানে) কিছুদিন আগে তিনি গাড়িবহর নিয়ে অলসিজন সড়ক পরিদর্শন করেন। -পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জে হাওরের বিস্ময়
‘অলসিজন’ রোড উদ্বোধন
করবেন প্রধানমন্ত্রী

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের বিস্ময় বা ‘স্থানীয় আশ্চর্য’ বলে পরিচিত ‘অলসিজন’ রোড আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেসিং-এর মাধ্যমে এর উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। আর বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের নিজ উপজেলা হাওর অধ্যুষিত মিঠামইনের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মিলনায়তন থেকে অনলাইনে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হবেন কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের এমপি রাষ্ট্রপতির সন্তান রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রাশেদুল আলমসহ অন্যান্য কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।
রাষ্ট্রপতির আগ্রহে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের মাধ্যমে ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলাকে সংযোগকারী প্রায় ৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ উঁচু অলসিজন সড়কটি নির্মিত হওয়ার পর শত শত বছরের অবহেলিত হাওরের যোগাযোগ অবকাঠামোর এক যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। হাওরের এক উপজেলা সদর থেকে অপর উপজেলা সদরে যেতে নৌপথে আগে যেখানে প্রায় তিন থেকে চার ঘণ্টা লেগে যেত, এখন আধা ঘণ্টারও কম সময়ে চলে যাওয়া যাবে। জেলা সদরেও স্বল্প সময়ে যাওয়া যাবে। বর্ষার পানির অনায়াস সঞ্চালনের জন্য এই ৩০ কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন জায়গায় নদী ও খালের ওপর ২২টি দৃষ্টিনন্দন সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। এসব মনোরম দৃশ্য উপভোগ করার জন্য ইতোমধ্যে দেশের নানা প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসতে শুরু করেছেন। রাষ্ট্রপতিও গত ২১ জুলাই সফরসঙ্গি ও গাড়িবহর নিয়ে এই সড়ক পরিদর্শন করে গেছেন। পরবর্তীতে রাষ্ট্রপতির সহধর্মিনী রাশিদা হামিদও পরিদর্শন করে গেছেন। অথচ এক সময় এসব খাল বা নদী বাঁশের সাঁকো দিয়ে পার হতে হতো। রাষ্ট্রপতি নিজেও স্পিকার থাকার সময় ২০১২ সালে সাঁকো দিয়ে খাল পার হয়েছেন। অলসিজন সড়ক প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনসহ পরিকল্পিত উন্নয়ন ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে হাওরকে শহরের উন্নয়নের সঙ্গে সংযুক্ত করবে। হাওরের জীবনমান এবং শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগবে বলে এলাকাবাসীর অভিমত। এছাড়া মিঠামইনে একটি সেনানিবাসও নির্মিত হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!