• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:১১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

পরাজিত প্রার্থীর বাসায় ফুল ও মিষ্টি নিয়ে হাজির নবনির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা ইয়াসমিন

#এম. আর রুবেল :-
গত ৫ জুন চতুর্থধাপে অনুষ্ঠিত ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন সানজিদা ইয়াসমিন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন দুইবারের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনোয়ার বেগম। নির্বাচনে দুজন প্রার্থীর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকলে বিজয়ী হওয়ার পর আজ শনিবার সন্ধ্যায় নবনির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা ইয়াসমিন ফুলের তোড়া ও মিষ্টি নিয়ে উপস্থিত হন পরাজিত প্রার্থী দুবারের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনোয়ারা বেগমের বাসায়। তখন তারা ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। দুজনই দুজনকে মুখে মিষ্টি তুলে দিয়েছেন। এসময় দুজনেই ছিলেন অনেক হাসি খুশি। এমন হাসি খুশি অবস্থায় একে অন্যের সাথে মিলে মিশে সাধারণ মানুষের উপকারে এগিয়ে আসবেন এবং ভৈরবকে সুন্দর করতে কাজ করবেন এমটাই আশা করেছেন সাধারণ মানুষ।
সাধারণ মানুষের ভাষ্য, নির্বাচনে হারজিত থাকবে এটাই স্বাভাবিক। একটি পদে জয়ের জন্য একাধিক প্রার্থী চেষ্টা করে । সবাই তো আর বিজয়ী হওয়ার সেই সিস্টেম নাই। এক পদে একজনই জয়ী হবে আর অন্যরা পরাজিত হবে। তবে ভোটে জয়ী বা পরাজিত হলেই কেউ কাউকে শত্রুতার পর্যায়ে নিয়ে যাওয়াটা বোকামি। সবাই মিলে মিশে ভৈরবটাকে সুন্দর ও সুশৃঙ্খলতায় ফেরাতে কাজ করতে হবে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের কাছে এমন দাবি ভৈরববাসীর।
শুধুমাত্র নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাসা গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করলেই হবেনা। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে যারা অংশ নিয়েছে সবার সাথেই ফুলের শুভেচ্ছা বিনিময় করা উচিত বলে মনে করেন সুধীসমাজের লোকজন। এতে করে একজন জনপ্রতিনিধির ব্যক্তিত্ব ও মনমানসিকতা উন্নত হবে বলে তারা মনে করেন।
এদিকে নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান হাজী মোশারফ হোসেন জয়ী হওয়ার পরদিনই ফুলের তোড়া নিয়ে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জিয়াউর রহমান অরুণের বাসায় গিয়ে ফুলের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছিলেন।
দুইজন ভাইস চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সাথে ফুলের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেও এখনো বিজয়ী নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আবুল মনসুরকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পরাজিত প্রার্থীর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা যায়নি। সকল ভেদাভেদ ভুলে দুজন ভাইস চেয়ারম্যানের মতো নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানও ফুল নিয়ে পরাজিত প্রার্থীর বাসায় হাজির হবেন এমনটাই প্রত্যাশা করেছেন ভৈরববাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *