• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

বাজিতপুরে বিশাল জয় পেলেন কাজল জামানত হারালেন বাকী তিন চেয়ারম্যান প্রার্থী

# মোহাম্মদ খলিলুর রহমান :-
৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ৪র্থ ধাপে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলায়। এই নির্বাচনে নির্ধারিত ভোট না পাওয়ায় বর্তমান চেয়ারম্যানসহ ৩ জন প্রার্থী জামানত হারালেন। ৩৬ হাজার ভোট পেয়ে বিশাল জয় পেয়েছেন রেজাউল হক কাজল। তিনি তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রকিবুল হাসান শিবলী হতে ২৮ হাজার ৭৩৫ ভোট বেশি পেয়েছেন।
গতকাল ৫ জুন বুধবার উপজেলার ৮৫টি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ শেষে রাতে বেসরকারি ভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শামীম হুসাইন। এই ফলাফল ঘোষনা থেকে জানা যায় যে ওই ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচন কমিশনের বেঁধে দেওয়া নির্ধারিত সর্বনিম্ম ভোট না পাওয়ার কারণে জামানাত হারালেন।
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আহাম্মদ আলী বলেন নির্বাচন নীতিমালা অনুযায়ী প্রদত্ত ভোটের পনের ভাগের এক ভাগ ভোট প্রার্থীকে পেতে হবে তা না হলে সেই প্রার্থী জামানত হারাবেন। উপজেলায় ৮৫টি কেন্দ্রে মোট ২ লক্ষ ১৩ হাজার ৫৭০ জন ভোটারের মধ্যে ৫৪ হাজার ৫১৮ জন ভোটার ভোট প্রয়োগ করেন। এর মধ্যে বৈধ ভোটের সংখ্যা ৫২ হাজার ৮০৬টি আর বাতিলকৃত ভোটের সংখ্যা ১ হাজার ৭১২টি। শতকরা ভোট পড়েছে ২৫.৫৩ ভাগ। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীকারী মোট প্রার্থী ছিলেন চারজন।
নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী প্রতিদ্বন্দ্বীকারী প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট যদি মোট প্রদত্ত ভোটের ১৫ শতাংশের কম হয় তাহলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। সেই হিসেবে বাজিতপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থীদের সর্বনিম্ন ভোট পেতে হবে ৮ হাজার ১৭৭টি তাহলে তারা জামানত হারাবেন না।
কিন্তু চেয়ারম্যান প্রার্থী রকিবুল হাসান শিবলী (মোটরসাইকেল) প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৭ হাজার ৪৭৭টি, মোবারক হোসেন মাস্টার (দোয়াত কলম) প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৬ হাজার ৮৭৩টি, আবদুল্লাহ আল মামুন (ঘোড়া) প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ২ হাজার ২৪৪টি ।
তাই নির্বাচন নীতিমালা অনুযায়ী বাজিতপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীকারী এই তিন প্রার্থী তাদের জামানত হিসেবে প্রতিজন ১ লাখ করে টাকা আর ফেরত পাবেন না।
বাজিতপুর উপজেলায় ভাইস-চেয়ারম্যান পদে মো. মাসুদ মিয়া চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ৪৬৫, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী টিউবওয়েল প্রতীকে কাসেদ মাস্টার পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩৬২ ভোট।
মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে গোলনাহার ফারুক প্রজাপতি প্রতীকে পেয়েছেন ২৪ হাজার ৮৪২ ভোট, তার নিকটতম প্রার্থী আরিফা হোসেন কলস প্রতীকে পেয়েছেন ১৭ হাজার ৭৭২ ভোট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *