• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১৯ অপরাহ্ন |
  • English Version

নির্বাচনকে ঘিরে ভৈরব পৌর এলাকা এখন উৎসবের নগরী

নির্বাচনকে ঘিরে ভৈরব পৌর
এলাকা এখন উৎসবের নগরী
জয় নিশ্চিত করতে প্রার্থীদের
প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি

# মো. মোস্তাফিজ আমিন :-

আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি রোববার ভৈরব পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই প্রথমবারের মতো ইভিএমের মাধ্যমে ভোট দেবেন এখানকার ভোটাররা। নির্বাচিত করবেন একজন মেয়র, ১২ জন কাউন্সিলর ও ৪ জন সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলর। যারা আগামী পাঁচ বছর পৌর এলাকার উন্নয়নসহ নাগরিকদের নানা সেবা দিয়ে যাবেন।
সাধারণ এই নির্বাচনকে ঘিরে এখন পুরো পৌর এলাকায় বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। পৌরসভার অলিগলিতে পোস্টার আর প্রচারণায় সরগরম। যতোই ভোটের দিন এগিয়ে আসছে, ততোই উৎকণ্ঠা আর উদ্বেগে সময় কাটছে প্রার্থী, সমর্থক ও ভোটারদের।
এখানে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নে দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে লড়ছেন পৌর আওয়ামী লীগ সাবেক সভাপতি মো. ইফতেখার হোসেন বেনু। বনেদী পরিবারের সদস্য এবং সুশিক্ষিত, সজ্জন ও রাজনীতির শুদ্ধ মানুষ হিসেবে তাঁর ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও পরিচিতি আছে।
ব্যক্তিগত ক্লীন ইমেজ, ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী এবং শেখ হাসিনা ও স্থানীয় হেভিয়েট সাংসদ নাজমুল হাসান পাপনের সহায়তায় মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান ও নারীনেত্রী শহীদ আইভি রহমানের স্বপ্নের আধুনিক ভৈরব গড়ার প্রত্যয়ে তিনি দ্বারে দ্বারে ঘুরে ঘুরে তাঁকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে ভোটারদের প্রতিশ্রুতি চাচ্ছেন।
অপরদিকে বিগত ২০১১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পৌরসভার মেয়র থাকাকালীন ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন বলে দাবি করে বিএনপি দলীয় মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী হাজী মো. শাহীনও তাঁকে নির্বাচিত করতে ভোটারদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছেন। সততার সাথে ও সুন্দরভাবে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করা সাবেক এই মেয়রও পরিচ্ছন্ন উন্নত এক নগরী গড়তে আর একবার সুযোগ চাচ্ছেন ভোটারদের কাছে। তিনি ভৈরব পৌর বিএনপি’র আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।
তবে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নেই বলে দাবি করে তিনি অভিযোগ করেন, তাঁকে ঠিক মতো নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে দিচ্ছেন না ক্ষমতাশীল দলের নেতা-কর্মীরা। সভা-সমাবেশে বাঁধা তৈরিসহ তাঁর নির্বাচনী পোস্টার ছেঁড়ে ফেলা হচ্ছে বিভিন্ন জায়গা থেকে। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হলে তিনি মেয়র নির্বাচিত হবেন বলে শতভাগ আশাবাদী বলেও জানান এই প্রার্থী।
এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ আল মামুন লড়ছেন মোবাইল প্রতীক নিয়ে। তাঁর দাবি, ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত আছেন বিগত ৩১ বছর। এই দীর্ঘ সময়ে তিনি দলীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ-পদবীসহ পৌরসভার কাউন্সিলর, ভৈরব চেম্বারে দুইবারের নির্বাচিত সভাপতি হয়ে তিনি মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এ ছাড়াও গরীব-দুঃখী অসহায় মানুষদের পক্ষে ন্যায় বিচার ও সালিশ-দরবার করে তিনি আস্থা অর্জন করেছেন।
তিনি নিজেকে জনতার মেয়র প্রার্থী দাবি করে বলেন, তাঁকে মেয়র নির্বাচিত করতে দল-মত নির্বিশেষে পৌরবাসী তাঁর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। যেখানে যাচ্ছেন, সেখানেই তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছাসহ আলিঙ্গন করে নিচ্ছেন তারা। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিনিও তাঁর জয়ের বিষয়ে শতভাগ নিশ্চিত হলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
এদিকে নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের মাঝে যেমন আগ্রহ আছে, তেমনি আছে শংকাও। তাদের কারো অভিযোগ বিগত দুটি নির্বাচনে তারা নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেননি। এবারও আশঙ্কা করছেন সেরকম। তাই তাদের দাবি, প্রশাসন, দলীয় নেতা-কর্মীসহ সংশ্লিষ্টরা যেনো ভোট দেওয়ার পরিবেশটা রক্ষা করেন।
কারো কারো অভিযোগ, ভোটের সময় প্রার্থীরা নানান প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে আর সেইগুলি বাস্তবায়ণে উদ্যোগী হননা নির্বাচিতরা। ফলে পৌর নাগরিকদের মৌলিক সমস্যাগুলি থেকেই যায়। আর বেড়ে যায়, চুরি-ছিনতাই, রাহাজানি, মাদকসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। তাই তারা এবার প্রতিশ্রুতি রক্ষাকারী, সৎ, যোগ্য প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে চান।
ভৈরব পৌরসভার এবার ভোটার সংখ্যা ৭৯ হাজার ৭১৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৩৯ হাজার ৪০৬ আর মহিলা ৪০ হাজার ৩০৭ জন। ইভিএমের মাধ্যমে দিয়ে তারা নির্বাচিত করবেন একজন মেয়র, ১২টি ওয়ার্ডের জন্য ১২ জন সাধারণ এবং ১২টি ওয়ার্ড থেকে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ৪ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৩৫টি। কক্ষের সংখ্যা ২৪০টি।
এদিকে সহকারী রির্টানিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা প্রলয় কুমার সাহা জানান, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সব রকম প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ২৮ তারিখ রোববার ভৈরববাসী একটি সুন্দর নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করতে পারবেন। সেদিন কোনো বিরতি ছাঁড়াই সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রদান করতে পারবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!