• শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৩ অপরাহ্ন |
  • English Version

সরেজমিন প্রতিবেদন, ভারতীয় তালিকাভুক্তি ছাড়া করিমগঞ্জে ২২ মুক্তিযোদ্ধা

ওপরে কলমাকান্দার চার মুক্তিযোদ্ধা। নীচে বিশরপাশা এলাকার একাত্তরের বর্ণনা দিচ্ছেন নাজিম উদ্দিন, আলী হোসেন এবং জাহের আলী। -পূর্বকণ্ঠ

সরেজমিন প্রতিবেদন
ভারতীয় তালিকাভুক্তি ছাড়া
করিমগঞ্জে ২২ মুক্তিযোদ্ধা

# মোস্তফা কামাল :-

ভুয়া ট্রেনিং ক্যাম্প দেখিয়ে করিমগঞ্জে অন্তত ২২ ব্যক্তি ভারতীয় তালিকাভুক্তি ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এদের মধ্যে সাধারণ মুক্তিযোদ্ধারা মাসে ১২শ’ টাকা ভাতা পেলেও একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে মাসে ২৫ হাজার টাকা ভাতা উত্তোলন করছেন বলেও জানা গেছে। এর বিরুদ্ধে করিমগঞ্জের ভারতীয় তালিকাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধারা অনেক দিন ধরেই মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মহলে প্রতিবাদ ও অভিযোগ করে আসছেন। এরপরও বিষয়টির সুরাহা হচ্ছে না বলে জানা গেছে। করিমগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মেহেদিউল আলমসহ অন্তত ২২ ব্যক্তি নেত্রকোনার ভারত সীমান্তবর্তী দুর্গম উপজেলা কলমাকান্দার বিশরপাশা প্রাইমারি স্কুল মাঠের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন দাবি করে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। এদেরকেই কমিরগঞ্জসহ কলমাকান্দার মুক্তিযোদ্ধারা ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আখ্যায়িত করছেন। কেবল করিমগঞ্জ নয়, কলমাকান্দাসহ আরো কয়েকটি এলাকায় এরকম বিশরপাশা এলাকার মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে মেহেদিউল আলম বলেছেন, তারা কয়েকজন প্রশিক্ষণ নিতে ভারতের মহেশখলা গিয়েছিলেন। তখন পরিস্থিতি ভাল নয় বলে তাদেরকে প্রশিক্ষণের সুযোগ না দিয়ে দেশের অভ্যন্তরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। পরে মহেশখলার অদূরে বিশরপাশা এলাকায় তারা ইপিআর এবং সেনা সদস্যদের কাছে প্রায় দেড়শ’ জন মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। এর মধ্যে করিমগঞ্জের ছিলেন ২২ জন। মেহেদিউল আলম বারহাট্টা এলাকায় যুদ্ধ করতে গিয়ে আহত হয়েছিলেন বলে এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন।
কলমাকান্দা উপজেলার বিশরপাশা এলাকায় মঙ্গলবার সরেজমিনে অনুসন্ধানে গিয়ে দেখা গেছে, এলাকাটি ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সারি সারি পাহাড়ি এলাকার পাদদেশে প্রশস্ত সুমেশ্বরী নদীর তীরে অবস্থিত। বিশরপাশা সরকারি প্রাইমারি স্কুলটি প্রতিষ্ঠা হয়েছে ১৯১৯ সালে। বর্তমানে একটি পাকা ভবন হলেও একাত্তরে ছিল একটি টিনের ঘর। ঘরটি এখনো আছে। সেখানে কোন প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের অস্তিত্ব ছিল না বলে এলাকার কয়েকজন বয়স্ক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। এলাকার রেডিও মেকানিক আলী হোসেন (৬৮) জানিয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধকালে তার বয়স ছিল ১৮ বছর। তখনকার সব স্মৃতিই তার পরিষ্কার মনে আছে। তিনি জানান, এখানে কোন প্রশিক্ষণ ক্যাম্প থাকার প্রশ্নই আসে না। তবে এখানে কিছু সশস্ত্র ব্যক্তি মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে একটি ঘরে ক্যাম্প বানিয়ে থাকতেন। তাদের কোন যুদ্ধ করতে দেখা যায়নি। রাতের বেলায় কিছু গুলির শব্দ শোনা যেত। এরা এলাকায় নারী নির্যাতনসহ ব্যাপক লুটতরাজ করেছেন। যুবতী মেয়েদের ধরে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন করতেন। এক ব্যক্তিকে হত্যা করে তার মেয়েকে উঠিয়ে নিয়ে একজন বিয়েও করেছিলেন। মানুষের সম্পদ, গরু, ছাগল, মুরগি লুট করে রাজকীয় হালে খাওয়াদাওয়া হতো। এলাকাটি হিন্দু অধ্যুষিত ছিল। তারা প্রাণভয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে মেঘালয় চলে গিয়েছিলেন। তাদের বাড়িতেও ব্যাপক লুটতরাজ করেছে। এলাকার কৃষক জাহের আলীও (৭৬) একই রকম বর্ণনা দিয়েছেন।
কলমাকান্দা উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত কোম্পানি কমান্ডার ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক তালুকদার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার পূবালী ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. নূরুল ইসলাম, বাউসাম গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক মুক্তিযোদ্ধা মো. সাহেব আলী এবং বিষমপুর গ্রামের মু্িক্তযোদ্ধা আব্দুল আলীও বিশরপাশা এলাকায় কোন ট্রেনিং ক্যাম্প ছিল না বলে দৃঢ়তার সঙ্গে এ প্রতিনিধির কাছে জানিয়েছেন। এরাও সেখানে কিছু সশস্ত্র ব্যক্তি হিন্দু বাড়িসহ বিভিন্ন বাড়িতে লুটপাট এবং নারী নির্যাতন করেছেন বলে জানিয়েছেন। বিশরপাশা ট্রেনিং ক্যাম্পের নাম দিয়ে কলমাকান্দায়ও কিছু ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন বলে তারা জানিয়েছেন। তারা জানান, ভারতের বাইরে দেশে ট্রেনিং নেওয়া তিনটি মুক্তিযোদ্ধা বাহিনীকে বঙ্গবন্ধু মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন- কাদেরিয়া বাহিনী, হেমায়েত বাহিনী এবং আফসার বাহিনী। এর বাইরে দেশের ভেতরে আর কোন মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ নেননি। তারা জানান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল থাকা সত্বেও জামুকা (জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল) গঠনের পর মুক্তিযোদ্ধার তালিকা নিয়ে বেশি বিতর্ক তৈরি হচ্ছে।
করিমগঞ্জের মেহিদিউল আলম জানিয়েছেন, ভারতীয় তালিকায় তার নাম নেই। তবে পঁচাত্তরের পর তিনি তালিকাভুক্ত হয়েছেন। এরপর আওয়ামী লীগের ’৯৬-এর সরকারের আমলে লাল তালিকাভুক্ত হয়েছেন। পরবর্তীতে ২০০৫ সালের ১২ মে প্রকাশিত গেজেটে তার নাম উঠেছে। যদি মুক্তিযুদ্ধ করার ইচ্ছা না থাকবে, তবে তিনি বাড়ি থেকে এত দূরে কেন গিয়েছিলেন, এমন সগদোক্তি করে তিনি বলেন, সরকারিভাবে এখন বিষয়টির তদন্ত হবে। তদন্তে যা হয়, তিনি মেনে নেবেন। করিমগঞ্জের ভারতীয় তালিকাভুক্ত তোড়া প্রশিক্ষণ ক্যাম্প এবং ইকোয়ান প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নেওয়া মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক, হাবিবুর রহমান, মেসবাহ উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম, হামিদুল হক ও হেলাল উদ্দিন ১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার কলমাকান্দা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক তালুকদার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সোহেল রানার সঙ্গে দেখা করে অনুরোধ জানিয়েছেন, যেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় বিশরপাশা ট্রেনিং ক্যাম্প সম্পর্কে কোন প্রতিবেদন বা মতামত চাইলে সঠিক তথ্যটি পরিবেশন করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান তো নিজেই এ ধরনের কোন ট্রেনিং ক্যাম্প ছিল না বলে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। আর উপজেলা নির্বাহী অফিসারও মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্বাস দিয়েছেন, মন্ত্রণালয় কোন প্রতিবেদন চাইলে তিনি খোঁজখবর নিয়ে সঠিক প্রতিবেদনই দেবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!