• শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:০০ অপরাহ্ন |
  • English Version

ইবাদত কবুলের শর্ত : ইখলাছ তথা সকল ইবাদতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখা

ইবাদত কবুলের শর্ত : ইখলাছ তথা সকল
ইবাদতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখা

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ইখলাছ শব্দটি আরবী, এর শাব্দিক অর্থ হল, কোন জিনিস পরিশুদ্ধ করা, অন্য কোন কিছুর সাথে তাকে না মেশানো। আর পরিভাষায় ইখলাছ বলা হয়, প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য সকল প্রকারের ইবাদত একমাত্র মহান আল্লাহর উদ্দেশ্যে নিবেদন করাকে। ইখলাছ সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন, তাদেরকে এছাড়া কোন নির্দেশ দেয়া হয়নি যে, তারা খালেছ অন্তরে একনিষ্ঠভাবে কেবলমাত্র আল্লাহর ইবাদত করবে। (সূরা বাইয়্যিনাহ: ৫)
রাসূল (সা.) নিজেও আল্লাহর ইবাদত ইখলাছের সাথে করতেন। আর এই কথা মানুষকে জানিয়ে দিতে মহান আল্লাহ নিজে তাঁর রাসূলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, বল, আমি আল্লাহর ইবাদত করি তাঁর জন্য আমার আনুগত্যকে একনিষ্ঠ করার মাধ্যমে। (সূরা যুমার: ১৪)
অন্যত্র এসেছে, আমি তোমার প্রতি এ কিতাব অবতীর্ণ করেছি সত্যতা সহকারে, (এতে নেই কোন প্রকার মিথ্যে) কাজেই আল্লাহর ইবাদত কর দ্বীনকে (অর্থাৎ আনুগত্য, হুকুম পালন, দাসত্ব ও গোলামীকে) একমাত্র তাঁরই জন্য নির্দিষ্ট করে। (সূরা যুমার: ২)
উল্লেখিত আয়াতগুলোর মাধ্যমে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, ইসলামী শরীয়তে ইখলাছ তথা ইবাদতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখার গুরুত্ব অপরিসীম।
ইখলাছের ফল : ইখলাছের অনেক উপকারিতা ও ফল রয়েছে। নেককার ঈমানদার বান্দার অন্তরে যখন ইখলাছ বিদ্যমান থাকে তখন সে এসব উপকারিতা ও ফল লাভ করে থাকে। এখানে ইখলাছের কিছু ফল তুলে ধরা হল:
১। আল্লাহর নিকট আমল কবুল হয় :-
আবু উসামা আল বাহেলী (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ তা’আলা তাঁর জন্য কৃত খাঁটি (একনিষ্ট) আমল ব্যতীত, যা দ্বারা আল্লাহর সন্তুষ্টি ছাড়া আর কিছুই উদ্দেশ্য না হয়, আর কিছুই কবুল করেন না। (নাসাঈ: ৩১৪০)
২। পাপ ক্ষমা হয় :-
ইখলাছ গোনাহ মাফের অন্যতম শ্রেষ্ঠ উপায়। কেননা একটা আমলও যদি বান্দা এমনভাবে করতে পারে, যাতে আল্লাহর জন্য পরিপূর্ণভাবে ইখলাছ ও ইবাদত বজায় থাকে, তাহলে আল্লাহ তা’আলা তার বিনিময়ে ঐ বান্দার কবীরা গুনাহ পর্যন্ত মাফ করে দিতে পারেন। (তিরমিযি: ২৬৩৯)
৩। শয়তান থেকে আত্মরক্ষা করা সহজ হয় :-
শয়তান যখন আল্লাহর বান্দাদের বিপথগামী করার জন্য স্বপ্রণোদিত হয়ে অঙ্গীকার করেছিল তখন সে আল্লাহর খাঁটি বান্দাদের তা থেকে বাদ রেখেছিল। সে বলেছিল, তবে তাদের মধ্য থেকে তোমার নির্বাচিত বান্দারা ব্যতীত। (সূরা হিজর: ৪০)
৪। বিপদ থেকে উদ্ধার হওয়া যায় :-
ইহজীবনে মানুষ নানা বিপদাপদের সম্মুখীন হয়। ইখলাছপূর্ণ জীবন-যাপন করলে আল্লাহ সে সব বিপদ থেকে তাকে উদ্ধার করেন। বিপদগ্রস্ত এমন তিনজন মানুষের কথা বুখারী ও মুসলিমের হাদীসে এসেছে যারা ইখলাছপূর্ণ আমলের বিনিময়ে বিপদ থেকে উদ্ধার পেয়েছিলেন।
এছাড়াও ইখলাছের গুণে ছোট আমলও বড় আমলে রূপান্তরিত হয়। আমল বাস্তবায়ন না করতে পারলেও শুধু ইখলাছের খাতিরে সওয়াব লাভ হয়। ইখলাছের বদৌলতে মুবাহ ও অভ্যাস জাতীয় কাজও ইবাদতে রূপান্তরিত হয়। ফিতনা-ফাসাদ হতে মুক্ত থাকা যায়। দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি লাভ হয় এবং জীবিকা বৃদ্ধি পায় ইত্যাদি।
ইখলাছ না থাকার ক্ষতি : ইখলাছের যেমন অনেক উপকারিতা ও ফল আছে, ঠিক তেমনি ইখলাছ না থাকার অনেক কুফল বা ক্ষতিও আছে। যেমন- ১। আমল কবুল হবে না। (নাসাঈ: ৩১৪০) ২। জান্নাতে প্রবেশ করা যাবে না। ইখলাছহীন আমল করলে মানুষ জান্নাতে যাওয়ার সুযোগ পাবে না। (দাউদ: ৩৬৬৪) ৩। জাহান্নামে প্রবেশ করতে হবে। আমল যত দামীই হোক না কেন- তা ইখলাস শূণ্য হলে জাহান্নামে যাওয়ার কারণ হবে। (মুসলিম, মিশকাত: ২০৫) এছাড়াও ইখলাছ থাকলে যে ফল পাওয়া যেত সেগুলো পাওয়া যাবেনা।
উল্লেখিত আলোচনা থেকে বুঝা যায় যে, ইখলাছের গুরুত্ব অপরিসীম। কাজেই আমাদের সকলেরই উচিত সকল ইবাদতে ইখলাছ তথা একনিষ্ঠতা বজায় রাখা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফীক দিন। আমীন।
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!