• শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:১৭ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
করিমগঞ্জে আ’লীগে ১৮ বছর আহবায়ক কমিটি, পাল্টা কমিটির সংবাদ সম্মেলন থেকে পুরনো আহবায়ককে প্রতিহতের ডাক সরেজমিন প্রতিবেদন, ভারতীয় তালিকাভুক্তি ছাড়া করিমগঞ্জে ২২ মুক্তিযোদ্ধা কিশোরগঞ্জে র‌্যাবের হাতে নিষিদ্ধ আল্লাহর দলের এক সদস্য আটক ইবাদত কবুলের শর্ত : ইখলাছ তথা সকল ইবাদতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখা কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৪ সুস্থ হয়েছেন নতুন ১৭ জন কিশোরগঞ্জ ও কুলিয়ারচর পৌর নির্বাচন, মনোনয়ন জমা ২০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ ১৬ জানুয়ারি ভৈরবে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি অব্যাহত কিশোরগঞ্জে বিজয় দিবস উদযাপনে সভা অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জে প.প. সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে অ্যাডভোকেসি সভা করিমগঞ্জে কৃষক লীগের সম্মেলন

ভৈরবে একজন মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

ভৈরবে একজন মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে
ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

# মিলাদ হোসেন অপু :-

ভৈরবে আসন্ন পৌর নির্বাচনের এক মেয়র প্রার্থী জুলফিকার আলী কাইয়ুমের বিরুদ্ধে ১১ কোটি ৯০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি ভৈরব পৌর শহরের চণ্ডিবের গ্রামের কামাল সরকার বাড়ির শওকত আলী মিয়ার ছেলে। তিনি প্রিমিয়ার ব্যাংক লি. রাজধানীর রোকেয়া সরণি শাখায় সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার ও ক্রেডিট ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। তিনি এ ব্যাংকে ২০০৮ সালের ৭ ডিসেম্বর সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে যোগদান করেন।
জুলফিকার আলী কাইয়ুম ভৈরব পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় তার সহযোগীদের নিয়ে ব্যাপক নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। পৌর এলাকার অলিগলিতে রাস্তার পাশে বিভিন্ন রকমের ফেস্টুন, ব্যানার, পোস্টার সাঁটিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। গত ২০ অক্টোবর দি প্রিমিয়ার ব্যাংক লি. প্রধান কার্যালয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও হেড অব এইচআর অপারেশন মোহাম্মদ কায়সার আলম মজুমদার বাদী হয়ে ঢাকার কাফরুল থানায় অর্থ আত্মসাত সংক্রান্ত একটি এজাহার দায়ের করেছেন। এই এজাহারে একই অপরাধে একই শাখার ভাইস প্রেসিডেন্ট ও শাখা ব্যবস্থাপক ঠাকুরগাঁওয়ের হাজী গ্রামের মৃত নাজির আহম্মেদের ছেলে মো. ফেরদৌস আলমের বিরুদ্ধেও অভিযোগ রয়েছে । বাদী মোহাম্মদ কায়সার আলম মজুমদার তার এজাহারে জুলফিকার আলী কাইয়ুম ও মো. ফেরদৌস আলমের বিরুদ্ধে বিশ্বাস ভঙ্গ করে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেছেন। গত ১৫ অক্টোবর ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা ও পরিপালন (অডিট) বিভাগ নিয়মিত অডিট পরিচালনাকালে ব্যাংকের অত্র শাখায় রক্ষিত বিভিন্ন গ্রাহকের ফিক্সড ডিপোজিট এফডিআর ও ডাবল বেনিফিট হিসাবের নথি পর্যালোচনার সময় বেশ কিছু ফিক্সড ডিপোজিট এফডিআর ও ডাবল বেনিফিটের হিসাবের নথি, ফরম ও রিসিপ্ট খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এমতাবস্থায় শাখার দায়িত্বাধীন কর্মকর্তা জুলফিকার ও ফেরদৌস আলমের নিকট ফাইলপত্র চাওয়া হলে বিভিন্ন ফাইল খুঁজাখুঁজি অবস্থায় এবং অডিট টিম অডিট কার্যক্রম সম্পন্ন করা অবস্থায় বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে ব্যাংকে রক্ষিত বেশ কয়েকটি ফিক্সড ডিপোজিট এফডিআর ও ডাবল বেনিফিট হিসাবের ফাইলসহ জুলফিকার কাইয়ুম উক্ত শাখার কতিপয় ব্যক্তির প্রত্যক্ষ সহায়তায় সুকৌশলে পালিয়ে যান। যার মূল্য ১১ কোটি ৯০ লাখ টাকার চেয়েও বেশি হতে পারে। এই অভিযোগে জুলফিকার কাইয়ুম ও ফেরদৌস আলমসহ অন্যান্য কর্মকর্তারাও জড়িত রয়েছেন বলে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়াও প্রধান কার্যালয়ের অভ্যন্তরীণ তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনাকালে দেখা গেছে, অভিযুক্ত জুলফিকার কাইয়ুমের নামে এফডিআর ও ডাবল বেনিফিট স্কীমের বিপরীতে নেয়া লোন সংক্রান্ত কাগজপত্রাদি ও ফাইল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত জুলফিকার কাইয়ুমের ফোনে যোগাযোগ করে এবং বাসায় লোকজন পাঠিয়েও তাকে পায়নি। অভিযোগে রয়েছে, ঘটনার পর থেকে উল্লেখিত কাগজপত্রসহ তিনি আত্মগোপন করে আছেন। এছাড়াও অভিযোগে রয়েছে, জুলফিকার আলী কাইয়ুম ও ফেরদৌস আলম কতিপয় ব্যক্তির প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ২০০৮ সালের ৭ ডিসেম্বর থেকে গত ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যাংকের মূল্যবান ফাইল ও কাগজপত্রাদি অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গ করে প্রতারণামূলকভাবে আত্মসাৎ করেছেন।
এ বিষয়ে অভিযোগকারী দি প্রিমিয়ার ব্যাংক লি. প্রধান কার্যালয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও হেড অব এইচআর অপারেশন মোহাম্মদ কায়সার আলম মজুমদার বলেন, আমি ব্যাংকের পক্ষ হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছি। তবে এ বিষয়ে তিনি এর বেশি আর কিছু বলতে রাজি হননি। কাফরুল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সেলিমুজ্জামান জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে জুলফিকার আলী কাইয়ুমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!